kalerkantho


সন্ত্রাসীরা কেটে নিল ২৫ গাছ

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১৮ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



উপজেলার রামদাসহাটে মৃত বাবার সৎকার নিয়ে ব্যস্ত থাকা অবস্থায় সংখ্যালঘু এক পরিবারের মালিকানাধীন ২৫টি গাছ কেটে নিয়ে গেছে সন্ত্রাসীরা। গত শনিবার এ ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে রামদাস হাট পুলিশ ফাঁড়িতে অভিযোগ করেন গাছের মালিক প্রয়াত হিমাংশু গুহের বড় ছেলে তড়িৎ গুহ। পুলিশ অভিযান চালিয়ে স্থানীয় একটি স মিল থেকে ২০টি গাছের গুঁড়ি জব্দ করলেও বাকি ৫০ শতাংশ গাছ উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে বাঁশখালী উপজেলা পূজা উদ্‌যাপন পরিষদ সভাপতি টুটুন চক্রবর্তী ও সাধারণ সম্পাদক উত্তম কারণের নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তাঁরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান এবং দোষীদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

রামদাসহাট পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক মামুন হাসান বলেন, ‘গাছের মালিক হিমাংশু গুহ যখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান, দুর্বৃত্তরা তখরই কৌশলে গাছগুলো কাটা শুরু করে। তারা জায়গাটি বায়না করেছে দাবি করলেও তদন্তে জানতে পারি জায়গা ও গাছের মালিক তড়িৎ গুহ। অভিযোগ পেয়ে ইতোমধ্যে ৫০ শতাংশ গাছ উদ্ধার করেছি। জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

অভিযোগকারী তড়িৎ গুহ বলেন, ‘স্থানীয় তৌহিদ, মোরশেদ, দুদু, গফুর মিলে ২৫টি ইউকিলিপটাস গাছ কেটে নিয়ে রামদাসহাট ও মিয়ার বাজার স মিলে পাচার করেছে। আমার দেওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ রামদাসহাট লোকমানের সমিল থেকে ২০টি গাছের গুঁড়ি উদ্ধার করেছে। বাকিগুলো উদ্ধার করতে অভিযান চালাচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে বাবা অসুস্থ থাকায় আমরা সবাই শহরে ছিলাম। গত শনিবার বাবা মারা গেলে সন্ধ্যায় সৎকার করি। আমরা যখন বাবার সৎকার নিয়ে ব্যস্ত তখন গাছগুলো কেটে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।’

রামদাসহাট স মিলের মালিক লোকমান বলেন, ‘স্থানীয় সিরাজের ছেলে গাছগুলো নিজের বলে বিক্রি করেছিল।’

বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. কামাল হোসেন বলেন, ‘শোকাহত পরিবেশের সুযোগে গাছ কেটে নেওয়া দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’



মন্তব্য