kalerkantho


অস্ত্র ও গুলি জব্দ

চকরিয়ায় দুই সন্ত্রাসীকে পিটুনি দিয়ে পুলিশে দিল জনতা

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি    

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



চকরিয়ায় বহিরাগত দুই সন্ত্রাসীকে পিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনতা। এ সময় তাঁদের হেফাজত থেকে উদ্ধার করা হয় দেশে তৈরি দুটি একনলা বন্দুক ও দুই রাউন্ড গুলি।

গতকাল সোমবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের গাবতলী বাজার এলাকায় দুই বহিরাগত সন্ত্রাসীকে দেখে স্থানীয় জনতা চ্যালেঞ্জ করে। এ সময় তাঁরা পালানোর চেষ্টা করলে ধাওয়া দিয়ে আটক এবং উত্তম-মধ্যম দিয়ে পুলিশে খবর দেওয়া হয়। পরে চকরিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আলমগীর আলমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে জনতার রোষানল পড়া দুই সন্ত্রাসীকে দুটি অস্ত্র ও গুলিসহ গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃত দুজন হলেন কক্সবাজারের কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ডের বড়ঘোপ এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে আসিফ উদ্দিন কুতুবী (২৩) ও একই এলাকার মনজুর আলম মাঝির ছেলে মোহাম্মদ ইমরান (২২)।

ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও গাবতলী বাজারের বাসিন্দা মাহমুদুল করিম জানান, গতকাল সোমবার বিকেলে অচেনা দুই যুবক গাবতলী বাজার এলাকায় সন্দেহজনক ঘোরাফেরা করছিল। এ সময় সন্দেহ হলে তাঁদের পরিচয় জানতে চায় স্থানীয় জনতা। একপর্যায়ে দুই যুবক পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে স্থানীয় জনতা তাঁদের ধাওয়া দিয়ে ধরে ফেলে। এ সময় তাঁদেরকে পিটুনি দেয় জনতা। এরই মধ্যে স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুই সন্ত্রাসীকে দুটি অস্ত্র ও দুই রাউন্ড গুলিসহ গ্রেপ্তার করে।

চকরিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. ইয়াছির আরাফাত জানান, খবর পাওয়া মাত্রই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। এ সময় দুটি আগ্নেয়াস্ত্র ও দুই রাউন্ড গুলিসহ দুই সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ব্যাপারে তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা রুজু করা হচ্ছে।

থানার ওসি মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘ওই দুই যুবক হয়তো কোনো সন্ত্রাসী কার্যকলাপ বা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড সংঘটিত করার উদ্দেশ্যে কুতুবদিয়া থেকে চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালী এসেছিল। তবে তাদেরকে কারা এনেছিল বা সঠিক কি উদ্দেশ্যে অস্ত্র-গুলিসহ এখানে এসেছে তার বিস্তারিত জানতে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে। প্রয়োজনে তাদেরকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এজন্য আদালতে আবেদন করা হবে।’



মন্তব্য