kalerkantho

সোমবার। ২৩ জানুয়ারি ২০১৭ । ১০ মাঘ ১৪২৩। ২৪ রবিউস সানি ১৪৩৮।


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

শ্রীলঙ্কাকে বিদায় করে ইংল্যান্ড সেমিফাইনালে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৬ মার্চ, ২০১৬ ২৩:৩৮



শ্রীলঙ্কাকে বিদায় করে ইংল্যান্ড সেমিফাইনালে

জিততে শেষ ১২ বলে শ্রীলঙ্কার চাই ২২ রান! নখ কামড়ানো রোমাঞ্চ! অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস ফিফটি করে আশা নিয়ে দাঁড়িয়ে। কিন্তু ১৯তম ওভারে ক্রিস জর্ডান দুটি উইকেট নিয়ে টুইস্ট এনে দিলেন। আসলে ওখানেই জিতলো ইংল্যান্ড। শানাকার (৯ বলে ১৫) ক্যাচটা অসাধারণ দক্ষতায় নিয়েছেন জো রুট। রঙ্গনা হেরাথকে বোল্ড করলেন জর্ডান। এই ওভারে দিলেন ৭ রান। ৮ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কার জিততে শেষ ওভারে ১৫ রান চাই। ম্যাথুস স্ট্রাইকে। প্রথম বল। রান নিলেন না ম্যাথুস। পরের বলে ২। পরের বলে স্কুপে ২। ৩ বলে দরকার ১১। বেন স্টোকসের ইয়র্কার। ডট! ২ বলে ১১! দুটি ছক্কা লাগবে। মারতে পারলেন না ম্যাথুস। হাল ছেড়ে দিলেন। শেষ বলটি অনিচ্ছায় ডিফেন্স করলেন। ১০ রানে ইংল্যান্ডের কাছে হেরে গেলোবারের চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিলো। লঙ্কানদের সাথে বিদায় হয়ে গেলো এই গ্রুপের দক্ষিণ আফ্রিকারও। ইংল্যান্ড উঠে গেলো সেমিফাইনালে। এই গ্রুপ থেকে আগেই শেষ চারে গেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

ম্যাচের সেরা জশ বাটলার খেলেছেন অপরাজিত ৬৬ রানের ইনিংস। আর ইংলিশরা দিল্লিতে ৪ উইকেটে করে ১৭১ রান। এরপর ১৫ রানে ৪ উইকেট হারানোর পরও ম্যাথুসের ব্যাটে জয়ের কাছে গিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। শেষে আর পারেনি। ৮ উইকেটে ১‌৬১ রানে থেমেছে। ৫৪ বলে ৩টি চার ও ৫টি ছক্কায় ৭৩ রানে অপরাজিত ম্যাথুস মাঠ ছাড়লেন আক্ষেপ নিয়ে।  

১৭২ রানের টার্গেট। নেহাত কম না। ওভার প্রতি সাড়ে আটের বেশি রান তুলতে হবে। কিন্তু প্রথম ৩ ওভারেই ১৫ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে শ্রীলঙ্কা বিদ্ধস্ত এক দল। ১৫ রানের মধ্যেই এই অবস্থা। অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসকে হাল ধরতে হয়। চামারা কাপুগেদারাকে নিয়ে ইনিংস মেরামত শুরু হলো। প্রথম ৬ ওভারে ৩৪, ১০ ওভারে ৫৯ রান লঙ্কানদের। তার মানে শেষ ১০ ওভারে ১১৩ রান তুলতে হবে। ১১র ওপর আস্কিং রান রেট। ম্যাথুসের হ্যামস্ট্রিংয়েও টান পড়লো। তবু লড়ে গেলেন। ১৩তম ওভারে লেগি আদিল রশিদ দিলেন ২১ রান। তিনটি ছক্কা মারলেন ম্যাথুস ও কাপুগেদারা। এই সময়ে শেষ হলো কাপুগেদারার ২৭ বলে ৩০ রানের ইনিংস। ভাংলো ৮০ রানের জুটি।
 
শেষ ৩০ বলে জিততে লঙ্কানদের ৬১ রান লাগে। মঈন আলীর করা ১৬তম ওভারে ম্যাথুস মারলেন ২ ছক্কা, থিসারা পেরেরা ১টি। এই ওভারে ২১ রান নিয়ে লড়াইয়ে ফিরলো শ্রীলঙ্কা। ২৪ বলে ৪০ রান হতেই পারে। কিন্তু ১০ বলে ২০ রান করা পেরেরা ফিরলে উত্তেজনা বাড়ে। ১৮ বলে ৩৪ রানের হিসেব। দাসুন শানাকার একটি ছক্কা ও চারে ইংল্যান্ড দারুণ চাপে। এরপর জর্ডান শানাকাকে ফিরিয়েছেন। শেষ রক্ষা করতে পারেননি ম্যাথুস।  

এর আগে ফিরোজ শাহ কোটলায় টস জিতে বোলিং করলো শ্রীলঙ্কা। দ্বিতীয় ওভারে অভিজ্ঞ স্পিনার রঙ্গনা হেরাথ ব্রেক থ্রুও এনে দেন। অ্যালেক্স হেলস কোনো রান না করেই এলবিডাব্লিউর শিকার। কিন্তু এরপর জো রুট ও ওপেনার জ্যাসন রয় হতাশ করে চলছিলেন লঙ্কানদের। বেশ লম্বা সময় ব্যাট করলেন রানের গতি ধরে রেখে। ৮.৩ ওভারে দলকে ৬১ রান দিয়ে বিচ্ছিন্ন হলেন তারা। ২৪ বলে ২৫ রান করে লেগ স্পিনার জেফরি ভ্যান্ডারসের বলে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন জো রুট।

৬৫ রানে এই উইকেটের পতন। রয়কে সলিড মনে হচ্ছিল। জশ বাটলার যোগ দিয়েছিলেন তার সাথে। ইনিংসটাকে দ্রুত এগিয়ে নেবার তাড়া তখন। কিন্তু এই সময়ে ভ্যান্ডারসের আবেদনে সাড়া দিলেন আম্পায়ার। এলবিডাব্লিউর সিদ্ধান্তটা মানতে পারেননি রয়। যদিও রিপ্লে বলেছে, সিদ্ধান্তটা সঠিক। ৩৯ বলে ৪২ রান করে আউট রয়। দলের রান ৮৮ তখন।

বাটলার বড় ব্যাটসম্যান। এবারের আসরে এখনো কিছু দেখানো হয়নি। অধিনায়ক এইউন মরগ্যানকে সাথী করে রানের চাকা ছোটালেন তিনি। তাতে লঙ্কান বোলাররা দিশেহারা। শেষ ৭ ওভারেই উঠে এলো ৮৩ রান। আসলে বাটলার-মরগ্যান ৭৪ রানের চতুর্থ উইকেট জুটিটাই পুড়িয়েছে প্রতিপক্ষকে। ওভার প্রতি ১১.৩৮ গড়ে রান তুলেছেন তারা। বাটলারই ঝড় তুলেছিলেন। টি-টোয়েন্টিতে নিজের চতুর্থ ফিফটি করেছেন। মাত্র ৩৭ বলে ৮টি চার ও ২টি ছক্কায় ৬৬ রানে অপরাজিত ছিলেন। মরগ্যান ১৬ বলে করেছেন ২২ রান।  


মন্তব্য