kalerkantho

26th march banner

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে তামিমের হাজার রান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ মার্চ, ২০১৬ ২০:৩৩



প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে তামিমের হাজার রান

ধর্মশালায় এদিন প্রথম ম্যাচটিতে বৃষ্টি ফেলেছে প্রভাব। আয়ারল্যান্ড-নেদারল্যান্ডস ম্যাচটা ৬ ওভারের হয়েছে। তবে আর বৃষ্টি নামেনি। ওমানের বিপক্ষে বাংলাদেশের পুরো ২০ ওভারের ম্যাচই আশা করা যাচ্ছে। টস হেরে ব্যাট করছে বাংলাদেশ। এই রিপোর্ট লেখার সময় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ডের শেষ ম্যাচের ৫ ওভারের খেলা শেষ হয়েছে। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন তামিম ইকবাল। কোনো উইকেট না হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৪ রান। তামিম ১০৫ ও সৌম্য সরকার ৮ রানে ব্যাট করছেন। শুরুটা ধীর হয়েছে টাইগারদের।

রাতের ম্যাচ। শিশির একটা সমস্যা। মাশরাফি বিন মর্তুজা টস জিতে পরে বোলিং করতে চেয়েছিলেন। তা হয়নি। ওমান এক অজানা প্রতিপক্ষ। তামিম ফর্মে আছেন। কিন্তু মারার মুডে যেতে একটু সময় নেন তিনি। দ্বিতীয় ওভারে একটি বাউন্ডারি মেরেছেন। সৌম্য মারতে চাচ্ছিলেন। কিন্তু সুবিধা করতে পারছিলেন না। হাজার রান করতে এই ম্যাচে ১১ রান দরকার ছিল তামিমের। পঞ্চম ওভারে মাইলফলকটি স্পর্শ করেছেন এই বাঁ হাতি ওপেনার। স্পিনার লালচেতাকে বাউন্ডারি মেরেই হাজার রানে গেছেন তিনি। টি-টোয়েন্টিতে ২৫তম ব্যাটসম্যান হিসেবে এই মাইলফলক স্পর্শ করলেন তামিম। ২৬ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যানের এটি ৪৯তম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি, তিন সংস্কারণের ক্রিকেটেই তিনি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের মালিক।   

ওমান প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে খেলতে এসেছে। আর এসেই চমক দিয়েছে প্রথম ম্যাচে আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে। এই গ্রুপে নেদারল্যান্ডসও ছিল। কিন্তু প্রথম ম্যাচে নেদারল্যান্ডসকে বাংলাদেশ হারায়। আর তাই ডাচদের সাথে ম্যাচটা বৃষ্টিতে ভেসে গেলে ওমানের বিশ্বকাপের সুপার টেনে খেলার সুযোগ এসে যায়। বাংলাদেশকে হারাতে পারলেই সুপার টেনে তারা। কারণ, দুই দলেরই পয়েন্ট সমান। আয়ারল্যান্ডের সাথে বাংলাদেশের ম্যাচটিও বৃষ্টিতে ভেসে গিয়েছিল। তাতে আইরিশরাও আসর থেকে বিদায় নেয়। এর আগে ওমানের সাথে কখনো খেলেনি টাইগাররা।

বাংলাদেশ দল: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, সাকিব আল হাসান, মাহমুদ উল্লাহ, মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিথুন, মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), আবু হায়দার রনি, তাসকিন আহমেদ, আল-আমিন হোসেন।  


মন্তব্য