kalerkantho

25th march banner

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

ভারতকে ১১৯ রানের টার্গেট দিলো পাকিস্তান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ মার্চ, ২০১৬ ২২:৩২



ভারতকে ১১৯ রানের টার্গেট দিলো পাকিস্তান

ধারাভাষ্যে ওয়াসিম আকরাম বলছিলেন, লড়ার জন্য পাকিস্তানের অন্তত ১২০ রান দরকার। কিন্তু ইডেন গার্ডেন্সের পিচের অবস্থা দেখে নিজের কথাতেই ভরসা পাচ্ছিলেন না পাকিস্তানের কিংবদন্তি পেসার! উইকেট অদ্ভুত আচরণ করছিল। অনুমান করা যাচ্ছিল না টার্ন আর বাউন্স। পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানরা মাথা খুড়ে মরছিলেন রান করার জন্য। শেষ পর্যন্ত ৫ উইকেটে ১১৮ রান তুলেছে পাকিস্তান। ভারত-পাকিস্তান টি-টোয়েন্টি মহারণে খুব বেশি রান কি? ওভার প্রতি রান ৬.৫৫। বৃষ্টির কারণে এক ঘণ্টা দেরিতে খেলা শুরু হয়েছে। ২ ওভার করে কাটা পড়েছে।

কিছু ব্যাপার দেখুন। ১৮ ওভারের ম্যাচ বলে পাওয়ার প্লে ৫ ওভারের। এই ৫ ওভারে মাত্র ২৪ রান পেলো পাকিস্তান। স্পিনারদের বলের লম্বা টার্ন ও হঠাৎ লাফিয়ে ওঠা চমকে দিচ্ছিল ব্যাটসম্যানদের। বল ব্যাটে আনতে রীতিমতো লড়তে হচ্ছিল। প্রথম ৯ ওভারের মধ্যে দুই ওভারে সর্বোচ্চ ৭ করে রান হয়েছে। ১২তম ওভারে প্রথমবারের মতো দশের বেশি রান পেয়েছে পাকিস্তান। ১০ ওভারে ৫১ রান ছিল তাদের। যাতে চারের মার ছিল মাত্র ৬টি। ম্যাচের প্রথম ছক্কা হয়েছে ১৪তম ওভারে! সব মিলিয়ে পাকিস্তান চার মেরেছে ১১টি, ছক্কা মাত্র ২টি। ১৪ ও ১৫ ওভারে যথাক্রমে ১৫ ও ১৩ রান এসেছে। মাত্র তিন ওভারে দশের বেশি রান হয়েছে। শেষ ৩ ওভারে ২৩ রান পাকিস্তানের।

ইনিংসের মাঝে অবশ্য নিজেদের রানকে অনেক বড় করে দেখলেন পাকিস্তানের ব্যাটসম্যান শোয়েব মালিক। বললেন, আবহাওয়ার কারণে হয়তো এমনটা হয়েছে। তবে তারা যে রান করেছেন তা টপকে যাওয়া সহজ হবেনা বলেও আশা তার।

পাকিস্তানের দুই ওপেনার আহমেদ শেহজাদ ও শারজিল খান ব্যাট করেছেন ৭.৪ ওভার। রান এসেছে ৩৮। আউটের ধরণগুলোতে বল বুঝতে না পারার ব্যর্থতা স্পষ্ট। শারজিল পুল করতে গিয়ে টাইমিং করতে পারেননি। সুরেশ রাইনার বলে হার্দিক পান্ডিয়ার হাতে ধরা পড়েছেন। শারজিল করেছেন ২৪ বলে ১৭ রান।

বাংলাদেশের বিপক্ষে ১৯ বলে ৪৯ রান করার আত্মবিশ্বাসে শহীদ আফ্রিদি তিন নম্বরেই নেমে পড়লেন! কিন্তু তিনিও বল বুঝে উঠতে পারছিলেন না। তার আগে অবশ্য শেহজাদ লেগ সাউডে খেলতে গিয়ে অফ সাইডে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন। ২৮ বলে ২৫ রান তার। আফ্রিদি পান্ডিয়ার অফ স্টাম্পের বাইরের বলকে টেনে তুলে মারতে গিয়েছিলেন। ব্যাটের সাথে বলের সমন্বয় করতে পারেননি। মিড উইকেটে ক্যাচ দিয়ে ফেরার সময় ১৪ বলে ৮ রান তার।

ওভার চলে যাচ্ছে, রান আসছে না। এই অবস্থায় শোয়েব মালিক ও উমর আকমল তেড়েফুড়ে খেলার চেষ্টা করেছেন। ৪ ওভারে ৪১ রানের জুটি গড়েছেন তারা। পাকিস্তানের ইনিংস একটু বড় দেখাচ্ছে এই দুই ব্যাটসম্যানেরই কারণে। ১৬ বলে ২৬ রান করেছেন শোয়েব। ১৬ বলেই উমর করেছেন ২২ রান। রবিচন্দ্রন অশ্বিন ৩ ওভারে ১২ রান দিয়েছেন। ৪ ওভারে ২০ রান করে দিয়েছেন আশিস নেহরা ও রবিন্দ্র জাদেজা।

 


মন্তব্য