kalerkantho

সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগ

অব্যাহতি ও পদত্যাগের পর এবার পুরো কমিটি বিলুপ্ত

পদবঞ্চিত ও কাঙ্ক্ষিত পদ না পাওয়া নেতাকর্মীদের মিষ্টি বিতরণ

সাতকানিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

২১ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের মাত্র ১৭ দিন পর বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। দলীয় গঠনতন্ত্র পরিপন্থী কমিটি গঠন ও শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ১৯ মার্চ রাতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে ওই কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর এলাকায় মিষ্টি বিতরণ করেছেন ওই কমিটিতে পদবঞ্চিত ও কাঙ্ক্ষিত পদ না পাওয়া নেতাকর্মীরা। 

দলীয় সূত্রমতে, গত বছরের ২০ জুন ছাত্রলীগ নেতা আবদুল মান্নানকে সভাপতি ও তোফাজ্জাল হোসেন চৌধুরী তুহিনকে সাধারণ সম্পাদক করে দুই সদস্যবিশিষ্ট সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের একটি কমিটির অনুমোদন দেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম বোরহান উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক মো. আবু তাহের। দীর্ঘ আট মাসের অধিক সময় পর ২ মার্চ রাতে ১৩৪ সদস্যবিশিষ্ট সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা দেয় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ। কমিটি গঠনের পরের দিন পদবঞ্চিত ও কাঙ্ক্ষিত পদ না পাওয়া ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল এবং টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করেন। এ সময় তাঁরা ঘোষিত কমিটিতে বিবাহিত, মাদক কারবারি, অছাত্র, শিবির, ছাত্রদল, ছিনতাইকারী, মোটরসাইকেল চোরসহ চিহ্নিত অপরাধী থাকার অভিযোগ এনে কমিটি বাতিলের দাবি জানান। এ ছাড়া কমিটিতে পদবঞ্চিত ও কাঙ্ক্ষিত পদ না পাওয়া নেতাদের হামলায় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকসহ বেশ কয়েকজন আহত হন।

অন্যদিকে, ঘোষিত উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে শিবিরের নেতাকর্মী থাকার অভিযোগ এনে বিবৃতি দেয় কাঞ্চনা, ছদাহা ও কালিয়াইশ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ।

এদিকে মোটরসাইকেল চুরি, অতীতে শিবির ও ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে জড়িত এবং ফেসবুকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সম্পর্কে আপত্তিজনক মন্তব্য করাসহ নানা অভিযোগের ভিত্তিতে কমিটি গঠনের তিন দিন পর চারজনকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ। অব্যাহতি পাওয়া ছাত্রলীগ নেতারা হলেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. রিদুয়ানুল ইসলাম, সহসম্পাদক মো. রিয়াজ উদ্দিন, শহীদুল ইসলাম শহীদ এবং ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক মো. আজাদ উদ্দিন।

এ ছাড়া কমিটিতে কাঙ্ক্ষিত পদ না পাওয়ায় ১২ নেতা একযোগে পদত্যাগ করেন। ওই কমিটি থেকে পদত্যাগকারীরা হলেন সহসম্পাদক মির্জা সোহেল, প্রমীস চৌধুরী, সনজিত কর, মো. ফারুখ, পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মঈনউদ্দিন চৌধুরী, উপ-পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মিরাজ ইসলাম, প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, উপ-ছাত্রবৃত্তি বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, উপ-ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক এ কে এম মুনতাসির, আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক সাব্বির হোসেন আলমগীর, উপ-আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শান্ত ও হোসেন মো. এহসান।

সর্বশেষ ১৯ মার্চ রাতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। ওই চিঠিতে গঠনতন্ত্র পরিপন্থী কমিটি গঠন এবং দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে বলে উল্লেখ রয়েছে।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত চিঠির মাধ্যমে সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম বোরহান উদ্দিন।

মন্তব্য