kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে এবার অবসর সারওয়ানের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৭:২৪



আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে এবার অবসর সারওয়ানের

যে প্রতিশ্রুতি নিয়ে তার ক্যারিয়ার শুরু হয়েছিল তা বলতো ভিন্ন কথা। তখন বিশেষজ্ঞদের ধারণা ছিল, ওয়েস্ট ইন্ডিজের কিংবদন্তিদের কাতারে নিজেকে নিয়ে গিয়ে থামবেন রামনরেশ সারওয়ান।

কিন্তু এই ক্যারবিয়ান ব্যাটসম্যান সেই প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি। বৃহস্পতিবার গায়ানায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিতে যাচ্ছেন ৩৬ বছরের ব্যাটসম্যান। যদিও এই পর্যায়ের ক্রিকেটে তার খেলার আশা আর দেখা যায় না।

শেষবার ডান হাতি সারওয়ান ওয়ানডে খেলেছেন ২০১৩ সালে। দ্য ওভালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ম্যাচ ছিল সেটি। সব মিলিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ২৮৬টি আর্ন্তজাতিক ম্যাচ খেলেছেন। ২০১১ সালে শেষ হয়েছে টেস্ট ক্যারিয়ার। ১১ বছরের ক্যারিয়ারে ৮৭টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন। রান ৫৮৪২। ১৫টি সেঞ্চুরি করেছিলেন। ২৯১ রানের ইনিংস আছে তার। ৪০.০১ গড়ে শেষ করেছিলেন। ১৮১ ওয়ানডেতে ৫ সেঞ্চুরিতে ৫৮০৪ রান তার। খেলেছিলেন ১৮টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ।
অধিনায়কও ছিলেন। চারটি টেস্ট, পাঁচটি ওয়ানডে ও দুটি টি-টোয়েন্টিতে দেশকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। ২০০৪ সালে বাংলাদেশে স্ট্যান্ড ইন অধিনায়ক হয়েছিলেন। এই সফরেই নিজের ২৮তম টেস্টে ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি করেন। ২০০৭ সালে ব্রায়ান লারার অবসরের পর তিনি নেতৃত্ব পান। কিন্তু ইনজুরির কারণে পরে ক্রিস গেইলের কাছে নেতৃত্ব হারান।

১৫ বছর বয়সে ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেট শুরু সারওয়ানের। ১৯ বছরে টেস্ট অভিষেক। তার ১৫ সেঞ্চুরির ১৪টি এসেছে ২ নম্বরে ব্যাট করে। ২০০৩ সালে বিশ্ব দেখেছে তার সেরা পারফরম্যান্স। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অ্যান্টিগা টেস্টে ৫ নম্বরে ব্যাট করে ১০৫ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেন। তাতে টেস্ট ইতিহাসের সর্বোচ্চ চতুর্থ ইনিংসের ৪১৮ রানের টার্গেট জয় করে ম্যাচ জেতে ক্যারিবিয়ানরা।

২০০৯ সালে বার্বাডোজে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২৯১ রানের ইনিংস খেলেন। ভিভ রিচার্ডসের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড স্পর্শ করেন। ৩ নম্বরে ৬০ ম্যাচে তার রান ৪১৯৭। এই পজিশনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে তৃতীয় সর্বোচ্চ রান তার। এই পজিশনেই ক্যারিবিয়ানদের সর্বোচ্চ ১৪ সেঞ্চুরির রেকর্ডটি তিনি ভাগাভাগি করেন গ্রেট রিচি রিচার্ডসনের সাথে। পরের দিকে পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা না থাকায় এবং ইনজুরির কারণে ক্যারিয়ারকে দীর্ঘ করতে পারেননি সারওয়ান।  

 


মন্তব্য