kalerkantho


পূজার ছয় ছবি

এবারের পূজায় পশ্চিম বাংলায় মুক্তি পাচ্ছে ছয়টি ছবি। যার মধ্যে ‘ইয়েতি অভিযান’ অন্যতম। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘কাকাবাবু’ অবলম্বনে নির্মিত সৃজিত মুখার্জির ছবিতে আছেন দুই বাংলাদেশি তারকাও—ফেরদৌস ও বিদ্যা সিনহা মিম। ছবিটি নিয়ে লিখেছেন লতিফুল হক। সঙ্গে থাকছে পূজায় মুক্তি পাওয়া অন্য ছবিগুলোর কথাও

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



পূজার ছয় ছবি

বলো দুর্গা মায়কি

ইয়েতি অভিযান
২০১৩ সালে সৃজিত মুখার্জি পরিচালিত ‘কাকাবাবু’ সিরিজের প্রথম ছবি ‘মিশর রহস্য’ মুক্তি পায় পূজায়, দারুণ ব্যবসা করে। তখনই পরিচালক ঘোষণা দিয়েছিলেন দুই বছর পর পর পুজোয় হাজির হবেন ‘কাকাবাবু’কে নিয়ে।

কিন্তু পরেরটি নিয়ে আসতে চার বছর লেগে গেল! কারণ সব প্রস্তুতি নেওয়ার পরও ২০১৫ সালে দিল্লিতে সড়ক দুর্ঘটনায় পড়েন সৃজিত, ফল ছবি পিছিয়ে যায়। পরে ছবির পাত্র-পাত্রীতেও পরিবর্তন হয়েছে। বাংলাদেশের সঙ্গে যৌথ প্রযোজনায় তৈরির ঘোষণা দেওয়া হয় [যদিও মুক্তির আগেই ছবিটি থেকে সরে এসেছে বাংলাদেশের প্রযোজনা সংস্থা জাজ মাল্টিমিডিয়া]। ছবিটিতে যুক্ত হন বাংলাদেশের ফেরদৌস আহমেদ ও বিদ্যা সিনহা মিম। ছবির মূল দুই চরিত্র ‘কাকাবাবু’ ও ‘সন্তু’ অবশ্য থাকছে আগের মতোই। যেখানে দেখা যাবে প্রসেনজিত্ চ্যাটার্জি ও আরিয়ান ভৌমিককে। ছবিটি তৈরি হয়েছে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘পাহাড়চূড়ায় আতঙ্ক’ উপন্যাস থেকে। মূল গল্পের ঘটনা নেপালে মাউন্ট এভারেস্টের বেস ক্যাম্পে ছিল। কিন্তু সেখানে শুটিংয়ের অনুমতি না মেলায় পরিচালক পাড়ি জমান সুইজারল্যান্ডে। আগেরটির মতো এবারেরটিও ট্রেলারেই বাজিমাত করেছে। তবে আগে শোনা গিয়েছিল থ্রিডি ফরম্যাটে হবে ‘কাকাবাবু’। প্রথম বাংলা থ্রিডি ছবি নিয়ে রোমাঞ্চিত ছিল দর্শকরা। কিন্তু শেষ মুহূর্তে সিদ্ধান্ত বদল হয়। ‘আসলে থ্রিডি করলে বাজেট অনেক বেড়ে যেত। আরেকটি বড় সমস্যা পশ্চিম বাংলার অনেক প্রেক্ষাগৃহই থ্রিডি ছবি প্রদর্শনের উপযোগী নয়। তবে কাকাবাবু ভক্তদের বলতে চাই, সিরিজের পরের ছবি অবশ্যই থ্রিডি হবে। যেটা নিয়ে ভারতের বাইরে আরো বেশি প্রচারণা চালানো হবে’, বলেন সৃজিত। শুটিং সুইজারল্যান্ডে হলেও গল্পের প্রেক্ষাপট নেপালই থাকছে। দেখা যাবে এভারেস্ট অভিযানে গিয়ে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হন বিখ্যাত এক পর্বতারোহী। যে রহস্যের খোঁজে মাঠে নামে কাকাবাবু।  আগের ছবিটি সবাই বেশ পছন্দ করেছে, কাকাবাবু হিসেবে প্রসেনজিতের প্রশংসাও হয়েছে।  কিন্তু তার পরও সিরিজের এবারের ছবিটা নিয়ে বেশ চিন্তিত ছিলেন ‘কাকাবাবু’ ওরফে প্রসেনজিত্, ‘মূল চ্যালেঞ্জ ছিল ক্রাচ হাতে বরফের ওপর দিয়ে হাঁটা।  প্রায় অসম্ভব একটা ব্যাপার, যেকোনো মুহূর্তে বিপদের আশঙ্কা। এটা নিয়ে খুব ভয়ে ছিলাম। শেষ পর্যন্ত মোটামুটি ভালোয় ভালোয় সব হয়েছে। ’

