kalerkantho


এক যুগ পর পর্দায় পপির ঈদ

ঈদে মুক্তি পেয়েছে জাহাঙ্গীর আলম সুমনের ‘সোনাবন্ধু’। পপির ভাষ্য মতে, এই ছবির মাধ্যমে এক যুগ পর ঈদে পর্দায় হাজির হয়েছেন তিনি। পপিকে নিয়ে লিখেছেন সুদীপ কুমার দীপ, ছবি তুলেছেন কাকলী প্রধান

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



এক যুগ পর পর্দায় পপির ঈদ

এবারের ঈদের দিনটা দারুণ কেটেছে। নিজের হাতে রান্না করেছেন।

বাসায় চলচ্চিত্রসংশ্লিষ্ট অনেককেই দাওয়াত দিয়েছিলেন। সবার সঙ্গে ভাগাভাগি করেছেন ঈদের আনন্দ। এর মধ্যেই এসেছে একের পর এক ফোন। সবাই ‘রোশনী’র প্রশংসায় পঞ্চমুখ। ‘সোনাবন্ধু’ ছবিতে রোশনী নামের বিধবা চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। আর সেই অভিনয় নাকি দর্শকদের মনে দাগ কেটেছে। অবশ্য গত এক যুগের ঈদের সঙ্গে এবারের ঈদের পার্থক্য পপির কাছে অনেক। “এক যুগ তো হবেই! এর মধ্যে আমার কোনো ছবিই ঈদে মুক্তি পায়নি। ‘মেঘের কোলে রোদ’, ‘গঙ্গাযাত্রা’, ‘রানী কুঠির বাকি ইতিহাস’, বিদ্রোহী পদ্মা’, ‘গার্মেন্টস কন্যা’, ‘চার অক্ষরের ভালোবাসা’, ‘দুই বেয়াইয়ের কীর্তি’—কোনোটিই ঈদে মুক্তি পায়নি”, বললেন পপি।

এক যুগ ঈদে ছবি মুক্তি না পাওয়ার কারণ কী? “সবটা তো আর বলতে পারব না। মাঝখানে তো আমাকে ‘মাইনাস ফর্মুলা’য় ফেলা হয়েছিল। যখন একের পর এক হিট ছবি উপহার দিচ্ছিলাম, তিন-তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়ে গেলাম, ঠিক তখনই শত্রুদের টার্গেটে পড়ে গেলাম। ‘পপি ঠেকাও’ ষড়যন্ত্র শুরু হয়ে গেল। এর মধ্যে চলচ্চিত্রে আবার চলে এলো একনায়কতন্ত্র। কে হবেন নায়িকা, কে হবেন গায়িকা, এমনকি পরিচালক কে হবেন—তাও সেই একনায়কই নির্ধারণ করেন। তাঁর সঙ্গে আমার অতটা সখ্য নেই। ফলে যা হওয়ার তাই হলো। আমি দিনকে দিন হারিয়ে যেতে থাকলাম!”

‘সোনাবন্ধু’ ছবিতে পপির সঙ্গে আছেন পরীমণি ও ডি এ তায়েব। পপি জানালেন, ৪২টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাওয়া ছবিটি নাকি ঈদের দিন থেকে ভালোই চলছে। শুধু তাই নয়, কাছের অনেকেই নাকি পপিকে বলছেন, এই ছবি দিয়ে আবারও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেতে পারেন তিনি। আশায় বুক বেঁধেছেন পপিও।

বিগত বছরগুলোতে ঈদে বড় পর্দায় না থাকলেও ছোট পর্দায় ঠিকই ছিলেন। প্রতি ঈদেই দুই-একটি নাটক বা টেলিছবি, এমনকি ঈদ অনুষ্ঠানেও হাজির হতে দেখা গেছে তাঁকে। এবারও বেশ কিছু অনুষ্ঠানে টিভি পর্দায় হাজির হচ্ছেন। সিনেমা নিয়ে ভবিষ্যত্ পরিকল্পনা কী? “পরিকল্পনা ছাড়া চলি না। এর মধ্যে একজন পরিচালক আমাকে অনেক টাকার বিনিময়ে প্রস্তাব দিয়েছেন গল্প ও মানহীন একটি ছবিতে অভিনয় করার জন্য। রাজি হইনি। টাকার অঙ্কটা লোভনীয় ছিল, তবুও রাজি হইনি। এমন তো নয় যে আমি বসে আছি! খুব শিগগির শুটিং শুরু করব ‘রাজ পথে’র। এখানে আমার নায়ক জায়েদ খান। রিয়াজ ভাইয়ের সঙ্গেও একটি ছবি চূড়ান্ত হয়ে আছে”, বললেন পপি।

বেশ কিছু নির্মাণাধীন ছবিও আছে—‘দুই নয়ন’, ‘পৌষ মাসের পিরিতি’, ‘বিয়ে হলো বাসর হলো না’ ও ‘দ্য ডিরেক্টর’। সেগুলো নিয়ে কী ভাবছেন এই নায়িকা? কবে নাগাদ শেষ হবে ছবিগুলো? ‘আমি এই বিষয়ে জানি না। এটা প্রযোজক-পরিচালকদের ব্যাপার।   ছবিগুলোর প্রতি আমার আন্তরিকতা ও ভালোবাসা আগেও যেমন ছিল, এখনো আছে। ছবিগুলোর জন্য আমাকে ফের দরকার হলে পরিচালকদের ডাকে নিশ্চয়ই সাড়া দেব’, বলেন পপি।


মন্তব্য