kalerkantho


লুলিয়ায় মজিল কে

বক্স অফিসের রেসে এগিয়ে থাকা নিয়ে সন্দেহ ছিল। মুক্তির পর তাই উনিশ-বিশ লেগে আছে। ‘রেস ৩’ যত যা-ই আয় করুক, এই ছবির সুবাদে লুলিয়া ভানতুর পেয়েছেন দৌড়ের নতুন ট্র্যাক। লিখেছেন ফয়সল আবদুল্লাহ

৫ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



লুলিয়ায় মজিল কে

তার মেধা নিয়ে সন্দেহ নেই কারো। ১৫ বছর বয়সে আইনের ডিগ্রি নিয়ে আঠারোর মধ্যে টিভির উপস্থাপক হয়ে গিয়েছিলেন। প্রথম পরিচয় মডেল হলেও ‘রেস ৩’-এর ‘সেলফিশ’-এ কণ্ঠ দিয়ে সালমান খানের এই বান্ধবী এখন গায়িকাও। ‘ভাই’-এর ভক্তরা ব্যাপারটা ভালোভাবে না নিলেও সোশ্যাল মিডিয়ায় গানটি ভালোই মাতাচ্ছে। এখন পর্যন্ত ইউটিউবে হিট সাড়ে তিন কোটিরও বেশি। গান হিসেবে ‘সেলফিশ’কে নিয়ে আড়ালে যতই নিন্দার ঝড় চলুক, লুলিয়ার কাছে গানটা স্পেশাল। প্রথম ও বড় কারণ, গানটা সালমান খানের লেখা। গায়িকার মতো গীতিকারেরও যে অভিষেক হলো এই গানে। গানটা যেন গোড়াতেই মুখ থুবড়ে না পড়ে এ জন্য পেছনে রকেট ইঞ্জিনের কাজ করেছেন আতিফ আসলাম। ইউটিউবে ‘সেলফিশ’-এর কমেন্টে তাঁর গুণগানই বেশি।

দ্বিতীয় কারণ গানের কথা। সালমানের তারিফ করে লুলিয়া বলেন, ‘এই গানের কথা এ অঞ্চলের নারীদের জন্য, যারা পরিবারের জন্য নিজের প্রায় সবই বিসর্জন দেন।’ লুলিয়ার মতে, গানটিতে তাদেরই কিছু সময়ের জন্য সেলফিশ তথা স্বার্থপর হতে বলা হয়েছে, যাতে অন্তত নিজের জন্য একটু সময় বের করা যায়। 

গায়কি নিয়ে লুলিয়ার দোষ দেওয়া যাবে না। সাল্লুই তাঁকে ডেকে এনে গাইতে বলেছেন। কয়েক দিন আগে ভারতীয় সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ‘আমি জীবনেও গান গাওয়ার চিন্তা করিনি। কী হবে জানি না। সিনেমায় অভিনয় করার অনেক প্রস্তাব পেয়েছি।’

কিন্তু ওসব নিয়েও ভাবছেন না এই সুপারমডেল। আপাতত সালমানের সঙ্গে ব্যক্তিগত সহকারীর মতোই ঘুরছেন-ফিরছেন। সালমানের বোন অর্পিতার জন্মদিন থেকে শুরু করে ঈদ—এমন কোনো অনুষ্ঠান নেই, যেখানে দুজনকে একসঙ্গে দেখা যাচ্ছে না। খবরে শোনা গেল, সালমান নাকি লুলিয়াকে ‘দাবাং ৩’-এ অভিনয়ের জন্যও চাপাচাপি করছেন। ছড়িয়ে পড়া এসব খবরে চটেছেন সালমানভক্তরাও। ফিল্মিবিটের এক সাংবাদিকের মতে, ‘সালমানের পাঁড় ভক্তরা কেন চটেছেন সেটা জানি। লোকে সালমানকে ভালোবাসে, তবে সেটাকে চূড়ান্ত ভাবা উচিত হবে না তার। সালমানের উচিত সিনেমায় নিজের প্রভাব না খাটিয়ে ক্যারিয়ারের দিকে নজর দেওয়া।’

লুলিয়া বা ডেইজি শাহকে (‘রেস ৩’-এর আরেক চরিত্র) সুযোগ দেওয়া নিয়েই যত গণ্ডগোল। তাঁর মতে, ভক্তদের কথা চিন্তা করলে সালমানকে এখন সেলফিশ হতে হবে। কাজ করতে হবে বেছে বেছে। কাস্টিংয়েও অহেতুক নাক গলানো যাবে না। আর ছবির গল্প হওয়া চাই ‘বজরঙ্গি ভাইজান’ বা ‘সুলতান’-এর মতো।

অবশ্য লুলিয়া এসব সমালোচনার ঊর্ধ্বে রাখতে পেরেছেন নিজেকে। ‘রেস ৩’-এর ‘পার্টি চলে অন’ ও ‘সেলফিশ’  নানা তালিকায় এখনো সদর্পে টিকে আছে বলেই হয়তো। তবে কৌশলে সেলফিশ হওয়ার কায়দাটাও জানা আছে লুলিয়ার। হিন্দুস্তান টাইমসকে বলেছিলেন, ‘যখন আপনি অনেক কিছু একসঙ্গে করতে চাইবেন, তখন আপনার শক্তি ও সামর্থ্য ভাগাভাগি হতে থাকবে। শুরুতে একটা জিনিসের প্রতি নজর দিয়ে সেটাকেই এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা উচিত।’ আর লুলিয়া যদি এখন তাঁর নজর বলিউডেই দিতে চান তাহলে আঁচ করা যায়, বেশ কঠিন সময় অপেক্ষা করছে তাঁর জন্য।



মন্তব্য