kalerkantho

৪৫ বছর ধরে...

প্রায় ৪৫ বছর ধরে গাইছেন বাপ্পি লাহিড়ী। এখনো আগের মতো চমক দেখিয়ে যাচ্ছেন। ‘বদ্রিনাথ কি দুলহানিয়া’ ছবিতে তাঁর গাওয়া ‘তাম্মা তাম্মা’ এখন বেশ আলোচিত। লিখেছেন সাজ্জাদ হোসেন

১৬ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



৪৫ বছর ধরে...

এলভিস প্রিসলির অন্ধ ভক্ত তিনি। সব কিছুতেই প্রিসলিকে অনুসরণ করা চাই।

মার্কিন এই গায়ককে দেখেই একসময় পরতে শুরু করলেন সোনার গয়নাগাঁটি। ‘গোল্ড ম্যান অব ইন্ডিয়া’ বললে পুরো ভারত, এমনকি বাংলাদেশের মানুষের চোখেও ভেসে ওঠে তাঁর ছবি। তিনি বাপ্পি লাহিড়ী। সংগীতের কিংবদন্তি। সোনার গয়নায় মোড়ানো এই মানুষটার গান শুনে বড় হয়েছে মোটমাট তিনটি প্রজন্ম। অনেকেরই প্রশ্ন—বাপ্পি কেন নিজেকে সোনা দিয়ে  মুড়িয়ে রাখেন? ‘এলভিস প্রিসলি সোনার চেইন পরতেন। তাঁকে দেখে মনে মনে ভাবতাম যদি কোনো দিন সফল হতে পারি তাহলে সোনার গয়না পরে নিজেকে সবার সামনে উপস্থাপন করব। লোকে হয়তো মনে করে দেখানোর জন্যই এটা পরি। ব্যাপারটা আসলে তা নয়। সোনা আসলেই আমার জন্য সৌভাগ্যের প্রতীক’—৬৪ বছর বয়সী এ গায়ক, সংগীত পরিচালক এক সাক্ষাত্কারে এভাবেই বলেছিলেন।

সাফল্যের ঝুলি পরিপূর্ণ। তার পরও তিনি থেমে নেই। ক্যারিয়ার শুরু সেই ১৯৭২ সালে। সাড়ে চার দশক পরও জনপ্রিয়তার রেশ কমেনি। ১০ মার্চ মুক্তি পাওয়া আলিয়া ভাট ও বরুণ ধাওয়ান অভিনীত ‘বদ্রিনাথ কি দুলহানিয়া’ ছবিতে বাপ্পির গাওয়া ‘তাম্মা তাম্মা’ এখন বেশ জনপ্রিয়। অবস্থান করছে মির্চি টপচার্টের এক নম্বরে। গানটি কিন্তু রিমেক করা। ১৯৯০ সালে মুক্তি পাওয়া ‘থানেদার’ ছবির গান এটি। সেখানেও গেয়েছিলেন বাপ্পি। সঙ্গে অনুরাধা পাড়োয়াল। নব্বইয়ের দশকে বাপ্পিরই সংগীত পরিচালনায় গানটি অবশ্য ঝড় তুলেছিল মাধুরী দীক্ষিতের অনবদ্য নাচের কারণে। ছবিতে মাধুরীর নায়ক ছিলেন সঞ্জয় দত্ত।

নতুন করে সংগীতায়োজন করেছেন তানিষ্ক বাগচী। আর এতে শুধু বাপ্পি আর অনুরাধাই কণ্ঠ দেননি। র‌্যাপও যোগ করা হয়েছে। আর সেই র‍্যাপার হচ্ছেন বাদশাহ। গানটি নতুন প্রজন্মের গ্রহণের পেছনে যার ভূমিকা বেশ।

এখন তো বলিউডে অহরহ রিমেক হচ্ছে আশি আর নব্বইয়ের দশকের গান। এটাকে অনেকে নেতিবাচকভাবে দেখলেও বাপ্পি তেমনটা মনে করেন না, “ওল্ড ইজ গোল্ড। আমি দারুণ খুশি এ কারণে যে ‘তাম্মা তাম্মা’ আবার ফিরে এসেছে। আমি সব সময়ই নতুন প্রজন্মের জন্য গাইতে ভালোবাসি। গানটির মিক্স-আপও খুব ভালো হয়েছে। ” কয়েক দিন আগে মুক্তি পাওয়া সুজিত সরকারের ‘রানিং শাদি ডটকম’য়েও গেয়েছেন। এখন আর শুধু নিজ দেশের গণ্ডিতে আটকে নেই পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়িতে জন্ম নেওয়া এ গায়ক। এরই মধ্যে কাজ করেছেন বিখ্যাত আমেরিকান র‍্যাপার স্নুপ ডগের সঙ্গে। গত বছর কাজ করেছেন আরেক জনপ্রিয় র‍্যাপার একনের সঙ্গে। কণ্ঠ শোনা গেছে বিখ্যাত র‍্যাপার এম সি হ্যামারের সঙ্গে একটি ইন্দো-আমেরিকান প্রজেক্টে।

গত বছরের নভেম্বরে মুক্তি পাওয়া ডিজনির এনিমেশন ছবি ‘মোয়ানা’র একটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। ছবিতে ‘তামোতা’ নামের যে চরিত্রটি আছে তার কণ্ঠটিও বাপ্পির। ‘তামোতা’কে দেখানো হয়েছে এক বিশাল আকারের কাঁকড়া রূপে! কাজটা দারুণ মজা নিয়েই করেছেন বলে এক সাক্ষাত্কারে বলেন, ‘এই প্রথম কোনো এনিমেশন ছবিতে কাজ করেছি, ব্যাপারটি ছিল অসাধারণ। ’

বাপ্পি লাহিড়ীর চিন্তার পুরোটাই দখল করে আছে গান। এই প্রজন্ম গান নিয়ে কী ভাবছে সে ব্যাপারেও দারুণ খেয়ালি তিনি। নতুনদের কাজ যে খুব তীক্ষ নজরেই রাখেন তা জানা গেল তাঁর কথায়, ‘এখন ছবিতে যে গানগুলো হচ্ছে সেগুলোর আয়ু খুব কম। লোকে সে গানগুলো সর্বোচ্চ দুই সপ্তাহ শোনে। এমনকি এসব গানের শিল্পী বা সংগীত পরিচালকের নামও আমরা জানি না। অথচ ঠিক এক প্রজন্ম আগেই আমাদের সংগীতজগতে যাঁরা কাজ করেছেন তাঁরা যেন একেকজন ছিলেন একেকটা ব্র্যান্ড। দুর্ভাগ্য যে নিজেদের সংগীত ঐতিহ্যের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা নেই। ’


মন্তব্য