kalerkantho


আড়ালের একজন

হালে বলিউড অভিনেত্রীদের বিদেশি সিনেমায় অভিনয় নিয়ে কত মাতামাতি, অথচ আরো এক দশক আগে থেকেই আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্রে নিয়মিত মুখ তন্নিষ্ঠা চ্যাটার্জি। ‘মুনসুন শুটআউট’ মুক্তি উপলক্ষে এই বাঙালি অভিনেত্রীকে নিয়ে লিখেছেন লতিফুল হক

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



আড়ালের একজন

উল্লেখযোগ্যসংখ্যক আন্তর্জাতিক সিনেমায় অভিনয় করার পরও সেভাবে ডাক পাননি নিজের ভাষা বাংলা সিনেমায়। কারণটা অবশ্য নিজেই জানেন না তন্নিষ্ঠা চ্যাটার্জি, ‘হয়তো পরিচালকরা ভাবেন মুম্বাই থাকি বলে বাংলা সংস্কৃতির কিছুই জানি না।’ অথচ এই তন্নিষ্ঠা ২০০৬ সালে বাংলা সিনেমা ‘বিবর’ করেছেন। পুরস্কারপ্রাপ্ত এই ছবিতে নীতা চরিত্রে সাহসী উপস্থিতি আলোচিত হয়েছিল বেশ।

তন্নিষ্ঠার সঙ্গে অবশ্য বেশ পুরস্কারযোগ আছে। প্রথম ছবি ‘স্বরাজ’-এ ছিলেন প্রতিবন্ধী মেয়ে। পেয়েছিলেন ভারতের জাতীয় পুরস্কার। অভিনেত্রীর আন্তর্জাতিক পরিচিতি অবশ্য আরো পরে ২০০৫ সালে, জার্মান সিনেমা ‘শ্যাডোজ অব টাইম’ দিয়ে। ছবিতে শৈল্পিক পারফরম্যান্স নজর কাড়ে দেশ-বিদেশে। বার্লিন, টরন্টোর মতো গুরুত্বপূর্ণ চলচ্চিত্র উত্সবে প্রদর্শিত হয়েছিল ছবিটি। তাঁর আরেক ছবি ভারত-ফ্রান্স যৌথ প্রযোজনার ‘হাওয়া আনে দে’ দেখানো হয় বার্লিন আর ডাবলিন চলচ্চিত্র উত্সবে। এসব সাফল্যকে ছাড়িয়ে যায় ‘ব্রিকলেন’। মনিকা আলীর উপন্যাস অবলম্বনে লন্ডনপ্রবাসী সিলেটি গৃহবধূ নাজনীন চরিত্রে দারুণ অভিনয় করেন, যা তাঁকে মর্যাদাপূর্ণ ব্রিটিশ ইনডিপেনডেন্ট ফিল্ম অ্যাওয়ার্ডসে সেরা অভিনেত্রীর মনোনয়ন এনে দেয়। অভিনেত্রী নিজেও মনে করেন, এই চরিত্রটি তাঁর ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্ট, ‘এটা একটা অসাধারণ অভিজ্ঞতা ছিল। নাজনীন হয়ে উঠতে ব্রিকলেনের সিলেটি পরিবারগুলোর সঙ্গে অনেক দিন থেকেছি। তাদের জীবন, সংস্কৃতি জানার এই সুযোগ আমার জন্য বিরাট কিছু। মন দিয়ে ওদের খাওয়া, রান্না, কথা বলা দেখতাম। তাদের মধ্যে এমন অনেকেই ছিল যাদের গল্প ঠিক নাজনীনের মতোই।’

ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে না হলেও ইদানীং বলিউডের বেশ কিছু সিনেমা করছেন তন্নিষ্ঠা। বদলে যাওয়া বলিউডের গল্পনির্ভর সিনেমা তৈরির চল শুরু হওয়া তাঁর জন্য ইতিবাচক হয়েছে। তন্নিষ্ঠার অভিনয়ের আরেক দিক সাহসিকতা। চরিত্রের প্রয়োজনে পর্দায় সমকামী হয়েছেন, টপলেস হতেও দ্বিধা করেননি। ‘গুলাব গ্যাং’, ‘পার্চড’ থেকে ব্রেট লির সঙ্গে ‘আনইন্ডিয়ান’ তন্নিষ্ঠার বৈচিত্র্য আর সাহসিকতারই উদাহরণ। নয় নয় করে ১৫ বছরের ক্যারিয়ার হলেও তন্নিষ্ঠা মনে করেন, এখনো অনেক কিছু করার বাকি। নতুন ধরনের বলিউডি ছবিতে আরো বেশি কাজ করতে চান তিনি। পরিচালকরাও সম্ভবত সেটাই চান। সে জন্যই নিয়মিত খবরে থাকছেন অভিনেত্রী। মাঝে খবর হয়েছিলেন অবশ্য অন্য কারণে। এক কমেডি শোতে গায়ের রং নিয়ে রসিকতা করায় বেজায় চটেছিলেন। বেরিয়ে এসেছিলেন অনুষ্ঠান থেকে। সে সময় বর্ণবৈষম্য নিয়ে তাঁর সোচ্চার কণ্ঠ প্রশংসিত হয়েছিল বলিউডে।

আগামীকাল মুক্তির অপেক্ষায় অভিনেত্রীর সর্বসাম্প্রতিক ছবি ‘মুনসুন শুটআউট’, যেখানে তাঁর সঙ্গে আরো আছেন নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী ও বিজয় ভার্মা।


মন্তব্য