kalerkantho


পোর্ট সিটি ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষামন্ত্রী

চাকরিতে সরকারি-বেসরকারি শিক্ষার্থীর কোনো পার্থক্য নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



চাকরিতে সরকারি-বেসরকারি শিক্ষার্থীর কোনো পার্থক্য নেই

পোর্ট সিটি ইউনিভার্সিটির নবীনবরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। ছবি : কালের কণ্ঠ

বিসিএসসহ বিভিন্ন চাকরিতে নিয়োগে সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের মধ্যে কোনো পার্থক্য করা হয় না বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেন, ‘সবাই আমাদের সন্তান। সবার জন্য আমরা সমান সুযোগ ও মান নিশ্চিত করতে চাই। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে কোনো বাধা বা পার্থক্য নেই। এ নিয়ে মনের মধ্যে যেন কার কোনো দ্বিধাদ্বন্দ্ব না থাকে।’

গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির নবীনবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী এ কথা বলেন।

প্রতিষ্ঠার পাঁচ বছরে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রমে মুগ্ধ হয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমানে দেশে ১০৪টি বেসরকারি এবং ৪৪টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলমান আছে। বিশ্ববিদ্যালয় আইনের ভিত্তিতে এসব বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালিত হলেও অনেকে শর্ত পূরণ করে সফল হয়েছে আবার অনেকেই পূরণ করেনি। অনেক বিশ্ববিদ্যালয় বড় ক্যাম্পাস নিয়ে পরিচালনা করে সফলতা দেখিয়েছে। এই বিশ্ববিদ্যালয় সেই পথেই আগাচ্ছে আমি আশা করি তারা সফল হবে।’

বর্তমান প্রজন্ম মেধার দিক থেকে দরিদ্র নয় উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের শিক্ষার্থীরা বিশ্বমানের মেধার অধিকারী। আমরা মেধা আমদানি করি না এখন রপ্তানি করছি। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে সেই ধরনের জ্ঞান প্রদান নিশ্চিত করতে পারলে আমরা মেধা আরও রপ্তানি করতে পারবো।’

পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান এনামুল হক শামীম বলেন, ‘বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৪১ শিক্ষক ও ৪৬ জন খণ্ডকালীন শিক্ষক ছয় হাজারের অধিক শিক্ষার্থীদের উন্নতমানের পাঠদান করছেন। মাত্র পাঁচ বছর বয়সের আমাদের এই সফলতাকে কাজে লাগিয়ে আগামী বছরের মার্চে মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে অতিথি করে আমরা প্রথম কনভোকেশন করব। আমাদের বড় ও স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য চট্টগ্রামের কল্পলোক আবাসিক এলাকায় এক একর জমি নেওয়া হয়েছে। সেখানেই অনুষ্ঠানটি হবে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. নুরুল আনোয়ারের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য শিরীণ আখতার, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চেয়ারম্যান ও নূরজাহান গ্রুপের চেয়ারম্যান জহির আহমদ রতন প্রমুখ।

পরে শিক্ষামন্ত্রীর সম্মানে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়।

 

 



মন্তব্য