kalerkantho


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

শেহজাদকে ফিরিয়ে সাব্বিরের ব্রেক থ্রু

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ মার্চ, ২০১৬ ১৬:৪৭



শেহজাদকে ফিরিয়ে সাব্বিরের ব্রেক থ্রু

গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ঢাকায় বাংলাদেশের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করেছিলেন আহমেদ শেহজাদ। অপরাজিত ছিলেন ১১১ রানে।

এশিয়া কাপ মিস করা এই ওপেনার বিশ্বকাপে খেলছেন। ইডেন গার্ডেন্সে বাংলাদেশের সামনে হুমকি হয়ে উঠেছিলেন। কিন্তু লেগ স্পিনার সাব্বির রহমান আরাধ্য ব্রেক থ্রু এনে দিয়েছেন টাইগারদের। ৩৯ বলে ৫২ রান করে সাব্বিরের শিকার হয়ে ফিরেছেন শেহজাদ। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টেনে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ খেলছে বাংলাদেশ। ১২ ওভারে ২ উইকেটে ১২১ রান পাকিস্তানের। মোহাম্মদ হাফিজ ৪৯ রানের ব্যাট করছেন। অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি যোগ দিয়েছেন তার সাথে।

পাকিস্তানের ওপেনিং জুটি ভঙ্গুর।

কিন্তু দ্বিতীয় ওভারে আল-আমিন হোসেনকে দুটি ছক্কা মেরে চমকে দিয়েছিলেন ওপেনার শারজিল খান। ওই ওভারে খরচ হয় ১৮ রান। এই বিশ্বকাপে স্পিন একটা ফ্যাক্টর হবেই। বাঁ হাতি স্পিনার আরাফাত সানি প্রথম ওভারেই সেটা বোঝালেন। বোল্ড হয়ে ফিরেছেন শারজিল (১৮)। ২৬ রানে পাকিস্তান হারায় প্রথম উইকেট। সানি এই ম্যাচে খেলছেন পেসার আবু হায়দার রনির জায়গায়।

মোহাম্মদ হাফিজ এসেই আক্রমণ করেছেন। আহমেদ শেহজাদ এশিয়া কাপে না থাকলেও সরাসরি বিশ্বকাপে ফিরেছেন। এই দুজন চমৎকার একটি জুটি গড়তে শুরু করেন। পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে পাকিস্তান ১ উইকেটে ৫৫ রান তুলেছে। আইপিএলে ইডেন গার্ডেন্স সাকবি আল হাসানের ঘরের মাঠ। কিন্তু প্রথম ওভারে তাকেও দিতে হয়েছে ১১ রান। মাশরাফি নিজেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারছিলেন না এই জুটিকে। ১১.২ ওভারে এই জুটি গড়ে ৯৫ রান। ক্যারিয়ারের পঞ্চম ফিফটি করার পর শেহজাদ সাব্বিরের বলে মাহমুদ উল্লার হাতে ধরা পড়ে ফিরেছেন।  

সাম্প্রতিক রেকর্ডে পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে মাশরাফির টাইগার দল। গত বছর বিশ্বকাপের পর সীমিত ওভারের ক্রিকেটে এই দুই দল ৫বার মুখোমুখি হয়েছে। প্রত্যেকবারই জিতেছে বাংলাদেশ। ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে পাকিস্তানকে হোয়াইটওয়াশ করেছিল। দুটি টি-টোয়েন্টিও জিতেছে। এর একটি এই মাসে এশিয়া কাপে। ওই ম্যাচে হারিয়ে পাকিস্তানকে বিদায় করে এশিয়া কাপের ফাইনালে খেলেছিল বাংলাদেশ। এই পাকিস্তান দল এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়েছিল। কলকাতায় প্রস্তুতি ম্যাচেও লঙ্কানদের হারিয়েছে।

বাংলাদেশ দল: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, সাকিব আল হাসান, মাহমুদ উল্লাহ, মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিথুন, মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), আরাফাত সানি, তাসকিন আহমেদ, আল-আমিন হোসেন।


মন্তব্য