kalerkantho


চপল মাহমুদের তিনটি কবিতা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ মে, ২০১৭ ১৮:৩০



চপল মাহমুদের তিনটি কবিতা

বার্তাবাহক

আমি
কবি নোই
বার্তাবাহক
করি তথ্য প্রচার
এখানে ওখানে
প্রকৃতির কিছু
বিষয় বিষয়ক।

আমি চাই না
খ্যাতি সম্মাননা
চাইনা হতে নন্দিত
তবে ফিরে চাই
মৃত নদীর নাব্যতা,
প্রাণবৈচিত্রের অরণ্য।

আমি চাই
পরিছন্ন নগরী
জানযট শব্দদুষণের
গ্রাস থেকে স্বস্তি
চাই
শিশুর খেলার মাঠ
প্রভাবমুক্ত সংস্কৃতি।

আমি
ফিরে পেতে চাই
শস্য শ্যামল গ্রাম বাংলা
মাছে ভরা দহ বিল
পাখির কলরব
কৃষকের হাসি
বাউলের সুর।

আমি
অবশ্যই চাই
কার্বনমুক্ত বাতাস
দূষণমুক্ত পরিবেশ
ভেজালবিহীন খাদ্য
ফোর্মালিনের নীল বিষ
থেকে মুক্তি।

আমি
শুনিতে পাই
প্রকৃতির চারধারের
ক্রন্দন
সংকট সংকট
মহাসংকট ধ্বনী
খুজি তাই মুক্তির পথ
যে পথ অবরুদ্ধ
যুদ্ধ যুদ্ধ
মহা যুদ্ধ
প্রকৃতি বনাম মানবে
দখল নিধন দূষণের
মহাতাণ্ডব
অপতিরোধ্য
জেনে রেখো
এ যুদ্ধে
মানবের পরাজয়
ভয়ানক।
আমি
কবি নোই
বার্তাবাহক


লোক সংগীত

আপন মনন আত্মচিত্তের
ভাব নগরে আসে প্রেম
মন রাঙাতে
সুর লহরির হরেক তালে
হাজার বছর ধরে
গ্রামবাংলার
পথ জনপদে ঘরে ঘরে
সুখে দুঃখে মানুষের প্রাণ
লোকসংস্কৃতির বিশাল অঙ্গ
বিপুল সমৃদ্ধে ঐতিহ্যবাহী
লোকসংগীত লোক গান
জেনে নেওয়া যাক
এসবের নাম

জারি সারি পল্লীগীতি
ভাওয়াইয়া ভাটিয়ালি
বাউল গান

দেহতত্ত্ব মুর্শিদী বিচার
মারফতি মাইজভাণ্ডারী
পালাগান

লালন হাসন জালাল
পাগলাকালাই
রাধারমণের গান

গম্ভীরা ঘেঁটু লেটো
কিচ্ছা ধামাইল
কবি গান

চট্কা মাগন অষ্টর
ধামের ভাসান ধুয়া
গাজীর গান

যাত্রাপালা ধামালি
মেয়েলি বিয়ের গীত
পালকির গান

বেহুলা-লখিন্দর মণিপুরি
মনসামঙ্গল ভাব কীর্তন
মাদার গান

আছে আরও
আঞ্চলিক
কত কত
গান

বাংলা ঐতিহ্যের
এ সকল
লোকসংগীত
লোকগান
অর্ধ বিলুপ্ত
বাকিটা
বিপন্নপ্রায়
চর্চার অভাবে।


নীরব আগ্রাসন

সবুজ বনে জাল বুনেছে
ধূষর সবুজ
প্রকৃতির চারপাশে
প্রাণহীন শূন্যতা
ফুল ফল পাখি সব উধাও
নেই মায়ামাখা ছায়া
চলছে
নীরব আগ্রাসন।

জমে উঠেছে
বিপন্নতার মহাউত্সব
শিকড় গেড়ে দাঁড়িয়ে
ইউক্যালিপটাস বন।

প্রকৃতির প্রাণে বিষ
ঢুকছে মানব হাতে
বাঁচার জন্য মরণফাঁদে
দিচ্ছে পা একই সাথে।

অল্প জমি অধিক ফসল
কম সময়ে বেশি ফলন
বাড়ছে আকার কমছে স্বাদ
প্রকৃতির চারধারে
জমে উঠছে
শুধুই বিস্বাদ
থেকে থেকে তাই
বিরূপ আচরণ
চলছে
নীরব আগ্রাসন।


মন্তব্য