kalerkantho


হার দিয়ে শেষ দিলশানের ১৭ বছরের ক্যারিয়ার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১০:১৪



হার দিয়ে শেষ দিলশানের ১৭ বছরের ক্যারিয়ার

একটু কি আক্ষেপ থাকবে তিলকারত্নে দিলশানের? ক্যারিয়ারের শেষ সিরিজটা হারলেন। শেষ দুই ম্যাচে বলার মতো কিছু করতে পারলেন না।

এবং একেবারে শেষ ম্যাচটায় মাত্র ১ রান করলেন। ১৭ বছরের ক্যারিয়ারের শেষটা তো এর চেয়ে একটু ভালোও হতে পারতো! কলম্বোতে কাল অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচ খেললেন দিলশান। এই ম্যাচের সাথে শেষ হলো তার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার। গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের ব্যাটে ম্যাচটা ৪ উইকেটে জিতেছে অস্ট্রেলিয়া। শ্রীলঙ্কা সিরিজ হেরেছে ২-০ তে।

জন হাস্টিংসের বলটা কাট করতে গিয়ে ডেভিড ওয়ার্নারের হাতে ধরা পড়েছেন দিলশান। এভাবে তার পতনে শ্রীলঙ্কার শুরু। ধনঞ্জয় ডি সিলভার ৬২ রান ছাড়া আসলে বলার থাকলো কেবল ওপেনার কুসল পেরেরার ২২ রান। আর কারো রান ৭ এর ওপর নেই।

অদ্ভুত ব্যাটিং বটে। দ্বিতীয় উইকেটে ধনঞ্জয় ও পেরেরার ৩৫ রানের জুটিই সর্বোচ্চ। দ্বিতীয় ওভারে নেমে শেষ ওভার পর্যন্ত ব্যাট করলেন ধনঞ্জয়। ৯ উইকেটে ১২৮ রান করলো লঙ্কানরা। তিনটি করে উইকেট জেমস ফকনার ও অ্যাডাম জাম্পার। ২ উইকেট হাস্টিংসের।

ম্যাক্সওয়েল আগের ম্যাচে কি করেছেন তা নিশ্চয়ই সবার মনে আছে। অপরাজিত ছিলেন ১৪৫ রানে। তার সেঞ্চুরির ওপর দাঁড়িয়ে টি-টোয়েন্টি ইতিহাসে দলীয় সর্বোচ্চ ২৬৩ রানের স্কোর গড়ে অস্ট্রেলিয়া। আগের ম্যাচের ফর্ম এই ম্যাচে টেনে এনেছিলেন ম্যাক্সওয়েল। শুরু থেকে গেছেন আক্রমণে। তাতে ১৮ বলেই হয়েছে তার ফিফটি। স্ট্যান্ড ইন অধিনায়ক ওয়ার্নারের একার ছিল অস্ট্রেলিয়ার দ্রুততম টি-টোয়েন্টি ফিফটির রেকর্ড। তাতে ভাগ বসালেন ম্যাক্সওয়েল।

উদ্বোধনী জুটিতে ওয়ার্নারের (২৫) সাথেই ৯৩ রানের জুটি গড়ে বিদায় নিয়েছেন ম্যাক্সওয়েল। ২৯ বলে ৭ চার ও ৪ ছক্কায় ৬৬ রান ম্যাক্সওয়েলের। এরপর দ্রুত কয়েকটি উইকেট হারালেও ১৩ বল হাতে রেখেই জয় তুলে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া।  


মন্তব্য