kalerkantho


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

নিউজিল্যান্ডকে ১২৬ রানে আটকালো ভারত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ মার্চ, ২০১৬ ২১:৪৯



নিউজিল্যান্ডকে ১২৬ রানে আটকালো ভারত

টি-টোয়েন্টিতে নিউজিল্যান্ড দুর্ধর্ষ। ভারত কখনো তাদের হারাতে পারেনি। কিন্তু নাগপুরের ম্যাচশেষে এই আক্ষেপটা বোধ করি ভারতের থাকবে না। কারণ, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টেনের উদ্বোধনী ম্যাচে ভারতের বোলিংটা হয়েছে দারুণ। অসাধারণ ব্যাটিং আক্রমণের কিউই দলকে ৭ উইকেটে ১২৬ রানে আটকে দিয়েছে তারা। ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিং দেশের মাটিতে তো আরো আগুন ছড়াবে নিশ্চয়ই।

সুরেশ রায়না নিয়মিত বল করেন না। কিন্তু নাগপুরের স্লো উইকেটে তার বোলিং বড় কাজে আসলো ভারতের। ৪ ওভারে মাত্র ১৫ রানে ১ উইকেট নিয়েছেন এই অকেশনাল অফ স্পিনার। ভিন্ন অ্যাকশনের জসপ্রিত বুমরাহও দারুণ বোলিং করেছেন। রায়না ও তার বোলিং ফিগার একই। তবে রায়নার চেয়ে দুটি ডট বল বেশি বুমরাহর। তার ডট ১৩টি। ১১টি করে ডট বল রায়না, রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও রবিন্দ্র জাদেজার। নিউজিল্যান্ডের মতো দল ছক্কা মারতে পেরেছে মোটে তিনটি। বাউন্ডারি তাদের ইনিংসে ৯টি। টিম সাউদি, ট্রেন্ট বোল্টের মতো পেসারদের বসিয়ে তিন পেসার খেলানো কিউই বোলিং কেমন করে তাই দেখার এখন।

টস জিতে অবাক করে ব্যাটিং নিয়েছিলেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। অশ্বিনকে ম্যাচের প্রথম বলেই মাথার ওপর দিয়ে উড়িয়ে মেরে ছক্কা মার্টিন গাপ্টিলের। কিন্তু পরের বলেই গাপ্টিলকে এলবিডাব্লিউর সিদ্ধান্ত দিলেন আম্পায়ার কুমার ধর্মশেনা। রিপ্লেতে এই লঙ্কানের সিদ্ধান্ত ভুল প্রমাণিত। ওই ধাক্কাটা আর কাটিয়ে উঠতে পারলো কোথায় নিউজিল্যান্ড!

প্রথম বল থেকে মারতে অভ্যস্ত নিউজিল্যান্ডের প্রথম তিন ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কে যেতে পারলেন না। ৩৫ রানে ৩ উইকেট নেই। টাইট বোলিংয়ে কিউইদের চাপের মধ্যে আটকে রাখে স্বাগতিকরা। যখন গতিটা বাড়ানোর সময় তখন রস টেলর (১০) রান আউট। আর যখন শুধু মারার সময় তখন কোরি অ্যান্ডারসন (৩৪) ও মিচেল স্যান্টনার (১৮) ফিরে আসেন। শেষের দিকে লুক রঞ্চির ১১ বলে অপরাজিত ২১ রানের ঝড়ে সংগ্রহটা একটু বড় হলো। শেষ ওভারে ১৫ রান না আসলে সংগ্রহটা আরো ছোটো হতো।  


মন্তব্য