kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ জানুয়ারি ২০১৭ । ১১ মাঘ ১৪২৩। ২৫ রবিউস সানি ১৪৩৮।


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আফ্রিদিদের শেষ লড়াই

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ মার্চ, ২০১৬ ১৭:৩১



অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আফ্রিদিদের শেষ লড়াই

তিন ম্যাচের দুটিতে হেরেছে তারা। তাতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে পাকিস্তানের খেলার সম্ভাবনা অনেক কমে গেছে।

অস্ট্রেলিয়ারও সেমিফাইনালে খেলতে হলে জিততে হবে। কারণ, এই গ্রুপ থেকে নিউজিল্যান্ড এর মধ্যে সেমিফাইনালে উঠে গেছে। আর একটি দল উঠবে শেষ চারে। চন্ডিগড়ে ২৫ মার্চ (শুক্রবার) বিকেল ৩টা ৩০ মিনিটে মুখোমুখি হচ্ছে পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়া।

শুধু বাংলাদেশের বিপক্ষে জিতেছে পাকিস্তান। বুধবার বাংলাদেশ যদি ভারতকে হারায় তাহলে পাকিস্তানের জন্য একটু ভালো হয়। কিন্তু তারপরও অনেক কাজ বাকি থাকে তাদের। অস্ট্রেলিয়াকে সহজেই হারাতে হবে তাদের। শুধু তাই না, ভারত যেন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জিততে না পারে সেই প্রার্থনাও করতে হবে। নেট রান রেটের ব্যাপারটি তাহলেই কাজে আসতে পারে পাকিস্তানের। গানিতিক হিসেবটা জটিল। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারা মানে টুর্নামেন্টে আর নেই তারা।

নিউজিল্যান্ডের কাছে প্রথম ম্যাচে হেরেছে অস্ট্রেলিয়া। এরপর বাংলাদেশের বিপক্ষে জিতে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংও স্বস্তিতে নেই। বাংলাদেশের বিপক্ষে শেষ দিকে হামলার মুখে পড়েছিল তারা। টাইগার বোলাররা আরেকটু চাপ বাড়াতে পারলে সর্বনাশ হতে পারতো তাদের। অথচ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপাটা খুব করে চাইছে অস্ট্রেলিয়া। অ্যারন ফিঞ্চকে একাদশে আনার দাবি জোরালো হয়েছে। উসমান খাজা ছাড়া এখনো অস্ট্রেলিয়ার কারো ব্যাটিং মুগ্ধতা ছড়ায়নি। লেগ স্পিনার অ্যাডাম জাম্পা বাংলাদেশের বিপক্ষে সফল। পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানরা স্পিনে ধুঁকছে। তাদের বিপক্ষে বাঁ হাতি স্পিনার অ্যাশটন অ্যাগারকে আনার কথাও ভাবতে পারে অস্ট্রেলিয়া।

পাকিস্তানের ব্যাটিং কেবল বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেই চোখে পড়ার মতো ছিল। ভারতের স্পিনারদের সামলাতে পারেনি। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শারজিল খান প্রতিরোধ তৈরি করেছিলেন। কিন্তু তারপর আর পারেনি পাকিস্তান। অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদির ব্যাটিংয়ে প্রমোশন প্রথম ম্যাচে ঠিক ছিল। পরের দুই ম্যাচে বুমেরাং হয়ে গেছে। তাদের সেরা দুই ব্যাটসম্যান শোয়েব মালিক ও সরফরাজ আহমেদকে শেষ ম্যাচে ৬ ও ৭ নম্বরে নামতে হয়েছিল। আর বোলিংয়ে শেষ ম্যাচে মোহাম্মদ সামি ছাড়া কেউ তেমন প্রভাব ফেলতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত পাকিস্তান সেমিফাইনালে উঠতে ব্যর্থ হলে এটা হতে পারে আফ্রিদির শেষ ম্যাচ। আনপ্রেডিক্টেবল পাকিস্তান কি ঘুরে দাঁড়িয়ে অস্ট্রেলিয়াকে গুড়িয়ে দিতে পারবে? নাকি এটা হবে সাবেক এই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের আসর থেকে বিদায়ের ম্যাচ?


মন্তব্য