kalerkantho


আজ বিশ্বব্যাপী গুগলে শামসুর রাহমান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ১৬:৩০



আজ বিশ্বব্যাপী গুগলে শামসুর রাহমান

আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি শামসুর রাহমানের ৯০তম জন্মদিন আজ ২৩ অক্টোবর। আজ গুগল কবি শামসুর রাহমানকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে অন্যরকমভাবে। আজ সারাবিশ্ব থেকে গুগলে ঢুকলেই শামসুর রাহমানের একটি এনিমেশন ভেসে উঠছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে তিনি লিখছেন। সাধারণত google.com.bd অংশেই বাংলাদেশি বিখ্যাতদের ডুডল করে স্মরণ করা হলেও googl.com থেকে ঢুকলেও কবি শামসুর রাহমানের ডুডল দৃশ্যমান হচ্ছে। অর্থাৎ সারাবিশ্বের মানুষ আজ গুগলে ঢুকলে ঢুকলেই বাংলাদেশের এই কবিকে দেখতে পাচ্ছেন। 

১৯২৯ সালের ২৩ অক্টোবর পুরনো ঢাকার মাহুতটুলিতে কবি জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একাধারে কবি, সাংবাদিক, গীতিকার, কলামিস্ট। দীর্ঘ ছয় দশক কবি এ সব ক্ষেত্রে অত্যন্ত সাবলিলধারায় লেখালেখি করে বাংলা সাহিত্যে অসাধারণ অবদান রাখেন। ২০০৬ সালের ১৭ আগস্ট চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ঢাকায় ইন্তেকাল করেন।
তার কবিতায় বাঙালি জাতির স্বাধীনতা প্রাপ্তির চেতনার দীপ্ত উচ্চারিত হলেও কবিতা ও সাংবাদিকতায় মৌলবাদ বিরোধীতায় ছিলেন সোচ্চার। ধর্মান্ধতাকে কবিতার মধ্যদিয়ে আজীবন প্রচন্ডভাবে ঘৃণা করেছেন। 

লিখেছেন প্রেম, দ্রোহ ও বিশ্বজনীনতা বিষয়ে অসংখ্য চিরায়ত কবিতা। যা আজও সকল বয়সের মানুষকে উজ্জীবিত করে। সর্বোপরি কবিতা রচনায় স্বাধীনতার কণ্ঠকে ধারণ করেন। এ কারণেই তার সৃষ্টিশীলতার বিশালতাকে বাংলা কবিতায় তাকে স্বাধীনতার কবি বলা হয়। শামসুর রাহমান বাঙালির সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ কবিদের অন্যতম এবং আমাদের চলার পথের পাথেয়।

শামসুর রাহমানের প্রথম কবিতার বই ‘প্রথম গান দ্বিতীয় মৃত্যুর আগে ’ প্রকাশ পায় ১৯৬০ সালে। এর পর ‘ ষাট দশকে প্রকাশিত বইগুলো হচ্ছে রুদ্র করোটিতে, বিধ্বস্ত নীলিমা, নিরালোকে বসতি, নিজ বাসভূমে, ‘বন্দি শিবির থেকে’, মাতাল ঋতিকসহ মৃত্যুর আগ পর্যন্ত কবির ৬০টি কবিতার বই প্রকাশ পায়। এ ছাড়া ৮টি শিশুতোষ ১১টি, গল্পগ্রন্থ ১টি, দুটি উপন্যাস-অক্টোপাস ও অদ্ভুত আঁধার, নাটক ও কবিতা সমগ্র, অনুবাদগ্রন্থ ৯টি, নির্বাচিত কলাম, নির্বাচিত কবিতার চারখন্ডসহ কবির বিভিন্ন বিষয়ে প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা শতাধিক।

পেশাগতভাবে কবি শামসুর রাহমান লেখালেখি এবং সাংবাদিকতায় নিয়োজিত ছিলেন। ষাট দশকের মধ্যভাগে তিনি দৈনিক পাকিস্তান পত্রিকায় (দেশ স্বাধীানের পর দৈনিক বাংলা ) যোগ দেন। দেশ স্বাধীনের পর এই পত্রিকা দৈনিক বাংলা নামে প্রকাশ পায়। তিনি এই পত্রিকায় প্রায় চার দশক কর্মরত ছিলেন। দৈনিক বাংলা, বাংলাদেশ টাইমস, সাপ্তাহিক বিচিত্রার এর সম্পাদক ছিলেন। এ ছাড়াও কবি কয়েককটি সাহিত্য পত্রিকা সম্পাদনা করেন।
সাহিত্যে অবদানের জন্য একুশের পদক, বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার, আদমজী পুরস্কার, কলকাতা থেকে আনন্দ পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরকার লাভ করেন।

কবি ও স্থপতি রবিউল হুসাইন বাসসকে বলেন, কবি শামসুর রাহমান বাংলা সাহিত্য ও সমসাময়িক বিশ্বসাহিত্যের অন্যতম সৃষ্টিশীল আধুনিক কবি। প্রগতিধারা, অসাম্প্রদায়িক চেতনা, মুক্তিযুদ্ধ ও নাগরিক জীবনবোধের কবি। প্রাশ্চাত্যধারায় বাংলাসাহিত্যে যে পঞ্চকবির একটা যুগ শুরু হয়েছিল, সেই চেতনাকে শামুসর রাহমান বেগবান করেছেন তার কবিতায়। কবিতার ভুবনে মানবিক ভূমিকে স্পর্শ করেন। রাজত্ব করেছেন। তিনি আমাদের কবিতা লেখা শিখিয়েছেন।



মন্তব্য