kalerkantho


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

অস্ট্রেলিয়াকে চাপে রেখেছে নিউজিল্যান্ড

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ মার্চ, ২০১৬ ১৮:০৪



অস্ট্রেলিয়াকে চাপে রেখেছে নিউজিল্যান্ড

শুরুতেই ঝড় তুলেও নিউজিল্যান্ড শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ১৪২ রান। অস্ট্রেলিয়ার শক্তি সামর্থ্য বিবেচনা করলে খুব বড় রান না। কিন্তু নিউজিল্যান্ড খুব স্বস্তিতে এগিয়ে যেতে দিচ্ছে না তাদের। চাপের ভেতরই আছে এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা অস্ট্রেলিযা। ধর্মশালায় ১১ ওভার শেষে ৪ উইকেটে ৬৮ রান তাদের। জিততে হলে ৫৪ বলে তাদের করতে হবে আরো ৭৫ রান। গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ৪ ও মিচেল মার্শ ১ রানে ব্যাট করছেন।

১৪৩ রানের টার্গেটে ৪৪ রান পর্যন্ত নিরাপদেই গেছে অস্ট্রেলিয়া। ষষ্ঠ ওভারে পেসার মিচেল ম্যাকক্লেনাঘান প্রথম আঘাত হানেন। ক্যাচ তুলে ফিরে যান শেন ওয়াটসন (১৩)। পরের ওভারে বাঁ হাতি স্পিনার মিচেল স্যান্টনার তুলে নেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের (৬) উইকেট। মারতে গিয়ে বল মিস করে স্টাম্পিংয়ের শিকার হয়েছেন স্মিথ। হঠাৎই থমকে যায় অস্ট্রেলিয়া। টানা আঘাত হানে কিউইরা। ওপেনার উসমান খাজা (৩৮) রান আউট হলে বিপদ বাড়ে। ৪ নম্বরে ব্যাট করতে নামা ডেভিড ওয়ার্নার (৬) স্যান্টনারের কারণে দ্রুত ফিরলে বিপদে পড়ে অস্ট্রেলিয়া। ৬৬ রানে ৪ উইকেট হারানো দল হয়ে যায় তারা।


রীতিমতো ঝড়ই তুলেছিল নিউজিল্যান্ড। কিন্তু প্রতিপক্ষের নাম অস্ট্রেলিয়া। যাদের সাথে আগের ৫ টি-টোয়েন্টি দেখায় কিউইদের জয় মাত্র একটিতে। শুরুর ধাক্কা তাই সামলে উঠে পাল্টা আঘাত হানে অস্ট্রেলিয়া। এরপর ধরে রাখে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ। ধর্মশালায় টস জিতে আগে ব্যাট করা নিউজিল্যান্ড তাই ৮ উইকেটে ১৪২ রান করতে পেরেছে। এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেছে অস্ট্রেলিয়া। উড়তে থাকা ভারতকে হারানোর পর নিউজিল্যান্ড খেলছে এই ম্যাচ।

পেসার ন্যাথান কল্টার-নাইলকে ম্যাচের প্রথম ওভারে পরপর দুই বলে দুটি বাউন্ডারি মারলেন মার্টিন গাপ্টিল। নিউজিল্যান্ডের শুরু থেকে মেরে খেলার চরিত্র তাতে স্পষ্ট। তৃতীয় ওভারে এলেন বাঁ হাতি স্পিনার অ্যাশটন অ্যাগার। তার প্রথম দুই বলে মিড উইকেটের ওপর দিয়ে ছক্কা হাঁকালেন গাপ্টিল। ওভারের শেষ বলে আরো একটি ছক্কা। এই ওভারে ১৮ রান নিয়ে গাপ্টিল বোঝালেন স্পিনারদেরও ক্ষমা করা হবে না।

অ্যাগার পরে আর বল পাননি। লেগ স্পিনার অ্যাডাম জাম্পাও মাত্র ১ ওভার বল করতে পারলেন। অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনও মেরে খেলে এগিয়ে যাচ্ছিলেন। অষ্টম ওভারের প্রথম বলে প্রথম সাফল্য পায় অস্ট্রেলিয়া। মিডিয়াম পেসার জেমস ফকনার তুলে নেন বিপজ্জনক গাপ্টিলকে (৩৯)। ৬১ রানে প্রথম উইকেটের পতন হয়। এরপর দুই ওভারে দুই উইকেট নেন অফ স্পিনার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। উইলিয়ামসনকে (২৪) তুলে নেওয়ার পর কোরি অ্যান্ডারসনকেও (৩) শিকার বানিয়েছেন তিনি। ১৫ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে নিউজিল্যান্ড। এবং প্রত্যেক ব্যাটসম্যানই তুলে মারতে গিয়ে ফিল্ডারের হাতে ধরা পড়েছেন।

এরপর আর জুটি হয়নি কিউইদের। তাদের চাপে রেখেছেন অস্ট্রেলিয়ান বোলাররা। কলিন মুনরো ২৩ রান করেছিলেন। কিন্তু চাপের মুখে আগ্রাসী হতে পারেননি। রস টেলরেরও (১০) একই অবস্থা। উইকেট কিছুটা স্লো। তারাও ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন। উজ্জ্বল শুরুর পর উইকেট পতনের মধ্যে নিউজিল্যান্ডের রান রেটও কমেছে। সেই সাথে কমেছে বড় সংগ্রহ পাওয়ার সম্ভাবনা। কিউইদের নিচের দিকেও ঝড় তোলা ব্যাটসম্যান আছে। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার নিয়ন্ত্রিত বোলিং তাদের অনেকটাই আটকে রেখেছে। শেষের দিকে বলার থাকল কেবল গ্র্যান্ট ইলিয়টের ২০ বলে ২৭। অস্ট্রেলিয়ার মিডিয়াম পেসাররা দারুণ বল করেছেন। শেন ওয়াটসন ৪ ওভারে ২২ রানে ১ উইকেট নিয়েছেন। ৪ ওভারে ২৬ রান দিয়ে ১ উইকেট শিকার মিচেল মার্শের। ৩ ওভারে ১৮ রানে ২ উইকেট ফকনারের। স্পিনার ম্যাক্সওয়েলও ৩ ওভারে ১৮ রান দিয়েছেন। নিয়েচেন ১ উইকেট। নিউজিল্যান্ডের বোলাররা কি পারবেন নাগপুর কাণ্ড ধর্মশালায় ঘটাতে? নিজেদের প্রথম ম্যাচে ওখানে তো ১২৬ রান করেও ভারতকে ৪৭ রানের হার উপহার দিয়েছিল কিউইরা!


মন্তব্য