kalerkantho


বাল্যবিয়ের চেষ্টা মেয়ের বাবা-ঘটকসহ আটক ৬, জরিমানা

রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



গায়ে লাল-হলুদ রংয়ের শাড়ি। হাতে চুড়ি, গলায় গহনা। মেহেদির রংয়ে রাঙা মেয়েটি। কমিউনিটি সেন্টার ভর্তি আমন্ত্রিত অতিথি। আয়োজন ছিল বাদ্য-বাজনার। রাত পোহালেই সোমবার মেয়েটির যাওয়ার কথা ছিল শ্বশুরবাড়ি। কিন্ত তা আর হল না। পরিবার, আত্মীয়-স্বজন সবাই যখন মেহেদি অনুষ্ঠান নিয়ে ব্যস্ত, ঠিক তখনই হাজির উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা শামীম হোসেন রেজা। মুহূর্তেই বন্ধ হয়ে গেল মেহেদি রাতের সব বর্ণিল আয়োজন। এ সময় বাল্যবিয়ের অনুষ্ঠান আয়োজন করার অপরাধে মেয়ের বাবা, চাচা, ঘটকসহ কনেপক্ষের ৬ জনকে আটক করে থানাহাজতে পাঠানো হয়। প্রায় একদিন হাজতে থাকার পর তাঁরা অর্থদণ্ড দিয়ে মুক্তি পান। রবিবার রাতে রাউজান পৌরসভার সুলতানপুর জানালি হাট সংলগ্ন একটি কমিউনিটি সেন্টারে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, রাউজান উপজেলার সাত নম্বর রাউজান ইউনিয়নের পশ্চিম রাউজান গ্রামের মঙ্গলখালী এলাকার ফরিদ মিয়ার মেয়ে জান্নাতুল নাঈমের সঙ্গে পৌরসভার ছত্রপাড়ার মৌলানা আলী আহমদ সাহেবের বাড়ির জনৈক বাসেকের ছেলে বাদশার বিয়ে ঠিক হয়। রবিবার রাতে মেয়েপক্ষের মেহেদি অনুষ্ঠান চলছিল সুলতানপুর জানালি হাট সংলগ্ন ‘দ্য প্যাভিলিয়ন’ নামক কমিউনিটি সেন্টারে। গোপনে এ সংবাদ পেয়ে রাত প্রায় ১২টার দিকে ওই কমিউনিটি সেন্টারে পৌঁছেন উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা শামীম হোসেন রেজা। এ সময় তিনি ১৫ বছর ১০ মাস বয়সী বালিকা জান্নাতুল নাঈমকে বিয়ে দেওয়ার চেষ্টার অপরাধে মেহেদী অনুষ্ঠান থেকে তাঁর বাবা ফরিদ মিয়া, চাচা, ঘটকসহ কনে পক্ষের ৬ জনকে আটক করে থানা হাজতে পাঠান।

উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের সহকারী সমীর বলেন, ‘সোমবার জরিমানার ৭৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড আদায় করে আটককৃতদের মুক্তি দেওয়া হয়।’



মন্তব্য