kalerkantho


কেমন আছেন শেহতাজ

মডেলিং, অভিনয়, গান, ইউটিউব নিয়ে কী দুর্দান্ত সময়ই না কাটিয়েছিলেন! হঠাৎ যেন চুপসে গেলেন। কী হলো মুনিরা হাশেম শেহতাজের? লিখেছেন মীর রাকিব হাসান

৫ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



কেমন আছেন শেহতাজ

নতুন অভ্যাস হয়েছে শেহতাজের। প্রতি রাতে ভৌতিক সিনেমা দেখে তবেই ঘুমাতে যান। সঙ্গে মাকেও ঘুমাতে হয়। বাসার সবাই বিরক্ত তাঁর এমন কর্মকাণ্ডে। সিনেমা দেখবে ভালো কথা, ভয় পাবে কেন? শেহতাজ ঘরকুনো মেয়ে। একেক সময় একেকটা বিষয় তাঁর মাথায় ঢোকে, পরের কয়েকটা দিন সেটা নিয়েই পড়ে থাকেন। কখনো পোশাক ডিজাইন, কখনো পোষা বিড়াল নিয়ে সময় কেটে যায়। এখন তাঁর দুটি বিড়াল। ছিল তিনটি, কিছুদিন আগে কাজিনদের দিয়েছেন একটি। একই বিল্ডিংয়ে থাকে তারা। তিনটি বিড়ালের দেখভালের সময় হয়ে ওঠে না শেহতাজের। এত ব্যস্ততা কী নিয়ে? শোবিজে তো খুবই কম পাওয়া যাচ্ছে এখন? ‘ব্যস্ততা নেই আবার! পড়াশোনা নিয়ে খুব ব্যস্ত। সিএ পড়া শুরু করলাম। কত দিন করতে পারি কে জানে। ভেবেছিলাম শোবিজ ও পড়াশোনা একসঙ্গেই চালাতে পারব। কিন্তু সিএ করে তা সম্ভব নয়। সিদ্ধান্ত এরই মধ্যে নিয়েও ফেলেছি। সিএ ছেড়ে সাধারণ কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হব। নইলে শোবিজে নিয়মিত হতে পারব না’—বললেন শেহতাজ।

অনেকে তো পড়াশোনা আর শোবিজ দুটিই সমান তালে চালাতে পারেন। ‘আমি খুবই অলস’—বলেই হাসলেন। এই আছি এই নেই করে শোবিজে টেকা সম্ভব? ‘ইন্ডাস্ট্রিতে টিকে থাকার কিছু নেই। টিকে থাকতেই হবে এমন কোনো কথা নেই। ভালো কাজ হলে করব, নইলে না’—বললেন তিনি।

গেল ঈদে দু-তিনটি নাটকে দেখা গেছে। সেগুলোরও শুটিং করেছেন অনেক দিন আগে। তাই নামটাও ঠিক মনে করে বলতে পারলেন না।

বিজ্ঞাপনে রয়েছে টুকটাক ব্যস্ততা। জোভানের সঙ্গে জুটি হয়ে করলেন একটি বিজ্ঞাপনচিত্রের শুটিং। কিছুদিনের মধ্যে প্রচারে আসবে। সামনে আরো কিছু কাজ আসছে, সেই আভাসও দিলেন। বাংলাভিশনের একটি সেলিব্রিটি শো উপস্থাপনা করবেন। গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো, টাইটেলে শেহতাজের নাম থাকবে। সোশ্যাল মিডিয়াকে বেইস করে তৈরি হবে অনুষ্ঠানটি। বড় বড় তারকা সেখানে তাঁর অতিথি হয়ে আসবেন। প্ল্যানিং চলছে, সামনেই শুটিং।

গায়িকা শেহতাজের খবর কী? ‘নতুন কোনো খবর নেই। প্রথমত আমি তো নিয়মিত শিল্পী নই। গাইতে পারি তাই গেয়েছি। আর আমার সব গানের ভিডিও বেশ ভালো হয়েছে। শ্রোতা-দর্শকও ভালোভাবেই নিয়েছিল। হুটহাট এমন কিছু করতে চাই না, যার জন্য আবার সমালোচিত হতে হয়’—বললেন শেহতাজ।

বিজ্ঞাপনচিত্র ও নাটকে অভিনয়ের অনেক প্রস্তাব পান শেহতাজ। সেটাই স্বাভাবিক। জানালেন, ইদানীং চলচ্চিত্রে অভিনয়ের প্রস্তাব পাচ্ছেন একের পর এক। কিন্তু চলচ্চিত্র নিয়ে তাঁর কোনো পরিকল্পনাই নেই! ধারাবাহিক নাটকের বেলায় সোজা ‘না’ করে দেন শেহতাজ। চলচ্চিত্র নিয়ে এমন জোর করে ‘না’ বলতে পারলেন না। সময়ের ওপরই ছেড়ে দিতে চান। ভবিষ্যতে হয়তো করতেও পারেন। করলে সুপারহিরোর চরিত্রে অভিনয় করতে চান। অবশ্য ‘পূরণের জন্যই সব স্বপ্ন নয়’—এমন কথায় বিশ্বাস করেন শেহতাজ।

বাসার বারান্দায় দাঁড়িয়ে আকাশ দেখতে দেখতে কথা বলছিলেন। কী দেখেন আকাশে? ‘কিছুই না। এই আকাশ দেখাটাও আমার আরেকটা অভ্যাস।’ সময় পেলেই বই নিয়ে বারান্দায় বসে যান। আকাশ দেখেন।

তিনি যে সব কিছুতে একটু এলোমেলো, নিজেই সেটা স্বীকার করেন। তাঁর সব কিছুই দেখাশোনা করেন মা। বাইরে বা শুটিংয়ে গেলেও চাই মায়ের ছায়া। পর্দায় দেখে যে কেউই বলবে, এই মেয়ে তো বেশ ফ্যাশন সচেতন! অথচ শেহতাজ জানালেন, ফ্যাশনেও রয়েছে তাঁর অবহেলা। ‘ফ্যাশন সচেতন বলে রোজ রোজ পার্লারে যাই না। এমনকি চুল কাটি নিজের ডিজাইনিংয়ে। জিমেও যাই না। তবে ডায়েট করি। ইউটিউব দেখে মাঝেমধ্যে কার্ডিও করি। রূপচর্চা নিয়েও তেমন মাথাব্যথা নেই’—নিজের সম্পর্কে এভাবেই বললেন ‘রাজকুমারী’।

 



মন্তব্য