kalerkantho


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

নিউজিল্যান্ডের স্পিনে ভারত বধ!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ মার্চ, ২০১৬ ২৩:২৬



নিউজিল্যান্ডের স্পিনে ভারত বধ!

ম্যাচ উইনিং পেসার টিম সাউদি ও ট্রেন্ট বোল্ট নেই একাদশে। আছেন তিন স্পিনার! রাতের ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিং নিয়ে নিলো নিউজিল্যান্ড! ভারতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টেনের ম্যাচে এই কাণ্ড।

সবাই মুখ চেপে হাসলো। এরপর কিউইরা হাচড়ে পাচড়ে ৭ উইকেটে করলো ১২৬ রান। ভারতীয়রা সহজ এক জয় দেখতে শুরু করেছে তখন! কিন্তু এমন ম্যাচেই শেষ হাসি নিউজিল্যান্ডের! স্পিনে যে তারা বধ করলো ভারতকে!

খেলাটা ক্রিকেট। আরো নির্দিষ্ট করে বললে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট। আর নিউজিল্যান্ডকে এই সংস্করণের ক্রিকেটে হারানোর রেকর্ড নেই ভারতের। ভারত ব্যাটিংয়ে নামার কিছুক্ষণের মধ্যে নাগপুরের ৪৫ হাজার দর্শকের হাসি মিলিয়ে যেতে থাকলো। একের পর এক আঘাত হানতে থাকলেন কিউই স্পিনাররা। স্পিন খেলায় যারা বিশ্বখ্যাত, সেই ভারতীয় ব্যাটিং তাসের ঘরের মতো ভেঙ্গে পড়লো! ৪৩ রানে ৭ উইকেট হারানোর পর এমএস ধোনিকে ম্যাচ জেতাতে অতি মানবীয় কিছু করতে হতো। কিন্তু তা আর করা হয়নি তার।

৪৭ রানে হেরে ঘরের মাঠে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরু করলো ফেভারিট ভারত। ১৮.১ ওভারে অল আউট তারা ৭৯ রানে।

শিকারের জন্য ফাঁদা স্লো উইকেটে ভারত নিজেই শিকার এদিন! একদিনে অফ স্পিনার ন্যাথান ম্যাককালাম, অন্য প্রান্তে বাঁ হাতি স্পিনার মিচেল স্যান্টনার। ৩ ওভারের মধ্যে ৩ উইকেট নেই ভারতের। ১২ রানে এই অবস্থা। ইনিংসের পঞ্চম বলে ম্যাককালাম প্রথম উইকেট নিলেন। এরপর জোড়া শিকার স্যান্টনারের। যুবরাজ সিং ফিরতি ক্যাচ দিয়েছেন ম্যাককালামকে। ধাওয়ান, রোহিত, রায়না ও যুবরাজের রানের যোগফল ১১!
   
উজান বেয়ে ২৩ রান করে বিরাট কোহলি এক ভারতীয়র বংশোদ্ভুত স্পিনারের শিকার! লুধিয়ানায় জন্ম নেয়া কিউই লেগ স্পিনার ইশ সোধি ভারতের কবরটা গভীর করার কাজ করেছেন। স্যান্টনারের যাদু তখনো বাকি। সোধির শুরু। এই দুজন হার্দিক পান্ডিয়া (১) ও রবিন্দ্র জাদেজাকে (০) তুলে নিলে বিষয়টা কি দাঁড়ালো! ১২ রানে ৩ উইকেট হারানো ভারতের ৭ উইকেট নেই ৪৩ রানে।

এবার দেখুন। ১১ ওভারে ৪৫ রান। ৩ উইকেট হাতে। ক্রিজে ধোনি ৭ রানে। সঙ্গী অশ্বিনের ১ রান। ভারতের ৫৪ বলে আরো ৮২ রান দরকার। কিন্তু দারুণ বোলিং চলছে তখন। টার্নও মিলছে। বিষয় দাঁড়ালো এমন- ২৪ বলে ৬১ রান দরকার ধোনিদের। ধোনি মারতে চেয়েছিলেন। কিন্তু অশ্বিন সোধির শিকার হলেন। ধোনি (৩০) ফিরলেন স্যান্টনারের বলে। ফিনিশার ধোনির অতি মানবীয় কিছু করা হলো না। টি-টোয়েন্টিতে নিজের দেশের স্পিনারদের মধ্যে সেরা ফিগার এখন ম্যান অব দ্য ম্যাচ স্যান্টনারের: ৪-০-১১-৪। সোধির সেরা বোলিং ফিগার এখানেই: ৪-০-১৮-৩। ম্যাককালামের ফিগার ৩-০-১৫-২। স্পিনারেই বধ হলো ভারত! শেষ ১১ ম্যাচের ১০টিতে জেতা ধোনির দল খেলো বিরাট ধাক্কা।

ভারতের বোলিং দুর্দান্ত হয়েছিল। কিন্তু কিউইদের মতো না! জসপ্রিত বুমরাহ ও সুরেশ রায়নার বোলিং ফিগার একই: ৪-০-১৫-০। অকেশনাল অফ স্পিনার। তবু সফল রায়না। তবে রায়নার চেয়ে দুটি ডট বল বেশি বুমরাহর। তার ডট ১৩টি। ১১টি করে ডট বল রায়না, রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও রবিন্দ্র জাদেজার। নিউজিল্যান্ডের মতো দল ছক্কা মারতে পেরেছে মোটে তিনটি। বাউন্ডারি তাদের ইনিংসে ৯টি।

অশ্বিনকে ম্যাচের প্রথম বলেই মাথার ওপর দিয়ে উড়িয়ে মেরে ছক্কা মার্টিন গাপ্টিলের। কিন্তু পরের বলেই গাপ্টিলকে এলবিডাব্লিউর সিদ্ধান্ত দিলেন আম্পায়ার কুমার ধর্মশেনা। রিপ্লেতে এই লঙ্কানের সিদ্ধান্ত ভুল প্রমাণিত। ওই ধাক্কাটা আর কাটিয়ে উঠতে পারলো কোথায় নিউজিল্যান্ড!

প্রথম বল থেকে মারতে অভ্যস্ত নিউজিল্যান্ডের প্রথম তিন ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কে যেতে পারলেন না। ৩৫ রানে ৩ উইকেট নেই। টাইট বোলিংয়ে কিউইদের চাপের মধ্যে আটকে রাখে স্বাগতিকরা। যখন গতিটা বাড়ানোর সময় তখন রস টেলর (১০) রান আউট। আর যখন শুধু মারার সময় তখন কোরি অ্যান্ডারসন (৩৪) ও স্যান্টনার (১৮) ফিরে আসেন। শেষের দিকে লুক রঙ্কির ১১ বলে অপরাজিত ২১ রানের ঝড়ে সংগ্রহটা একটু বড় হলো। ম্যাচ শেষে ধোনিও বললেন, এই পিচে জেতার মতো সংগ্রহই পেয়েছিল নিউজিল্যান্ড!


মন্তব্য