kalerkantho


ধ্বংসের সূচনা

‘এক্স মেশিনা’ দিয়ে নারীকেন্দ্রিক চলচ্চিত্রকে নতুন মাত্রা দিয়েছিলেন অ্যালেক্স গারল্যান্ড। এবার তিনি আসছেন ‘অ্যানিহিলেশন’ নিয়ে। আগামীকাল মুক্তির অপেক্ষায় থাকা সিনেমাটি নিয়ে লিখেছেন হাসনাইন মাহমুদ

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ধ্বংসের সূচনা

জেফ ভ্যান্ডারমিরের ‘সাউদার্ন রিচ ট্রিলজি’র প্রথম পর্ব ‘অ্যানিহিলেশন’ প্রকাশের পর বিশ্বজুড়ে প্রবল জনপ্রিয়তা পায়। হরর ও কল্পবিজ্ঞানের মিশেলে রচিত উপন্যাসটি এবার রুপালি পর্দায়। ‘এক্স মেশিনা’ খ্যাত পরিচালক অ্যালেক্স গারল্যান্ড।

চলচ্চিত্রটির কাহিনি শুরু হয় ‘অন্য রকম’ এক এলাকায় এক সেনাদলের প্রবেশের মাধ্যমে, যেখানে রহস্যময় দুর্ঘটনায় মাত্র একজন সেনা প্রচণ্ড আহত অবস্থায় ফিরে আসতে পারে। তাকে বাঁচাতে স্ত্রী আরো পাঁচ নারী বিজ্ঞানী নিয়ে প্রবেশ করে প্রকৃতির স্বাভাবিক নিয়ম না মানা সেই অঞ্চলে, মুখোমুখি হয় এক ভয়ংকর অজানা বিপদের। তারকাবহুল এ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন নাটালি পোর্টম্যান, অস্কার আইজ্যাক প্রমুখ।

‘এক্স মেশিনা’র মতো এ চলচ্চিত্রেও অ্যালেক্স গারল্যান্ডের হাতে কল্পবিজ্ঞানের মোড়কে নারীত্বের অসাধারণ এক রূপ প্রকাশ পাবে বলেই চলচ্চিত্রবোদ্ধাদের ধারণা। মুখ্য চরিত্রে রূপদানকারী অস্কারজয়ী নাটালি পোর্টম্যানও তাঁর নারী সহশিল্পীদের সরব উপস্থিতি নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত, ‘এই ছবিতে অভিনয়ের সবচেয়ে মজার অভিজ্ঞতা হলো, আমরা শুটিং শেষে তাঁবুতে সবার সঙ্গে আড্ডা দিতাম। এটা দারুণ ব্যাপার ছিল। সবাই নিজের সেরাটা দিয়েছে। আমার ক্যারিয়ারে অবশ্যই এই চলচ্চিত্র ভিন্ন মাত্রা যোগ করবে।’

অস্কার আইজ্যাকও বেজায় খুশি ‘এক্স মেশিনা’র পর আবারও গারল্যান্ডের ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতে পেরে, ‘ওর খুঁটিনাটি দিকে লক্ষ্য রাখার প্রবণতাই চলচ্চিত্রকে জীবন্ত রূপ দেয়। এটাতেও তার ব্যতিক্রম হয়নি।’

মজার ব্যাপার, ছবির গুরুত্বপূর্ণ দুই চরিত্র করা নাটালি পোর্টম্যান ও অস্কার আইজ্যাক দুজনেই ‘স্টার ওয়ারস’ ছবিতে কাজ করেছেন। প্রথমজন কাজ করেছেন প্রিক্যুয়েল ট্রিলজিতে, পরেরজন সিক্যুয়েল ট্রিলজিতে। এই দুই তারকার সঙ্গে ছবিতে আরো অভিনয়ের কথা ছিল জুলিয়ান মুর ও টিলডা সুইনটনের। কিন্তু নানা কারণে তাঁদের দেখা যায়নি।

মুক্তির আগেই চলচ্চিত্রটিকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হচ্ছে এশিয়ান চরিত্রগুলোকে ককেশিয়ান চরিত্রে রূপান্তর করায়। সমালোচকরা একে হলিউডের বর্ণবাদের আরেকটি উদাহরণ হিসেবেই দেখছে। কিন্তু এ বিতর্কে একেবারেই কান দিতে নারাজ পরিচালক। তিনি বলেন, ‘এর পেছনে অন্য কোনো উদ্দেশ্য ছিল না, ছিল না প্রযোজকদের কোনো চাপও। আমি সেসব অভিনেতা-অভিনেত্রীকেই নিয়েছি যাঁদের বাছাইয়ের সময় পছন্দ হয়েছে কিংবা আগে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে। সেভাবেই বইয়ের চরিত্রগুলোকে নিজের মতো সাজিয়ে নিয়েছি।’


মন্তব্য