১৫ রান কম হয়ে গিয়েছিল: তামিম -334057 | খেলাধুলা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

সোমবার । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১১ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৩ জিলহজ ১৪৩৭


১৫ রান কম হয়ে গিয়েছিল: তামিম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ মার্চ, ২০১৬ ১৯:৪৮



১৫ রান কম হয়ে গিয়েছিল: তামিম

তামিম ইকবাল বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান। কিন্তু সেই তার ব্যাট টি-টোয়েন্টি ফিফটির দেখা পেলো চার বছর পর! টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইয়ে বুধবার তার অপরাজিত ৮৩ রানই বাংলাদেশকে দেয় লড়ার মতো স্কোর। বোলাররা নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ধর্মশালায় এনে দিলেন ৮ রানের জয়। তবে চাপ গেছে বাংলাদেশের ওপর দিয়ে। টাইগারদের একটা পর্যায়ে ভয়ই ধরিয়ে দিয়েছিল ডাচরা। ম্যান অব দ্য ম্যাচ তামিমও ম্যাচের শেষে বললেন, ১৫ রান কম হয়ে গেছে।

শ্রীলঙ্কার সাবেক খেলোয়াড় রাসেল আরনল্ড ম্যাচের আগে পিচ রিপোর্ট করলেন। বললেন, আগে ব্যাট করলে জেতার জন্য অন্তত ১৬০ রান করতে হবে। বাংলাদেশ ৭ উইকেটে করলো ১৫৩। নেদারল্যান্ডস ১০ ওভারে ২ উইকেটে ৭১ রান করেছিল। যেখানে বাংলাদেশ ১০ ওভারে করেছিল ২ ওভারে ৭০ রান। পাল্লা দিয়েছে ডাচরা। পথেই ছিল। কিন্তু অভিজ্ঞতায় এগিয়ে ছিল বাংলাদেশ। বোলাররাও দারুণ ফর্মে। বিশেষ করে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার ৪ ওভারে ১৪ রানে ১ উইকেট ডাচদের সামনে প্রবল বাধা হয়ে দাড়ায়। চাপ বাড়ে। শেষ পর্যন্ত তারা আর পারেনি।

তামিম অবশ্য উইকেটকে ব্যাট করার জন্য খুব সহজ ছিল বলেননি। প্রতিপক্ষের বোলিংয়ের প্রশংসাও করেছেন। আরো কিছু রান হলে লড়াইটা তাদের জন্য সহজ হতো বলে ধারণা তামিমের, "তারা ভালো লাইন ও লেংথে বল করে গেছে। উইকেটও সহজ ছিল না। আমার মনে হয় আমরা ১৫ রান কম করেছিলাম।" শেষ পর্যন্ত জয়টা তামিমের দলেরই। আর নিজেকে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে আবার ফর্মে ফেরাতে পেরে খুশি এই বাঁ হাতি ওপেনার। মাঝে বিপিএল ও পিএসএল ভালো গেছে। দারুণ খেলেছেন। নিজেকে ফিরে পাবার পেছনে এসবের অবদানও মানছেন তামিম, "ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগ খেলে আত্মবিশ্বাস ফিরে এসেছিল। কোচের সাথে কথা বলেছি। মাঠে ঠাণ্ডা থেকেছি।" তবে ধর্মশালায় সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৪ হাজার ফুট উচ্চতায় তাদের যে শ্বাসকষ্ট হচ্ছে, সেই সমস্যার কথাও বলেছেন তামিম।

অধিনায়ক মাশরাফি নিজেকে কৃতিত্ব দেন কমই। এদিনও দিলেন না। তবে তার বোলাররা পরের দিকে নিয়মিত উইকেট তুলে নেয়ায় চাপ কমানো গেছে বলে জানালেন। মাশরাফি বললেন, "১০ ওভারের পর তারা ভালো পরিস্থিতিতে ছিল। আমরা ব্যাক টু ব্যাক উইকেট তুলে নিয়েছি। ওটাই ছিল টার্নিং পয়েন্ট।" শেষ ওভারে ১৭ রান করলে জিততো ডাচরা। কিন্তু তরুণ তাসকিন আহমেদ তা হতে দেননি। এই বোলারের প্রশংসা ঝরেছে মাশরাফির কণ্ঠে, "শেষ ওভার করা খুব কঠিন। তবে তাসকিন যেভাবে বল করে যাচ্ছিল তাতে জানতাম কাজটা করতে পারবে সে।" তাসকিন উইকেট পাননি। তবে শেষ ওভারে দিয়েছেন ৮ রান। আর ৪ ওভারে নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে মাত্র ২১ রান খরচ করেছেন নতুন বলের এই বোলার। বাংলাদেশের জয়ে তার ভূমিকাও তো কম না।

মন্তব্য