kalerkantho


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

আফ্রিদির জন্য অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে চায় পাকিস্তান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৪ মার্চ, ২০১৬ ২২:১২



আফ্রিদির জন্য অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে চায় পাকিস্তান

এটা হয়ে যেতে পারে শহীদ আফ্রিদির শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ। খেলছেন তো শেষ বিশ্বকাপ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে শুক্রবারের ম্যাচটা এই আসরে পাকিস্তানের শেষও হয়ে যেতে পারে। তবে আশা ধরে রাখতে লড়বে আফ্রিদির দল। আসলে আফ্রিদিকে বিশ্বকাপ দেয়ার জন্য লড়াইয়ে নামবে তারা। যা করতে এই ম্যাচে জয় খুব জরুরী। মোহালিতে শুক্রবার জিততে পারলে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে পাকিস্তানের খেলার আশা সামান্য বেঁচে থাকবে। ম্যাচটি শুরু হবে বিকেল ৩টা ৩০ মিনিটে।

বাংলাদেশ টানা তিন হারে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছে। তবে শাসরুদ্ধকর শেষ ম্যাচে ভারতকে নেট রান রেটে এগিয়ে থেকে জিততে দেয়নি। শেষ ওভারের নাটকীয় ম্যাচে ভারতের জয় ১ রানে। নিউজিল্যান্ড এই গ্রুপ থেকে আগেই সেমিফাইনালে চলে গেছে। অস্ট্রেলিয়া যদি পাকিস্তানকে হারায় তাহলে ভারতের সাথে তাদের পরের ম্যাচটা আক্ষরিক অর্থেই কোয়ার্টার ফাইনাল হয়ে যাবে। আর পাকিস্তান নেবে বিদায়। কিন্তু পাকিস্তান এই ম্যাচে জিতলে তাদের প্রার্থনায় বসতে হবে শেষ ম্যাচ নিয়ে। ওই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া ভারতকে হারালে এবং তখনো নেট রান রেটে পাকিস্তান এগিয়ে থাকলে তারাই যাবে সেমিফাইনালে। এখন অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের চেয়ে নেট রান রেটে অনেক এগিয়ে পাকিস্তান।

গ্রুপের ৩ ম্যাচের দুটিতে হেরেছে পাকিস্তান। আর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষের ম্যাচের আগে পাকিস্তানের সিনিয়র ব্যাটসম্যান শোয়েব মালিক বললেন, "এটা আফ্রিদির শেষ বিশ্বকাপ। ইনজামাম ভাই, ওয়াকার ভাই, ওয়াসিম ভাইকে যেমন শ্রদ্ধা করি তাকেও তেমন শ্রদ্ধা করি আমি। তিনি আমার কাছে বড় ভাইয়ের মতো। তার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি। পাকিস্তান এই বিশ্বকাপটা তার জন্য জিতলে আমার চেয়ে বেশি খুশি কেউ হবে না। " টেস্ট ও ওয়ানডে খেলা আগেই ছেড়েছেন আফ্রিদি। শুধু খেলেন ২০ ওভারের ক্রিকেট। ৯৭ ম্যাচে ১,৩৯১ রান করেছেন। উইকেট নিয়েছেন ৯৭টি। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ প্রসঙ্গে শোয়েব বলেছেন, "আমাদের প্রধান লক্ষ্য হলো কালকে জেতা। শেষ ম্যাচে সিঙ্গেল নিতে সমস্যা হয়েছে। আমরা আমাদের স্কিলে উন্নতি করার চেষ্টা করছি। "

অস্ট্রেলিয়ার ওপেনার উসমান খাজা এই প্রথমবারের মতো তার জন্মভূমি বিপক্ষে খেলবেন। খাজা রান পাচ্ছেন। তবে দলের নিয়মিত পারফর্মারদের রান না পাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তা আছে অস্ট্রেলিয়ার। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তাদের চেয়ে পাকিস্তান ৩-২ এ এগিয়ে আছে। অস্ট্রেলিয়ার দুটি জয়ই এসেছিল ২০১০ এর আসরে।


মন্তব্য