kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ইতিহাস সৃষ্টিকারী সেই মেয়েদেরকে লোকাল বাসে যেতে হলো বাড়ি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৫:২৯



ইতিহাস সৃষ্টিকারী সেই মেয়েদেরকে লোকাল বাসে যেতে হলো বাড়ি

বাংলাদেশের সোনালী প্রজন্মের মেয়েরা ইতিহাস রচনা করে চাইনিজ তাইপেকে হারিয়ে। ওই ম্যাচ ৪-২ গোলে জিতে এএফসি অনুর্ধ ১৬ মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপের মূলপর্বে খেলা নিশ্চিত করে লাল-সবুজের দেশ।

আর গত সোমবার গ্রুপের শেষ ম্যাচটা আনুষ্ঠানিকতার হলেও জয় দিয়েই মিশন শেষ করেছে  তারা।

বাছাইপর্বে পাঁচ ম্যাচের প্রতিটিতেই জয় পেয়েছে কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের দল। কৃষ্ণা, মগিনি, সানজিদা, মৌসুমীরা প্রতিপক্ষের জালে বল জড়িয়েছে ২৬ বার। বাছাইপর্বে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় বাংলাদেশ দলকে পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন দিচ্ছে পাঁচ লাখ টাকা। এছাড়া আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) বাংলাদেশ দলকে বিশেষ সংবর্ধনা দেবে।

কিন্তু এই সংবর্ধনার আগেই ক্রীড়া পরিষদ আর বাফুফেকে সমালোচনার মুখে পড়তে হলো। বাংলাদেশের এই নারী দলের  ৯ জনই  ভারত সীমান্তবর্তী ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম কলসিন্দুর। নানা দিক থেকে পিছিয়ে থাকা এই গ্রামের মেয়েশিশুরা তাক লাগিয়ে দিয়েছে ফুটবল খেলে। যার প্রমাণ পুরো বাংলাদেশ দেখলো।   অথচ এই নারীদের  হতে হলো অসম্মানিত, অপমানিত, হজম করতে হলো অশ্লীল গালিগালাজ।   কার জন্য? এসবের স্বীকার বাংলাদেশের সোনালী মেয়েরা?  

ঢাকা থেকে ধোবাউড়া গামী লোকাল বাস নিলয় পরিবহণ নামের একটি লোকাল বাসে বাংলাদেশের নারী ফুটবলে ইতিহাস সৃষ্টিকারী সোনালী মেয়েদের বাড়ি ফিরতে হয়। বাসটি থেমে যাত্রী তুলছে রাস্তায়।   যাত্রা পথে বিভিন্ন স্থানে কটূক্তি আর অশ্লীল বাক্য শ্রবণ করতে হয় তাঁদের। কয়েকজন এসে প্রচণ্ড খারাপ ভাষায় কথা বলে। কয়েজকজন পাশে দাঁড়ালেও তাদেরও শুনতে হয় বাজে কথা। কিন্তু এই লক্কর ঝক্কর বাসে কেন বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বলকারী মেয়েরা? তাদেঁর সাথে বাফুফের কেউ নেই, নেই অভিভাবকরাও।

ভিডিও কৃতজ্ঞতা যমুনা টেলিভিশন

যমুনা টেলিভিশনের একটি সচিত্র সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশ করে মোস্তফা সরয়ার ফারুকী লিখেছেন, 'শেম অন ম্যানেজমেন্ট। ক্রীড়া ব্যবস্থাপনার একটা মচৎকার চিত্র দেখা যাচ্ছে এখানে। এমনতরো ক্রীড়া প্রশাসন দিয়া আমরা আগানোর স্বপ্ন দেখি? আচ্ছা এই যে এতো এতো টাকার ক্রীড়া বাজেট এটা যায় কই?'

ইতোমধ্যে বিষয়টি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড় শুরু হয়েছে।   একজন মন্তব্য করেছেন, 'এইভাবে করবে বাফুফে ফুটবলের উন্নতি?'  

 


মন্তব্য