ইয়েতি অভিযান
চলচ্চিত্র সার্কাস
এ বছর কলকাতার হাতে গোনা যে কটি ছবি ব্যবসাসফল হয়েছে, মৈনাক ভৌমিকের ‘বিবাহ ডায়রিজ’ এর মধ্যে অন্যতম। পরিচালক তাই নতুন ছবি ‘চলচ্চিত্র সার্কাস’ নিয়ে আশাবাদী। ছবির গল্প ব্যর্থ পরিচালক সূর্যকে নিয়ে। পর পর ছবি ব্যর্থ হওয়ায় যে সিনেমাপাড়ার ভেতরের গল্প নিয়ে ছবি করতে চায়। ‘এটা চলচ্চিত্রের নানা গসিপ নিয়ে ছবি’, বলেন মৈনাক। ছবিতে সূর্য চরিত্র করেছেন ঋতিক চক্রবর্তী। আরো আছেন পাওলি দাম, তনুশ্রী চক্রবর্তী, সুদীপ্তা চক্রবর্তী, রুদ্রনীল ঘোষ প্রমুখ।

ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ
কয়েক বছর ধরে পূজায় টানা ব্যোমকেশ বানিয়ে যাচ্ছেন অঞ্জন দত্ত। মোটাদাগে তাঁর পরিচালনার ক্যারিয়ারে এই সিরিজই একমাত্র লাভের মুখ দেখেছে। এবার তিনি হাজির হচ্ছেন ‘ব্যোমকেশ ও অগ্নিবাণ’ নিয়ে। শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের দুটি লেখা ‘উপসংহার’ ও ‘অগ্নিবাণ’ মিলিয়ে তৈরি হয়েছে ছবিটি। আগের ব্যোমকেশগুলো ব্যবসাসফল হলেও সমালোচনা ছিল কম বাজেটে ব্যোমকেশকে দিয়ে প্রায় ঘরে বসেই রহস্যের সমাধান করেছেন পরিচালক। পরিচালক বলছেন এবার দেখা যাবে নতুন ব্যোমকেশকে, ‘এত দিন ব্যোমকেশের মধ্যে যে ভিজ্যুয়ালটা চাইছিলাম, সেটা এখানে করতে পেরেছি। দুটো গল্প, বাজেটও বেশি। এখানে ব্যোমকেশ শুধু ঘরের মধ্যে বসে সিগারেট খেয়ে মিস্ট্রি সলভ করে না। ’

ককপিট
১৯৭৮, ১৯৮২, ১৯৯৬ ও ২০১০ সালে চারটি আলাদা বিমান দুর্ঘটনায় মারা যায় প্রায় ৬০০ মানুষ। এই চার দুর্ঘটনার নির্যাস নিয়েই ‘ককপিট’। পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়। প্রধান চরিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি ছবি প্রযোজনাও করেছেন দেব। ‘চ্যাম্প’-এর পর এটা তাঁর দ্বিতীয় প্রযোজিত ছবি। আগেরটির মতো এ ছবিতেও তাঁর নায়িকা রুক্ষিণী মিত্র। দেবের প্রেমিকা হিসেবে যাঁকে নিয়ে বাজারে গুজব। এ ছাড়া ছবিতে আছেন কোয়েল মল্লিক ও প্রসেনজিত্ চ্যাটার্জি। আছেন বাংলাদেশের রোশান ও নাদের চৌধুরী। ছবির গবেষণা এবং চিত্রনাট্যে সাহায্য করেছেন ভারতীয় বিমানবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন রঞ্জন নন্দী। দেব যাঁর কাছে দুই মাস বিমান চালনার প্রশিক্ষণও নিয়েছেন। কলকাতা, অণ্ডাল ও মুম্বাই বিমানবন্দরে শুটিং হয়েছে ছবিটির।

প্রজাপতি বিস্কুট
আলোচিত পরিচালক শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় ও নন্দিতা রায় পরিচালিত কোনো ছবি নেই পূজায়। তবে আছে তাঁদের প্রযোজিত ‘প্রজাপ্রতি বিস্কুট’। গায়ক, পরিচালক অনিন্দ্য চ্যাটার্জির দ্বিতীয় ছবি এটি। ‘ওপেনটি বায়োস্কোপ’-এর সাফল্যের পর দ্বিতীয় ছবি নিয়ে আসছেন তিনি। এই ছবি দিয়েই যাত্রা শুরু হচ্ছে ঈশা সাহা ও আদিত্য সেনগুপ্তর। ছবির গল্প এক দম্পতিকে নিয়ে, যাদের ছেলে-মেয়ে হচ্ছে না। অনিন্দ্যর আগের ছবির মতো এই ছবির গানও এর মধ্যেই সুপারহিট।

বলো দুর্গা মায়কি
অঙ্কুশ হাজরা আর নুসরাত জাহানের ছবিতে আছে পূজা নিয়ে গান। ফল, এর মধ্যেই গান দিয়েই আলোচিত ছবিটি। পূজার অন্য ছবির তুলনায় এটা ব্যতিক্রম—একেবারেই আমজনতার জন্য তৈরি। মনে করা হচ্ছে, গ্রাম-মফস্বলে ভালো ব্যবসা করবে রাজ চক্রবর্তীর ছবিটি।


মন্তব্য