আয়ারল্যান্ডের সাথে টাইগারদের-334441 | খেলাধুলা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বুধবার । ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৩ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৫ জিলহজ ১৪৩৭


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

আয়ারল্যান্ডের সাথে টাইগারদের প্রতিপক্ষ আবহাওয়াও!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ মার্চ, ২০১৬ ২০:০৯



আয়ারল্যান্ডের সাথে টাইগারদের প্রতিপক্ষ আবহাওয়াও!


প্রথম ম্যাচে নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ। আর ওমানের কাছে অপ্রত্যাশিতভাবে হেরে দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে আয়ারল্যান্ডের। আইরিশদের সামনে তাই জয়ের কোনো বিকল্প নেই। আর জয় ছাড়া তো কিছু ভাবারও সুযোগ নেই টাইগারদের। ধর্মশালায় শুক্রবার তাই কোণঠাসা আইরিশদেরই মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশকে। তবে এই ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ আছে আরো দুটি। একটি ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসি! অন্যটি ধর্মশালার আবহাওয়া! হিমাচল প্রদেশ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে খেলাটা শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত আটটায়।

ডাচদের ৮ রানে হারানো ম্যাচেই এসেছে দুঃসংবাদ। যাতে কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহে ক্ষুব্ধও বটে! পেসার তাসকিন আহমেদ ও বাঁ হাতি স্পিনার আরাফাত সানির অ্যাকশন প্রশ্নবিদ্ধ! ম্যাচ রেফারি অ্যান্ডি পাইক্রফট ও তার আম্পায়াররা এই সন্দেহের তীর ছুড়েছেন। টানা খেলে চলা এই দুই বোলারের অ্যাকশন নিয়ে সামান্যতম সন্দেহের সুযোগ আসেনি কখনো। মাত্রই তো এশিয়া কাপে খেলা শেষ করেছেন। তার আগে নিয়মিত খেলেছেন। তাহলে? টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মতো গুরুত্বপূর্ণ আসরে এই ধাক্কা কেন খাবে বাংলাদেশ? আইসিসির ম্যাচ কর্তাদের কারণে টুর্নামেন্ট আয়োজক আইসিসিকে প্রতিপক্ষের মতো তো লাগছেই! কারণ, যতোই বলা হোক এতে বাংলাদেশের পারফরম্যান্সে প্রভাব পড়বে না, তাসকিন ও সানি কি শুক্রবার স্বস্তি নিয়ে খেলতে পারবেন? পারবেন না। এটা সবার জানা।

এদিকে পাহাড় ঘেরা ছবির মতো ধর্মশালাকে বাংলাদেশ দলের অন্তত ভালো লাগার কোনো কারণ দেখা যাচ্ছে না! এশিয়া কাপের ফাইনালে খেলায় ওখানে মানিয়ে নেয়ার কোনো সুযোগ পাওয়া যায়নি। সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে সাড়ে চার হাজার ফুট ওপরে খেলোয়াড়দের শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যাটা তো আছেই। তাছাড়া রাতে ঠাণ্ডা নামতে থাকে। যে সময়টায় খেলা তখন টেম্পারেচার ৯ থেকে ১১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকবে। দেশে এমন আবহাওয়ায় তো খেলার অভিজ্ঞতা নেই টাইগারদের। এই ঠাণ্ডাই ম্যাচের বড় প্রতিপক্ষ!

টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা বৃহস্পতিবার ধর্মশালায় সংবাদ সম্মেলনে এই কথাটাও বললেন। আইরিশদের বিপক্ষে মাঠে নামার আগের দিন জোড়া সমস্যা উঠে এলো তার কন্ঠে, "এমনিতেই সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে অনেক উঁচুতে খেলতে গিয়ে আমাদের খেলোয়াড়দের শ্বাস নিতে কিছুটা কষ্ট হচ্ছে। তা ছাড়া ধর্মশালার হিমশীতল আবহাওয়ায় খেলাটাও আমাদের জন্য কিছুটা কঠিনই বলতে হবে। বিশেষ করে রাতে এখানে প্রচণ্ড ঠান্ডা। আর পরের ম্যাচটি আমাদের খেলতে হবে রাতেই।"

এখনকার বাংলাদেশ মাশরাফির নেতৃত্বে বদলে যাওয়া এক দল। সাফল্যে ছুটে চলা দল। আইরিশদের সাথে অতীত অবশ্য অম্লমধুর। ২০০৯ ইংল্যান্ড টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে হারিয়ে দিয়েছিল আয়ারল্যান্ড। টি-টোয়েন্টিতে দুই দলের ওটা ছিল প্রথম দেখা। এর পরের তিন দেখা আইরিশদের ডেরায়, বেলফাস্টে। ২০১২ সালে ৩ ম্যাচের সিরিজ ৩-০ তেই জিতেছিল টাইগাররা। তবে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছিল। ওই সিরিজেই গড়া মাশরাফির টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের সেরা বোলিং রেকর্ড আছে এখনো। আইরিশ দলের চেনা মুখগুলো এখনো আছে। তাদের জন্য টুর্নামেন্টে টিকে থাকার লড়াইও এই ম্যাচ। সব প্রতিকূলতা দূরে ঠেলে বাংলাদেশ স্বাভাবিক খেলা খেললে আইরিশদের হয়তো তেমন সুযোগ নেই। কিন্তু খেলাটা ২০ ওভারের। যেখানে এক দুই ওভারে বদলে যায় চিত্র। টাইগারদের সতর্ক তো থাকতেই হবে।   

মন্তব্য