kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা মর্যাদার লড়াই শুক্রবার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ মার্চ, ২০১৬ ১৮:০৭



পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা মর্যাদার লড়াই শুক্রবার

এটা 'ডেড রাবার'। মানুষের আগ্রহ নেই।

কিন্তু সূচি থেকে তো আর ম্যাচটা বাদ দেয়া যায় না! এশিয়া কাপের সাবেক ও বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা তাই শুক্রবার মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে নামছে কেবল আনুষ্ঠানিকতা সারতে। এশিয়া কাপে পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কার এই ম্যাচকে আনুষ্ঠানিকতা ছাড়া আর কিছু বলার যে উপায় নেই। কারণ, বুধবার পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনালে উঠে গেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। ৬ মার্চ ভারতের সাথে শিরোপা লড়াইয়ে নামবে তারা। পাকিস্তানের হারে টুর্নামেন্ট থেকে তাদের সাথে শ্রীলঙ্কারও বিদায় হয়ে গেছে।

টানা দুই ম্যাচে শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানকে হারিয়ে বাংলাদেশই আসলে সব চিত্র পাল্টে দিয়েছে। নইলে প্রথম পর্বের এই ম্যাচটিরও গুরুত্ব থাকতো। এখন সেটা নেহাত মর্যাদার লড়াই। দুই দল বৃহস্পতিবার মিরপুরে অনুশীলন সেরে নিয়েছে। আগের দিন ম্যাচ ছিল। অনুশীলনে পাকিস্তান অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি, পেসার মোহাম্মদ আমিররা। লঙ্কান নিয়মিত অধিনায়ক লাসিথ মালিঙ্গা ঘুরে বেড়ালেন। অনুশীলন করলেন না। ইনজুরিতে ভুগছেন তিনি। খেলা হবে না পাকিস্তানের সাথেও।

শ্রীলঙ্কা ভারত ও বাংলাদেশের কাছে হেরেছে। জিতেছে কেবল সংযুক্ত আরব আমিরাতের সাথে। পাকিস্তানও তাই। অনুশীলনে পাকিস্তানের বোলিং কোচ আজহার মেহমুদকে পাওয়া গেলো। বাংলাদেশের বিপক্ষে বুধবার ১৯তম ওভারে মোহাম্মদ সামির দুটি নো বল ম্যাচের চিত্র অনেকটা পাল্টে দিয়েছে। মূল্য দিতে হয়েছে পাকিস্তানকে। এই প্রসঙ্গ এলে অসহায়ত্বই প্রকাশ করলেন মেহমুদ, "আমি বোলিং কোচ। লোকে আমাকে নো বল নিয়ে জিজ্ঞেস করছে। রাতারাতি সব বদলে দেয়ার যাদু আমি জানি না। ওর (সামি) দিকে দেখেন, ক্যামব্যাক করছে। আর কামব্যাক সবসময় কঠিন। অনেক চাপ থাকে। " তবে মেহমুদের বিশ্বাস, "ধৈর্য্য ধরতে হবে। একটি জয় সবকিছু বদলে দেবে। টি-টোয়েন্টি খেলাটা মোমেন্টামের। আমরা আগামীকাল (শুক্রবার) এবং বিশ্ব টি-টোয়েন্টিতে কয়েকটি ম্যাচ জিতলে সব বদলে যাবে। "


মন্তব্য