kalerkantho


সেরা অভিনেতা

কেয়ারটেকার থেকে সেরা

২৪ মে, ২০১৮ ০০:০০



কেয়ারটেকার থেকে সেরা

মার্সেলো ফন্তে

ম্যাটিও গ্যারোনের ‘ডগম্যান’-এ অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেতার পুরস্কার পেয়েছেন মার্সেলো ফন্তে। মর্যাদাপূর্ণ চলচ্চিত্র উৎসবে পুরস্কার পাওয়া তো দূরের কথা, সিনেমায় অভিনয়টাও ছিল তাঁর জন্য কিছুদিন আগে অসম্ভব কল্পনা। ফন্তের সিনেমায় আসাটা এতটাই নাটকীয় যে এটা নিয়েও একটা সিনেমা হয়ে যায়; যদিও তরুণ বয়সে রোমে এসেছিলেন সিনেমায় অভিনয়ের স্বপ্ন নিয়েই। ছবির সেটে গিয়ে গুল ঝাড়তেন, ‘অমুক পরিচালক পাঠিয়েছে’, ‘ছবিতে নিতে হবে’ ইত্যাদি ইত্যাদি। কথায় চিঁড়া ভেজেনি। শিল্পীদের কস্টিউমের দেখাশোনার কাজ করেই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে।

‘ডগম্যান’ সিনেমার পরিচালক ম্যাটিও গ্যারোনের সঙ্গে দেখা হওয়ার ঘটনাটাও বেশ মজার। গ্যারোন তাঁর মঞ্চনাটকের একটি চরিত্রের জন্য একটি পুনর্বাসনকেন্দ্রে গিয়েছিলেন, যেখানে সাবেক কয়েদিরা থাকে। সেখানকার কেয়ারটেকার ছিলেন ফন্তে। সুযোগ মিলে গেল মঞ্চনাটকে। এতেই বাজিমাত। ফন্তের অভিনয়ে পরিচালক এতটাই মুগ্ধ হয়ে গেলেন যে তাঁর ‘গোমরাহ’ সিনেমায় সুযোগ দিলেন; যদিও সেটা ছিল ছোট একটা চরিত্র। এরপর ‘ডগম্যান’-এ ফন্তেকে নিলেন গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে। ছবিতে কুকুরের দেখভাল করে এমন এক চরিত্র করেছেন ফন্তে। পর্দায় চরিত্রটি ঠিকভাবে ফুটিয়ে তুলতে তিন মাস একটি কুকুরের পার্লারে থেকেছেন! কিভাবে কুকুরদের সঙ্গে মানিয়ে নিতে হয়, দেখভাল করতে হয় সেসব শিখেছেন মন দিয়ে।

সিনেমাটি একটি ছোট শহরতলির গল্প। বেঁচে থাকার জন্য সেখানকার মানুষ কিভাবে অপরাধজগতে প্রবেশ করছে, অন্ধকারে হারিয়ে যাচ্ছে সেটাই উঠে এসেছে। এ গল্পেরই প্রধান চরিত্র মার্সেলো। দেখতে সরল-সোজা, সবার সঙ্গে ঠিক মানিয়ে চলতে পারে না। এই ‘অসামাজিক’ মার্সেলো পরে কিভাবে অবৈধ মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে সেটাই দেখানো হয়েছে ছবিতে। মার্সেলোর চরিত্রে ফন্তের অভিনয় দেখে মুগ্ধ পরিচালক গ্যারোন তো তাঁকে নতুন দিনের ‘বাস্টার কিটোন’ তকমা দিয়েছেন।



মন্তব্য