kalerkantho


চট্টগ্রাম বিমানবন্দর

চার্জার লাইটে ৬৫ লাখ টাকার সোনার বার

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



চার্জার লাইটে ৬৫ লাখ টাকার সোনার বার

শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এক যাত্রীর ব্যাগ থেকে ১৩টি অবৈধ সোনার বার জব্দ করেছে কাস্টমস। চার্জার লাইটের ভেতর কালো ট্যাপে বিশেষভাবে লুকানো অবস্থায় ছিল এসব সোনার বার।

কাতারের রাজধানী দোহা থেকে সকালে পৌঁছা ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইটে সোনার বারগুলো এসেছিল। ব্যাগটি জব্দ করা হলেও যাত্রীকে আটক করতে পারেনি কাস্টমস।

বিমানবন্দরে কর্মরত কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা কাজল নন্দী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিমানবন্দরে স্ক্যানিং মেশিনের আগে একটি কার্টন পড়ে থাকতে দেখা যায়। কার্টনটির মালিক খুঁজলেও কেউ সাড়া না দেওয়ায় কার্টন খুলে চার্জার লাইটের মধ্যে কালো ট্যাপে মোড়ানো ১৩টি সোনার বার পাওয়া যায়। এসব বার ব্যাটারির খোপের মধ্যে বিশেষভাবে স্থাপন করা ছিল।’

কাউকে আটক করতে না পারার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘হ্যান্ডলাগেজ হিসেবে এই কার্টন এসেছে। এ জন্য যাত্রীর কোনো ট্যাগ (পরিচিতিমূলক তথ্য) ছিল না। ফলে কার্টনটি কার সেটি চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। কার্টন আটক করবো বুঝতে পেরে হয়তো ওই যাত্রী সেটি ফেলে রেখে চলে গেছে।’

কাস্টমস জানায়, বিমানবন্দর বা স্থলবন্দর দিয়ে এই ধরনের সোনার বার আনা নিষিদ্ধ। তবে নির্ধারিত শুল্ক পরিশোধ করে স্বর্ণালঙ্কার আনা যায়।

এ কারণে শুল্ক ফাঁকি দিতে চোরাকারবারিরা এই পদ্ধতিতে সোনার বার নিয়ে আসে। জব্দ ১৩টি সোনার বারের ওজন এক হাজার ৫১৭ গ্রাম। এর বাজারমূল্য ৬৫ লাখ টাকা। আটকের পর সেগুলো কাস্টমসের কাস্টডিয়ান শাখায় জমা হবে। এরপর সেগুলো বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে জমা করা হবে।

 



মন্তব্য