kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০১৭ । ৬ মাঘ ১৪২৩। ২০ রবিউস সানি ১৪৩৮।


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

অস্ট্রেলিয়ার সামনে ভাঙ্গা মনের টাইগাররা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ মার্চ, ২০১৬ ২২:২৫



অস্ট্রেলিয়ার সামনে ভাঙ্গা মনের টাইগাররা

ক্রিকেট মনস্তাত্বিক খেলা। আর বিশ্বকাপ সবচেয়ে বড় মঞ্চ। সেই মঞ্চে কারো মনোবলে বড় ধাক্কা লাগে, তাহলে? বাংলাদেশ ভেঙে পড়েনি। কিন্তু বেঙ্গালুরুতে মাশরাফি বিন মর্তুজার অশ্রুসজল সংবাদ সম্মেলন একটি কথা বলে গেল। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সোমবারের ম্যাচটা বাংলাদেশের ইতিহাসের অন্যতম কঠিন ম্যাচই হবে। সেটা অবৈধ অ্যাকশনের দায়ে তাসকিন আহমেদ ও আরাফাত সানির ওপর আইসিসির নিষেধাজ্ঞার খড়্গ নেমে এসেছে বলেই শুধু না। আসলে এই নিষেধাজ্ঞা টাইগাররা মনস্তাত্বিক দিক দিয়ে এক ধরনের ক্রাইসিসে পড়ে গেছে। তবে একদিক দিয়ে এটা ক্রিকেট বিশ্বকে দেখিয়ে দেয়ারও ম্যাচ বটে। ভয়াবহ পরিস্থিতিতেও বাংলাদেশের মাথা উচু করে লড়াই করার খেলা। বেঙ্গালুরুর এম চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে খেলাটা শুরু হবে রাত আটটায়।

অথচ এমন হবার কথা ছিল না। প্রবল পরাক্রমে এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠে যাওয়া দল মাশরাফির বাংলাদেশ। যেখানে তারা হারিয়েছে শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানের মতো সাবেক দুই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নকে। প্রথম পর্বও পেরিয়েছে চমৎকারভাবে। এর মাঝে তাসকিন ও সানির অ্যাকশন নিয়ে সন্দেহ। শনিবার তো নিষিদ্ধ হয়ে গেলেন দুজনেই। নতুন বলের বোলার তাসকিন। বিশেষজ্ঞ স্পিনার সানি। পাকিস্তানের বিপক্ষে হারা প্রথম ম্যাচে খেলেছিলেন দুজনেই। কিন্তু তাদের খেলার অধিকার কেড়ে নিয়েছে আইসিসি। তাতে দলের শক্তি কমলো। বদলী খেলোয়াড়রা রবিবার দলের সাথে যোগ দিয়েছেন। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাদের কাউকে বিশ্বকাপে খেলিয়ে দেয়া প্রায় অবাস্তব চিন্তা। মাশরাফিকে তাই বলতে হয়েছে, ২০ শতাংশ ফিট থাকলেও কাটার বিশেষজ্ঞ মুস্তাফিজুর রহমান খেলবেন। ইনজুরির কারণে প্রথম থেকে সুপার টেনের প্রথম ম্যাচের কোনোটিতে খেলা হয়নি যার। একাদশের আরেকজন খেলোয়াড় পূরণ করতে নাসির হোসেন ও আবু হায়দার রনি থাকেন। মুস্তাফিজ খেললে নাসির স্পিনের কথা মাথায় রেখে হয়তো একাদশে ঢুকে পড়বেন।

এই ম্যাচে হারলে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে বাংলাদেশের ওঠার সম্ভাবনা পুরো শেষ হয়ে যাবে না। কিন্তু পথটা কাটায় কাটায় ভরে যাবে। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টির ৩ দেখার কোনোটিতে জেতার রেকর্ড নেই টাইগারদের। আর এই ম্যাচে নামছে প্রায় ভাঙা মন নিয়ে। এই অবস্থায় মাশরাফি বলছেন, পুরো স্পিরিট নিয়েই দল মাঠে নামবে। আর দেশের মানুষের থেকে অনেক দূরে থাকলেও সবার সমর্থন চেয়েছেন অধিনায়ক। কঠিন পরিস্থিতিতে কেমন করবে টাইগাররা?



শ্রীলঙ্কা-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচটা হয়েছে বেঙ্গালুরুতে। সেখানে প্রথম ইনিংসে দুই স্পিনার স্যামুয়েল বদ্রি ও সুলিমান বেন দারুণ করেছেন। এই মাঠে রান ওঠে। তবে স্পিনও ধরে। লঙ্কানরা যদিও ১২২ রান করেছে। এদিকে, অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ জানেন, এই ম্যাচে ঝামেলায় আছে প্রতিপক্ষ। তারপরও বাংলাদেশের জন্য সমীহ তার কণ্ঠে, "তাদের লাইন আপে এখনো ভালো মানের বোলার আছে (তাসকিন-সানি নিষিদ্ধ হওয়ার পরও)। আমরা কোনো দলকে হালকাভাবে নেই না। বাংলাদেশ অনেক উন্নতি করা দল বলেই আমাদের কাজটা কঠিন হবে। তাদের বেশ কজন ম্যাচ উইনার আছে। তাদের হারাতে হলে সেরা খেলাটাই খেলতে হবে আমাদের। চন্দিকা হাতুরাসিংহের কাছে অনেক কিছু শিখেছে তারা। ওরা আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। " প্রথম ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে বসায় এই ম্যাচ জিতে অস্ট্রেলিয়াকে ফিরতেই হবে। তাই আরো মরীয়া হয়ে মাঠে নামবে তারা।

বাংলাদেশের কোচ হাতুরুসিংহে অস্ট্রেলিয়ায় ছিলেন বছর চারেক। সেখানকার ইমিগ্রান্ট। নিউ সাউথ ওয়েলসের কোচ ছিলেন। কোচ ছিলেন সিডনি থান্ডার্সেরও। অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়দের সম্পর্কে তার জানাশোনাটা বেশি। সেটাই কাজে লাগাতে চাইবে বাংলাদেশ। মাশরাফি যেমন বললেন, "হাতুরু অস্ট্রেলিয়ান খেলোয়াড়দের সম্পর্কে অনেক জানেন। তার কাছ থেকে প্রচুর টিপস নিচ্ছি আমরা। আমাদের নিজস্ব পরিকল্পনা আছে। সেটা কাজে লাগাতে হবে। জানি, অস্ট্রেলিয়া যে কোনো দলকে ধ্বংস করে দিতে জানে। "


মন্তব্য