kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ফাইনালে টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ মার্চ, ২০১৬ ২১:১৬



ফাইনালে টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

এশিয়া কাপের ফাইনালের টসটা জিতলো ভারত। রাত ৯টা ১০ মিনিটে হলো টস।

খেলা শুরু রাত সাড়ে নয়টায়। মাশরাফি বিন মর্তুজার বাংলাদেশ দলকে ব্যাটিংয়ে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিলেন ভারত অধিনায়ক এমএস ধোনি। কারণ হিসেবে ধোনি জানালেন, এটা ১৫ ওভারের খেলা। পরে ব্যাটিংয়ে সামান্য সুবিধা পাওয়া যাবে। মাশরাফি বললেন, টস জিতলে তিনিও ফিল্ডিং নিতেন। তাদের পরিকল্পনা, ২/৩ ওভার দেখে আক্রমণে যাওয়া।

এই ম্যাচে চার পেসার নিয়ে নামছে বাংলাদেশ। বাঁ হাতি পেসার আবু হায়দার রনিকে নেয়া হয়েছে আরাফাত সানির জায়গায়। দীর্ঘদিন পর নাসির হোসেন ফিরেছেন। বাদ পড়েছেন মোহাম্মদ মিথুন।

সব শঙ্কা পেছনে ফেলে রাত ৯টা ৩০ মিনিটেই শুরু হচ্ছে এশিয়া কাপের আরাধ্য ফাইনাল। ঝড়-বৃষ্টির কারণে অনিশ্চয়তা মাথার ওপর ভর করেছিল। শেষ পর্যন্ত মাঠ কর্মীদের চেষ্টায় মাঠ শুকিয়েছে দ্রুত। আম্পায়াররা জানিয়েছেন, ডাকওয়ার্থ-লুইস বৃষ্টি আইনে ১৫ ওভার করে খেলা হবে। প্রত্যেক দলের ৫ বোলার ৩ ওভার করে বল করতে পারবেন। ৫ ওভার থাকবে পাওয়ার প্লে।  

৮টা ৩০ মিনিটে প্রথম মাঠ পর্যবেক্ষেণ আসেন আম্পায়ারা। তখন জানান, দ্বিতীয় পর্যবেক্ষেণ ১৫ মিনিট পর। ৮টা ৪৫ এ ফিরে তারা আউটফিল্ড আরো পরীক্ষা করে দেখেন। পুরো মাঠ দেখেন চিফ কিউরেটরের সাথে কয়েক দফা আলাপ করেন। এরপর ম্যাচ রেফারি জেফ ক্রোর সাথে মাঠেই আলোচনা হয়ে যায়। দুই দলের সব খেলোয়াড়ই তখন মাঠে। গোল হয়ে দুই দল নিজেদের শেষ মিটিংটাও করে নিয়েছে।


মিরপুর এক আশ্চর্য মাঠ! স্যান্ডি মাঠ। তাই পানি সরে যেতে খুব বেশি সময় নেয় না। প্রায় ২০ মিনিটের টানা ঝড় ও তারপরের আরো ঝিরিঝিরি বৃষ্টিতে মাঠে পানি জমেছিল বেশ। হঠাৎ আসা ঝড়ের কারণে ঠিক মতো কাভার দেয়া যায়নি মাঠে। তারপরও পানি সরে যেতে খুব বেশি সময় লাগেনি। এর অন্যতম কারণ অবশ্য অনেক দিন পর বৃষ্টি হওয়াও।
 
রাত ৮টা ১০ মিনিটের দিকে মাঠ থেকে সব কাভার সরিয়ে নেয়া হয়। দুই দলের কয়েকজন ভারতীয় খেলোয়াড় মাঠে নেমে ফুটবল খেলে গা গরম করতে থাকেন। বাংলাদেশি কয়েকজন খেলোয়াড়ও নামেন মাঠে। ৮টা ২০ মিনিটের দিকে পিচ থেকেও কাভার তুলে নেয়া হয়। উইকেট বসানো হয়। তখনই বোঝা যায়, খেলা শুরু হবে শিগগিরই।

এর আগে ৬টা ২০ মিনিটের দিকে মিরপুরে ঝড়-বৃষ্টি হানা দেয়। বিদ্যুৎ চলে যায়। ফ্লাড লাইট বন্ধ হয়। ঝড়ের দাপটে লন্ড ভন্ড হয় মাঠের বিলবোর্ড। ৬টা ৪০ মিনিটের দিকে ঝড় থামে। এরপর অল্প অল্প বৃষ্টি ছিল। সেটাও সময়ের সাথে থেমে যায়। ঝড় অনেক বড় দুশ্চিন্তা নিয়ে এসেছিল। আম্পায়াররা পরে জানালেন, অতো দুশ্চিন্তার কিছু নেই। দুই দফা মাঠ পর্যবেক্ষণের পর খেলা শুরুর সিদ্ধান্ত দিয়েছেন তারা।

 


মন্তব্য