kalerkantho


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

ওয়েস্ট ইন্ডিজের টার্গেট ১২৩

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ মার্চ, ২০১৬ ২১:৪৩



ওয়েস্ট ইন্ডিজের টার্গেট ১২৩

২০ রানে ৩ উইকেট, ৪৭ রানে ৫। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে কতোটা বিপদে দক্ষিণ আফ্রিকা তা কি আর বলে দিতে হয়! শীর্ষ ৫ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে নাগপুরে তো হাবুডুবুই খাচ্ছিল প্রোটিয়ারা! ভাগ্যিস দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং লাইন আপে নিচের দিকে দুইজন অল রাউন্ডার ছিলেন। ওপেনার কুইন্টন ডি ককও এক প্রান্ত ধরে রাখতে পেরেছেন। বেশ কঠিন উইকেটে ক্যারিবিয়ানদের দারুণ বোলিং সামলেছে প্রোটিয়ারা। লড়ার মতো সংগ্রহ তারা পেয়েছে তা বলা যাচ্ছে না। ৮ উইকেটে ১২২ রান করেছে তারা। ডি কক সর্বোচ্চ ৪৭ রান করেছেন। অথচ আগের দুই ম্যাচেই দুইশোর বেশি রান করেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। এই ম্যাচ হারলে তারা প্রায় ছিটকে পড়বে বিশ্বকাপ থেকে। আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ উঠে যাবে সেমিফাইনালে।

টস জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্যাটিংয়ে পাঠালো দক্ষিণ আফ্রিকাকে। দুই হেভিওয়েটের লড়াই এটি। কিন্তু শুরু থেকে হামলে পড়ে ক্যারিবিয়ানরা। প্রথম ৩ ওভারেই ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় প্রোটিয়ারা। প্রথমে রান আউটের খাড়ায় পড়ে বিদায় নিলেন হাশিম আমলা। আগের দুই ম্যাচেই শুরুতে ঝড় তুলেছে প্রোটিয়ারা। পাওয়ার প্লের ৬ ওভার থাকে তাদের ব্যাটসম্যানদের মূল টার্গেট। কিন্তু অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস (৯) ক্যাচ দিলেন আন্দ্রে রাসেলের বলে। দীর্ঘদিন পর বল হাতে নিলেন অফ স্পিনার গেইল। এবং তার ওভারের শেষ বলে ক্যাচ তুলে বিদায় রাইলে রুসোর (০)। জেপি ডুমিনির ইনজুরির কারণে এই ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন রুসো। কিন্তু দলকে চাপে ফেলে গেলেন তিনি। ৩ ওভার। ২০ রান। ৩ উইকেট।

ওপেনার কুইন্টন ডি কক এক প্রান্তে দাঁড়িয়ে তাদের ইনিংসে এই মড়ক লাগা দেখছিলেন। দলের সেরা ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্স এলে ভরসা পেলেন কক। ইনিংস মেরামতের কাজে লাগলেন দুজন। অষ্টম ওভারে ষষ্ঠ বোলার হিসেবে বল পেলেন পেসার ডোয়াইন ব্রাভো। এবং বিরাট কাজ করলেন। দলের চরম বিপদের দিনে ১০ রান করেই বোল্ড ডি ভিলিয়ার্স। ৪৬ ও ৪৭ রানে দুই উইকেট হারিয়ে আরো বিপদে পড়লো দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রথম ওভার করার পর আর বল পাননি গেইল। নবম ওভারে পেলেন। দেখা গেলো ডেভিড মিলার (১) বলের লাইন মিস করে বোল্ড! গেইল ভাবুক ও নিরাবেগ চেহারা নিয়ে গালে হাত দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন! ক্যারিবিয়ানরা কতোভাবে যে বিনোদন করতে জানে!

ডি কক এরপর পেলেন ডেভিড উইজেকে। এই অল রাউন্ডারকে সঙ্গী করে লড়াইয়ে নামলেন। খুব সাবধানে খেলতে হয়েছে। তাতে খুব দ্রুত ছোটেনি রানের চাকা। অন্য প্রান্তে উইজেও ছিলেন সরব। ৭.২ ওভার ব্যাট করেছেন তারা। ষষ্ঠ উইকেটে এসেছে ৫০ রান। রাসেলের বলে বোল্ড হয়েছেন কক। ৪৬ বলে ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় করেছেন ৪৭ রান। শেষ ৫ ওভারেও তেমন রান তুলতে পারেনি প্রোটিয়ারা। এসেছে ৩১ রান। এই সময়ে ৩ উইকেট হারিয়েছে তারা। উইজে ২৬ বলে ২৮ রান করেছেন। ক্রিস মরিস ১৬ রানে ছিলেন অপরাজিত। ২টি করে উইকেট নিয়েছেন রাসেল, গেইল ও ব্রাভো।


মন্তব্য