kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০১৭ । ৬ মাঘ ১৪২৩। ২০ রবিউস সানি ১৪৩৮।


তাসকিনকে দ্রুত ফেরাতে স্ট্রিকের প্রত্যয়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৯ মার্চ, ২০১৬ ১৯:৩০



তাসকিনকে দ্রুত ফেরাতে স্ট্রিকের প্রত্যয়

তাসকিন আহমেদ কবে নাগাদ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে পারবেন? এই প্রশ্ন অসংখ্য মানুষের। জবাব: বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিক আশা করছেন মে মাসের পর আর সমস্যা থাকবে না। কারণ, মের মাঝামাঝি সময়ে তাসকিনের বোলিং অ্যাকশন আবার পরীক্ষা করতে পাঠাবেন। আর সেই পরীক্ষায় তাসকিনের পাশ না করার কোনো কারণ দেখেন না স্ট্রিক। আইসিসি সপ্তা দেড়েক আগে অবৈধ অ্যাকশনের দায়ে নিষিদ্ধ করেছে পেসার তাসকিন ও স্পিনার আরাফাত সানিকে। সোমবার ফিরে আসার কাজ শুরু করেছেন এই্ দুই বোলার।

এপ্রিলে শুরু হবে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ। তাসকিন ও সানির লিগে খেলার কথা। আইপিএলের দল গুজরাট লায়ন্সের বোলিং কোচ হয়েছেন বলে ১ এপ্রিল স্ট্রিক চলে যাবেন। তার আগে তাসকিনের অ্যাকশন শুধরানোর প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন বিসিবি কোচদের।  

"আমাদের সময় নিয়ে চাপ নেই। তাকে পরীক্ষার জন্য তৈরি করতে এক মাস থেকে ৬ সপ্তাহ সময় লাগতে পারে। পরীক্ষার অনুরোধ পাঠানোর আগে আমাদের শতভাগ নিশ্চিত হতে হবে। " স্ট্রিক বলেছেন, "পরীক্ষায় পাশ করা আমার কাছে খুব বড় কিছু মনে হচ্ছে না। সে ডিপিএলে (ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ) খেলবে। যা বদলাতে বলেছি তা নিয়ে সাবলীল হয়ে যাবে বলে আশা করি। সবকিছু নিয়ে নিশ্চিত হওয়ার পর সে যাবে। "
স্ট্রিক বলেছেন, ডেলিভারির সময় হাত আরো দ্রুত সোজা করতে হবে তাসকিনকে। চেন্নাইয়ে পরীক্ষায় তাসকিনের স্লোয়ার বাউন্সার অবৈধ হিসেবে ধরা পড়েছে। তাতেই নিষিদ্ধ হয়েছেন বোলার। স্ট্রিকের মনে হচ্ছে, এটা ছাড়া আর কিছু শুধরানোর নেই।

"ওর সাথে প্রথম যখন কাজ শুরু করি তখনের পর অ্যাকশন তো বদলায়নি। আমাদেরও কখনো সংশয় জাগেনি। তাই আমিও বিস্মিত হয়েছিলাম। " স্ট্রিক বলেছেন, "তার সব দ্রুতগতির ডেলিভারি বৈধ সীমায় আছে। সমস্যা স্লোয়ার বাউন্সারে। ক্লান্তির কারণে তা হতে পারে। তার অ্যাকশন ঠিক করাকে আমার বড় কিছু মনে হচ্ছে না। এতে সময়ও তেমন লাগবে না। ওর ক্রিকেটে ফেরা নিয়ে আমি আত্মবিশ্বাসী। " স্ট্রিক আরো জানিয়েছেন, "তার হাত আরো দ্রুত সোজা করানোর কাজ করছি। পিঠ বাঁকা হওয়ার সময় এটা যেন শতভাগ সোজা থাকে। বৈধতার ১৫ ডিগ্রি আসলে খুবই কম। সে প্রায় ৪০টি ডেলিভারি করেছিল। যার তিনটি বাউন্সার ছিল অবৈধ। খুব দ্রুত এটা ঠিক করে নেয়া যায়। "

বিসিবি বলছে, তাসকিনকে তার স্লোয়ার বাউন্সারের কারণে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আইসিসি অবশ্য নির্দিষ্ট করে কিছু বলেনি। তারা বিজ্ঞপ্তিতে শুধু বলেছিল, তাসকিনের সব ডেলিভারি বৈধ না। পরে আইসিসির মুখপাত্র জানিয়েছিলেন, তাসকিনের ইয়র্কার, লেংথ ডেলিভারি ও বাউন্সারের পরীক্ষা হয়েছিল। তার কিছু ১৫ ডিগ্রির সীমায় ছিল। কিছু সীমা ছাড়িয়েছিল। তাসকিনের নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে আপিল করেছিল বিসিবি। কিন্তু আইসিসি পরে তাসকিনের নিষেধাজ্ঞা বহাল রাখে।


মন্তব্য