kalerkantho


ফিরেছেন সাবিলা

মাদকাসক্তির গুজব ওঠার পর মার্চে হঠাত্ করেই আমেরিকা চলে গিয়েছিলেন। এরপর প্রকাশিত হলো ভুয়া ‘ব্যক্তিগত ভিডিও’। রাগে-অভিমানে আড়ালেই রইলেন কিছুদিন। অবশেষে ফিরেছেন এই মডেল-অভিনেত্রী। সাবিলা নূরকে নিয়ে লিখেছেন মাহতাব হোসেন ছবি তুলেছেন মং ছেন

১৭ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



ফিরেছেন সাবিলা

মার্চের ৫ তারিখে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডার একটি ছবি পোস্ট করেন ফেসবুকে। এরপর একেবারেই উধাও। কোথাও নেই সাবিলা নূর। শোবিজে তাঁর কাছের বন্ধুদের কাছেও কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছিল না। শুরু হয় গুঞ্জন।

পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে সাবিলার মা মুসরাত জাহান জানান, ২২ মার্চ আমেরিকার উদ্দেশে দেশ ছেড়ে গেছেন। ডালাসে সাবিলার বড় বোন থাকেন, সেখানেই গেছেন। কবে ফিরবেন? উত্তরে জানান, তিন-চার মাস তো লাগবেই। মা মুসরাত জাহানের কথাই ঠিক হলো। ৩ আগস্ট ঢাকা ফিরেছেন সাবিলা নূর। ফিরেই ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন ঈদের নাটকের শুটিংয়ে।

হঠাত্ করে কেন এই বিদেশ গমন? সাবিলা বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছিলাম ফিল্ম মেকিংয়ের ওপর একটি কোর্স করতে। কিছুদিন আগে কোর্স শেষ হয়েছে। তা ছাড়া আমারও একটু ছুটির দরকার ছিল। সে কারণেই নিজের মতো করে সময় কাটিয়েছি। ’

ইউনিভার্সিটি অব ডালাস থেকে করেছেন কোর্সটি। নিয়মিত ক্লাস করতে হয়েছে? ‘না, না, আমি আসলে পুরো সময়টা ঘুরে বেড়িয়েছি। আর কোর্সটা তো করেছি অনলাইনে। ’

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাচেলর অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনে সেভেনথ সেমিস্টারের ছাত্রী। যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরে পড়াশোনায় কতটা মনোযোগী হচ্ছেন? ‘সাবজেক্ট আর ইউনিভার্সিটি দুটাই পরিবর্তন করতে হচ্ছে। নর্থ সাউথ ছেড়ে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটিতে চলে যাচ্ছি। নতুন করে সেখানে ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে পড়ব। ’

যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার আগের সময়টায় তিনি বেশ হতাশাগ্রস্ত ছিলেন। কেন? কী হয়েছিল?

সাবিলা বলেন, ‘পারিপার্শ্বিক চাপ, পড়াশোনা, তা ছাড়া টানা শুটিং করে হাঁপিয়ে উঠেছিলাম। এ জন্য মনে হচ্ছিল ভিন্ন একটা পরিবেশ দরকার। আমার পরিবারও এই বিষয়ে সম্মত হওয়ায় আমি ডালাসে চলে যাই। ডালাসের সময়টা অনেক এনজয় করেছি। অন্যান্য স্টেটেও গেছি। ডালাসে গিয়েই বুঝেছি, এই বিরতিটা আমার দরকার ছিল। ’

দেশের বাইরে যাওয়ার আগে নানা গুঞ্জন উঠেছিল। মারাত্মক অভিযোগটি হলো, তিনি নাকি মাদকাসক্ত! এ প্রসঙ্গ উঠতেই সাবিলা বলেন, ‘এ বিষয়ে কী আর বলব! আমি নিজের মতোই কাজ করে যাচ্ছিলাম। একুশে টেলিভিশনের একটি অনুষ্ঠান নিয়মিত উপস্থাপনা করতাম। আমার যে শত্রু থাকতে পারে ভাবতেই পারিনি। এসব নিয়ে কিছু বলতে আসলে ভালো লাগছে না। কথা না বলাই মনে হয় ভালো। ’

যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার পর সাবিলাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটা গুজব ছড়িয়ে পড়ে। ব্যক্তিগত মুহূর্তের একটি ভিডিও শেয়ার করে বলা হলো, ভিডিওর মেয়েটি সাবিলা। এ বিষয়টা তুলতেই সাবিলা বলেন, ‘দেখেন, সে সময়টা আমার জীবনের বিভীষিকা হয়ে এসেছিল। কিন্তু একদিক থেকে আমি লাকি। আমার ফ্রেন্ডস, পরিবার আমাকে ব্যাপক সমর্থন দিয়েছে। উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে কাউকে যে এত ভয়ংকরভাবে হেয় করার চেষ্টা করতে পারে কেউ... আমি জাস্ট ভাবতেই পারি না। সেই সময়ের কথা ভাবলে এখনো গা শিউরে ওঠে! যাক, সব মিলিয়ে এখন ভালো আছি। আবার ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়েছি। পড়াশোনা আর কাজের বাইরে আপাতত অন্য কিছু নিয়ে ভাবতে চাই না। ’

অভিনয় ক্যারিয়ারের তিন বছরে ৪০টির মতো নাটক-টেলিফিল্মে অভিনয় করেছেন। মডেল হয়েছেন ৩৭টি বিজ্ঞাপনচিত্রে।

আসছে ঈদে পাঁচটি নাটক-টেলিফিল্মে দেখা যাবে সাবিলাকে।  এর মধ্যে আছে হিমেল আশরাফের দুটি ‘বাড়িওয়ালা’ ও ‘তোমার চিঠির পাতায় চাঁদ উঠলো যখন’ এবং ইশতিয়াক আহমেদ রুমেলের ‘ব্রেকআপ পার্টি’। বাকিগুলোর শুটিং সামনেই


মন্তব্য