kalerkantho


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

ফাইনালের আগে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের যতো কীর্তি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ এপ্রিল, ২০১৬ ২২:২০



ফাইনালের আগে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের যতো কীর্তি

মুখোমুখি লড়াই:
টি-টোয়েন্টিতে ইংল্যান্ডের সাথে মুখোমুখি লড়াইয়ে ৯-৪ এ এগিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। কোনো এক প্রতিপক্ষের বিপক্ষে এটাই ক্যারিবিয়ানদের সর্বোচ্চ জয় ও ইংলিশদের সর্বোচ্চ হার। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৪-০ এর পরিস্কার রেকর্ড ওয়েস্ট ইন্ডিজের। এবারের আসরের গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচেই আছে এক জয়।

আগে ব্যাটিং:
এবারের আসরের ৫ ম্যাচের প্রতিটিতে আগে ব্যাট করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। চারটি জিতেছে। একটিতে হেরেছে। ইংল্যান্ড আগে ব্যাট করে তিন ম্যাচের দুটিতে জিতেছে। দুই ম্যাচের দুটিতেই রান তাড়া করে জিতেছে। টুর্নামেন্টে প্রত্যেক ম্যাচের টস জিতেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৫ ম্যাচের ৩টিতে টস জিতেছে ইংল্যান্ড।

রান রেট:
এই বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের ওভার প্রতি রানরেট ৯.১২। ৯ এর ওপর কেবল তারাই রান করেছে। দক্ষিণ আফ্রিকা ৮.৭৮ নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭.৭৮ নিয়ে পঞ্চম। বোলিংয়ে ইংল্যান্ডের ইকোনোমি সব দলের মধ্যে খারাপ-৮.৬৮। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭.৪১ নিয়ে দ্বিতীয় সেরা। নিউজিল্যান্ড সেরা ৬.৫৯ নিয়ে।

ছক্কার মার:
ওয়েস্ট ইন্ডিজ টুর্নামেন্টে সবচেয়ে বেশি ৩৬টি ছক্কা মেরেছে। দ্বিতীয় সেরা ইংল্যান্ডের ছক্কা ৩৪টি। কেবল এই দুই দলই ত্রিশের বেশি ছক্কা মেরেছে।

বাউন্ডারিতে রান:
ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাদের মোট রানের ৬৫.৩৪ শতাংশ করেছে বাউন্ডারিতে। ইংল্যান্ড ৬২.৯৩ নিয়ে পরের জায়গায়। ৫০ এর বেশি রান করা দুই দলের আট ব্যাটসম্যান ৬০ শতাংশের বেশি রান করেছেন বাউন্ডারিতে। জনসন চার্লস, ক্রিস গেইল, মারলন স্যামুয়েলস, আন্দ্রে রাসেল, লেন্ডল সিমন্স, জ্যাসন রয়, জস বাটলার ও অ্যালেক্স হেল তারা।

স্পিনারদের ইকোনোমি:
ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্পিনারদের ইকোনোমি রেট ৫.৭৩। সব দলের মধ্যে সেরা। ইংলিশ স্পিনারদের ইকোনোমি রেট ৯.৩৬। সবচেয়ে খারাপ। অন্য কোনো দলের স্পিনাররা আটের বেশি রান দেননি। ক্যারিবিয়ান স্পিনাররা ২১.৩৬ গড়ে উইকেট নিয়েছেন। আর ইংল্যান্ডের স্পিনারদের গড় ৩১.২২।

বদ্রির কীর্তি:
এই আসরে স্যামুয়েল বদ্রির ইকোনোমি রেট ৫.৬৮। অন্তত ১২ ওভার বল করা ৩৪ বোলারের মধ্যে তৃতীয় সেরা। ৫.৭৮ রেট নিয়ে সুলিমান বেন এই তালিকায় পঞ্চম।

পাওয়ারপ্লে:
ইংল্যান্ডের রান রেট ৯.৫০, টুর্নামেন্টের সেরা। এই সময়ে তারা ৩৮টি চার ও ৭টি ছক্কা হাঁকিয়েছে। প্রতি চার বলে গড়ে একটি বাউন্ডারি মেরেছে। পাওয়ারপ্লেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের গড় ৬.৪৬। প্রতি ৫.৪ বলে এক বাউন্ডারি।

মাঝের ওভার:
মাঝের ওভারে (৬.১ থেকে ১৫ ওভার) ইংল্যান্ডের ইকোনোমি রেট ৮.৪৬। সব দলের মধ্যে বাজে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের রেট ৬.২৪। দ্বিতীয় সেরা। মাঝের ওভারে ইংল্যান্ডের দুই স্পিনার আদিল রশিদ ও মঈন আলির ইকোনোমি রেট ৮.৬৬ (২৭ ওভারে ২৩৪ রানে ৯ উইকেট)। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সুলিমান বেন ও স্যামুয়েল বদ্রির এই সময়ের ইকোনোমি ৫.২৬ (২৩ ওভারে ১২১ রানে ৭ উইকেট)। এই সময়ে বদ্রি আট ওভারে ৪৫ রানে ৫ উইকেট নিয়ে তাক লাগিয়েছেন।

শেষ ৫ ওভার:
শেষ ৫ ওভারে ইংল্যান্ডের রান তোলার গড় ১২.২৭। টুর্নামেন্টে সেরা। শেষ ৫ ওভারে জস বাটলার ৪১ বলে ৯১ রান করেছেন। মঈন ২৮ বলে ৪৭, এউইন মরগ্যান ২০ বলে ৩৬ ও জো রুট ১৮ বলে ৩৫ রান করেছেন।   


মন্তব্য