kalerkantho

সোমবার। ২৩ জানুয়ারি ২০১৭ । ১০ মাঘ ১৪২৩। ২৪ রবিউস সানি ১৪৩৮।


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

গেইলকে শুরুতেই বিদায় করে ভারতের আঘাত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩১ মার্চ, ২০১৬ ২১:৩৮



গেইলকে শুরুতেই বিদায় করে ভারতের আঘাত

বিরাট কোহলির জবাব হতে পারতেন ক্রিস গেইল। সেটাই সবাই প্রত্যাশা করেছেন।

হার না মানা অসাধারণ ৮৯ রানে ভারতকে পাহাড়ে তুলেছেন কোহলি। মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়েতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ২ উইকেটে ১৯২ রান তুলেছে ভারত। স্বাগতিকদের এই পাহাড় টপকাতে শুরু থেকে বিস্ফোরক কিছু করতে হয় ক্যারিবিয়ানদের। কিন্তু দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে বিপজ্জনক গেইল ব্যক্তিগত ৫ রানেই বোল্ড! শিকারী তরুণ জসপ্রিত বুমরাহ। প্রথম বলেই উইকেট তার। ২ ওভারে ১ উইকেটে ১৪ রান ওয়েস্ট ইন্ডিজের। জনসন চার্লস ১ ও মারলন স্যামুয়েলস ৮ রানে ব্যাট করছেন।    

ভারতের ১৯২ রানের ইনিংসে তিনটি ভাগ। প্রথমটিতে রোহিত শর্মা-আজিঙ্কা রাহানের ইনিংস দাঁড় করানো ৬২ রানের জুটি। যেখানে মুম্বাইয়ের ছেলে রোহিতের অবদান ৩১ বলের ঝড়ো ৪৩। যেটি টুর্নামেন্টে রোহিতের সর্বোচ্চ। এরপর রাহানে-বিরাট কোহলি জুটির ৬৬ রান। সেখানে কোহলির রান ৪১। রাহানের ২৩। আর শেষটা কোহলিময় ধোনি-কোহলির হার না মানা ৬৪ রানের জুটি।

 ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ভারতীয়রা রানিং বিটুইন দ্য উইকেটে ছিলেন অসাধারণ! মোট রানের ৯২ এসেছে বাউন্ডারি, ওভার বাউন্ডারি থেকে। অতিরিক্ত খাতে ৫। বাকি ৯৫ রান সিঙ্গেলস-ডাবলসে। কোহলি তার ৩৯ এবং রাহানে তার ৩২ রান নিয়েছেন দৌড়ে! তো রাহানে ও কোহলি শেষের দিকে ঝড় তোলার জায়গা করে দিয়েছেন। টুর্নামেন্টে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমে ৩৫ বলে ৪০ রান দিয়ে গেছেন রাহানে। দুটি জুটিতে তার অবদানের জন্য তাকে মনে রাখতে হবে। ১৬তম ওভারে দলের ১২৫ রানের সময় বিদায় নিয়েছেন এই ওপেনার।

কোহলিকে ১ রানে রান আউট করতে না পারাটা ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের বড় সর্বনাশের কারণ। সহজ সুযোগ ছিল। তাহলে রাহানের সাথে জুটিতে বাড়তি ৬১ রান আসে না। ৪৭ বলে ১১টি চার ও ১টি ছক্কায় অপরাজিত ৮৯ রান কোহলির। তার মানে এর ৮৮ই ভারতের জন্য বোনাস! প্রথম দুই জুটি যা গড়েছে তার ওপর দাঁড়িয়ে কোহলি ও অধিনায়ক এমএস ধোনি শেষ ২৭ বলে ৬৪ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েছেন। দলের রান তাতেই পাহাড়ে উঠেছে। এখানে ৯ বলে অপরাজিত ১৫ রান ধোনির। বাকি ৪৮ রানই কোহলির। এই সময়ে ৮টি বাউন্ডারি মেরেছেন তিনি। সাথে একটি ছক্কা।
 
এবারের বিশ্বকাপে কোহলির টানা দ্বিতীয় ফিফটিটা এসেছে ৩৩ বলে। তার মানে তিনি শেষ ৩৯ রান করেছেন মাত্র ১৪ বল খেলে! এর ৯টি আবার বাউন্ডারির মার! অস্ট্রেলিয়ার পর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলাররা বুঝেছেন, শুধু ক্রিকেটীয় শট খেলেই কোহলি কতোটা ভয়ঙ্কর হতে পারেন। পেসার-স্পিনার, কোনো কিছু দিয়ে ঠেকানো যায়নি কোহলিকে। আর তাতেই বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলার পথটা পেয়েছে ভারত।  


মন্তব্য