kalerkantho


বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি

গণ্ডামারা ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

বাঁখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



উপজেলার গণ্ডামারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. লিয়াকত আলীর বিরুদ্ধে এক মামলায় বাঁশখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন।

গত ৪ জুন বাঁশখালী আলাওল ডিগ্রি কলেজ মাঠে বিএনপির এক সমাবেশে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি করে বক্তব্য দেওয়ায় লিয়াকতের বিরুদ্ধে ৭ জুন স্থানীয় সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর ব্যক্তিগত সচিব ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি তাজুল ইসলাম বাদী হয়ে বাঁশখালী আদালতে মামলাটি করেন। আদালত ওই দিন তাঁর বিরুদ্ধে সমন ইস্যু করে ১০ জুলাই আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন। ওই তারিখে হাজির না হওয়ায় আদালত গত সোমবার শুনানি শেষে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। ওই একই ঘটনায় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল্লাহ কবির লিটন বাদী হয়ে লিয়াকতের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলাও করেছিলেন। উল্লেখ্য, ২৪ মামলার পলাতক আসামি ২০১৭ সালের ২৫ মে গণ্ডামারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে উপজেলা আইনশৃঙ্খলা ও উপজেলা সমন্বয় কমিটির একটি সভায়ও উপস্থিত হননি।

পুলিশ জানায়, বাঁশখালী থানা, বাঁশখালী আদালত, আনোয়ারা থানা ও নগরের বাকলিয়া থানাসহ বিভিন্ন থানায় লিয়াকতের বিরুদ্ধে আলাদা ঘটনায় নয়জনকে হত্যা, রাষ্ট্রদ্রোহিতা, নাশকতা, চেক জালিয়াতিসহ নানা অভিযোগে ২৪টি মামলা রয়েছে। তবে এসব মামলার কয়েকটিতে জামিনে আছেন তিনি। কয়েকটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। ৭/৮টি মামলা তদন্তাধীন ও বিচারাধীন আছে।

বাঁশখালী থানার ওসি মো. সালাহউদ্দিন বলেন, ‘গণ্ডামারা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক মো. লিয়াকত আলী পলাতক আসামি। তাঁর বিরুদ্ধে আরও এক মামলায় ওয়ারেন্ট জারি হয়েছে।’

বাঁশখালী আদালতের আইনজীবী এস এম তোফাইল বিন হোসাইন বলেন, ‘এ পলাতক আসামিকে দ্রুত গ্রেপ্তার করে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো উচিত।’



মন্তব্য