kalerkantho


বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভের ৪০ বছর

১৯৭৮ সালের ১৭ মে যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভ। নানা চড়াই-উতরাই পার করে চার দশক পূর্ণ হলো আজ। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই দিনে ফিল্ম আর্কাইভ নিয়ে পূর্ণ পৃষ্ঠার আয়োজন। লিখেছেন সুদীপ্ত সাইদ খান। ছবি তুলেছেন কাকলী প্রধান

১৭ মে, ২০১৮ ০০:০০



বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভের ৪০ বছর

এভাবেই আগারগাঁওয়ের আর্কাইভে সংরক্ষিত চলচ্চিত্রের রিল

চার ভবনে ৪০ বছর

১৯৭৮ সালের ১৭ মে ধানমণ্ডির শংকরের একটি ভাড়া বাড়িতে এ কে এম আব্দুর রউফের নেতৃত্বে যাত্রা শুরু হয় ফিল্ম আর্কাইভের। স্থানস্বল্পতার কারণে সেখানে বেশি দিন কার্যক্রম চালানো সম্ভব হয়নি। ১৯৮৫ সালে আর্কাইভ স্থানান্তরিত হয় গণভবনে। এখানকার ৩ নম্বর ব্লকে দুটি ফ্লোর নিয়ে কার্যক্রম চালায় ফিল্ম আর্কাইভ। ১৯৯৮ সালে আবার স্থান পরিবর্তন। এবার কলেজগেটের একটি ভাড়া বাড়িতে। এখানেও দুটি ফ্লোর বরাদ্দ পায় আর্কাইভ। ২০০৮ সালে তৃতীয়বারের মতো ফিল্ম আর্কাইভ স্থানান্তরিত হয় শাহবাগের বেতার ভবনে। ২০১৭ সালে নতুন ভবন নির্মাণের আগ পর্যন্ত বেতার ভবনের একটি ফ্লোরে চলে কার্যক্রম।

 

কী আছে আগারগাঁওয়ের নতুন ভবনে?

২০১৭ সালের জুন মাসে বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভ পুরোপুরি স্থানান্তরিত হয়ে আগারগাঁও চলে আসে। ১ দশমিক ১২ একর জমির ওপর নির্মিত সাততলা ভবনটিতে রয়েছে প্রশাসনিক কার্যক্রম, ফিল্ম সংরক্ষণের জন্য ভল্ট, ৫০০ আসনের অডিটরিয়াম, ৩০০ আসনের সিনেমা হল, ১২০ আসনবিশিষ্ট সেমিনার হল। রয়েছে ডুপ্লেক্স লাইব্রেরি, ডিজিটাল ল্যাব, কারিগরি বিভাগসহ নানা কিছু।

যেভাবে ফিল্ম সংরক্ষণ করা হয়...

প্রযোজক-পরিচালক ও সিনেমাসংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে বিনা মূল্যে চলচ্চিত্র সংগ্রহ করেন আর্কাইভের নিজস্ব সংগ্রাহকরা। অনেক সময় বাজার থেকে সিডি বা ভিসিডি কিনেও সংরক্ষণ করা হয়। তিনটি ফরম্যাটে সংরক্ষণ করা হয় চলচ্চিত্র—অ্যানালগ, ডিজিটাল ও ডিভিক্যাম। প্রথমেই চেক করা হয় ছবিটির রিল/সিডি ঠিক আছে কি না। এর জন্য রয়েছে চেকিং মেশিন। এরপর নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা হয়। আর্কাইভে রয়েছে মোট ছয়টি ভল্ট। ছবির ধরন, সিডি বা রিলের অবস্থা বিবেচনায় এনে তা নির্দিষ্ট তাপমাত্রার ভল্টে রাখা হয়। 

সিডি, ডিভিডি, বেটাক্যাম, ডিভিক্যাম, ভিএইচএস, সিনেমার পোস্টার ও ফটোসেট রাখা হয় ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার ভল্টে। ৮ ও ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের দুটি ভল্টে সংরক্ষণ করা হয় সাদাকালো ছবি। রঙিন ছবি, প্রিন্ট, নেগেটিভ ও ডিউপ নেগেটিভ সংরক্ষণ করা হয় জিরো, মাইনাস ৪ ও মাইনাস ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার তিনটি ভল্টে। আর্কাইভের মহাপরিচালক জানান, এই ভল্টগুলোতে ছবি সংরক্ষণ করলে ৫০০ বছর পর্যন্ত তা সচল রাখা সম্ভব।



মন্তব্য