kalerkantho

facebook থেকে

মানি হেইস্ট   

২৮ জুন, ২০১৮ ০০:০০



facebook থেকে

মানি হেইস্ট

টোকিও : ব্যাংক ডাকাতিতে সিদ্ধহস্ত। মাথা গরম। ১১ দিন আগে ডাকাতি করে পালানোর সময় তার হাতে এক গার্ড নিহত হয়। তার বয়ফ্রেন্ডও একই সময় মারা যায়। পুলিশ তাকে হন্যে হয়ে খুঁজছে, তার জন্য বিভিন্ন রকম ফাঁদ পাতছে। এমন অবস্থায় এক রহস্যময় লোক টোকিওকে গ্রেপ্তার হওয়ার হাত থেকে বাঁচিয়ে দেয়। কিন্তু বিনিময়ে আরো বিপজ্জনক শর্ত দেয় টোকিওকে।

বার্লিন : এখন পর্যন্ত ২৭টি সফল ডাকাতি করেছে। শান্ত, কুল। কিন্তু একই সঙ্গে নিষ্ঠুর। টোকিওর ভাষায় বার্লিন হলো শান্ত হাঙর, কিন্তু তাকে যদি সুইমিংপুলে ছেড়ে দেওয়া হয় তাহলে সে কিছু করবে না জেনেও আশপাশের সবাই অস্বস্তিতে থাকবে।

মস্কো : সবার তুলনায় বয়স্ক। তালা খোলা বা যেকোনো জায়গায় সুড়ঙ্গ তৈরি করে চুরি বা ডাকাতিতে ওস্তাদ।

ডেনভার : মস্কোর ছেলে। চরম রগচটা। মুখের আগে হাত চলে।

রিও : টেক জিনিয়াস। প্রগ্রামিং, হ্যাকিং, ইলেকট্রনিকস—এসব তার বাঁ হাতের খেল। দলের সবচেয়ে তরুণ সদস্য। অসলো ও হেলসিংকি যমজ ভাই। আগে আর্মিতে ছিল। সব রকম আগ্নেয়াস্ত্র তৈরি বা চালানোতে তাদের দক্ষতা অতুলনীয়।

নাইরোবি : টোকিও ছাড়া দলের একমাত্র মেয়ে। সব সময় হাসিখুশি। নোট, দলিল যেকোনো ধরনের জালিয়াতিতে তার জুড়ি মেলা ভার।

 ছদ্মনামের এই মোস্ট ওয়ান্টেড জিনিয়াসদের এক করে ইউরোপের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ডাকাতির পরিকল্পনা করে ‘প্রফেসর’। প্রফেসর কে, তার উদ্দেশ্য কী কেউ জানে না। ইনফ্যাক্ট, তারা কেউই একজন আরেকজনের সম্পর্কে কিছুই জানে না। এমনকি আসল নামও না। লোকালয় থেকে আড়ালে ছয় মাস পুঙ্খানুপুঙ্খ প্রশিক্ষণের পর তারা শুরু করে অভিযান। লক্ষ্য ইউরো তৈরির করপোরেশন। কিন্তু সব কিছুই কি আর প্ল্যানমাফিক হয়?

এটা আমার দেখা অন্যতম সেরা সিরিজ। ‘মানি হেইস্ট’ নিয়ে এমন ইউনিক কাহিনির টিভি শো আর দুটি হয়নি। কাহিনি বুলেটের গতিতে এগোতে থাকে। এক সেকেন্ডও পর্দা থেকে চোখ সরানো যায় না। ডাকাতি, হোস্টেজ সিচুয়েশন, নিজেদের কোন্দল—এসব চলার সঙ্গে সঙ্গেই এদের সবার ব্যাকস্টোরি, পরিচয়, আসল উদ্দেশ্য, গত ছয় মাসে পরস্পরের সঙ্গে সম্পর্ক প্রকাশিত হতে থাকে। তবে শুধু এরাই কিন্তু মূল চরিত্র নয়। জিম্মিদের আগের কাহিনি, পুলিশ অফিসারের ব্যক্তিগত ক্রাইসিস সমান তালে চলতে থাকে। আর প্রতিটি পর্ব যেভাবে ক্লিফহ্যাংগার দিয়ে শেষ হয়, তাতে পরের পর্ব না দেখে থাকার কোনো উপায়ই নেই।

তাজিম রহমান নিশীথ

সিরিয়ালখোর গ্রুপের পোস্ট [ঈষৎ সংক্ষেপিত]

 



মন্তব্য