kalerkantho


নূতনের কেতন

কাপ সংয়ের সিঁথি

‘ক্লোজআপ ওয়ান—তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতায় ছিলেন। তবে পরিচিতি পেয়েছেন ‘কাপ সং’ করে। জি বাংলার ‘সারেগামাপা’তেও শুনিয়ে এলেন কাপ সং। ইউটিউবেও তিনি জনপ্রিয়। অবন্তি দেব সিঁথিকে নিয়ে লিখেছেন ইসমাত মুমু

২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



কাপ সংয়ের সিঁথি

বড় বোন নিয়মিত গাইতেন। তাঁর পাশে বসে রেওয়াজ শুনতেন ছোট্ট সিঁথি। ওস্তাদ সুশান্ত দেব কানুর উৎসাহে শেখা শুরু করেন সিঁথিও। একটা সময় গান ছেড়ে দিলেন বড় বোন, কিন্তু সিঁথি আঁকড়ে রইলেন। ছোট-বড় অনেক পুরস্কারও পেয়েছেন, যার মধ্যে আছে লোকসংগীত [২০০৫] ও ধ্রুপদি সংগীতে [২০০৮] জাতীয় পুরস্কার। ২০০৬ সালে ‘ক্লোজআপ ওয়ান—তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতায় নাম লেখান। কিন্তু বেশিদূর এগোতে পারেননি। গানে বিরতি দিয়ে পড়াশোনায় মন দিলেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন রসায়নে পড়ছিলেন, তখন আবার গলা সাধতে শুরু করেন। ২০১২ সালে আবারও নাম দেন ‘ক্লোজআপ’-এ, এ যাত্রায় কিছু প্রাপ্তি মেলে। প্রতিযোগিতার সেরা দশে জায়গা করে নিয়েছিলেন।

গানে তাঁর স্বকীয়তা বেশ প্রশংসা পায়। তাঁর একটা অদ্ভুত ক্ষমতা আছে। তিনি মুখ দিয়ে বিভিন্ন রকমের শব্দ করতে পারেন। “একটা পর্বে আইয়ুব বাচ্চুর গান ‘সেই তুমি’ গাই। পারফরম্যান্সের সময় মুখ দিয়ে হুইসল বাজাই। সবাই বেশ প্রশংসা করলেন। পার্থ বড়ুয়া স্যার আমাকে গানের বেশ কয়েকটা অন্তরা হুইসল বাজিয়ে গাইতে বলেন। প্রতিযোগিতা চলার সময় সবাই আমাকে ডাকত ‘হুইসল কুইন’ নামে”—বললেন সিঁথি। সেই ‘হুইসল কুইন’ পরে হয়ে গেলেন ‘কাপ সং’ শিল্পী। কাপ বাজিয়ে গান করে ফেসবুকে রীতিমতো ঝড় তুললেন। সেই খবর পৌঁছে গেল পশ্চিমবঙ্গের জি বাংলার ‘সারেগামাপা’ পর্যন্ত। সিঁথি বলেন, “ফেসবুকের মাধ্যমেই ‘সারেগামাপা’র প্রশিক্ষক রথীজিত্দার সঙ্গে আমার পরিচয়। তিনি আমার কাপ সং শুনে প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে বলেছিলেন। কিন্তু আমি সাহস দেখাইনি। আমাকে বলে রেখেছিলেন, কলকাতায় গেলে যেন তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করি। জানুয়ারির শুরুতে কলকাতায় গিয়ে রথীজিত্দার সঙ্গে  যোগাযোগ করেছিলাম। তিনি প্রস্তাব দিলেন, অতিথি মিউজিশিয়ান হয়ে যেন অনুষ্ঠানে অংশ নিই। ”

দুই বাংলায় জনপ্রিয় এই অনুষ্ঠানে কাপ বাজিয়ে কেমন লাগল? ‘আসলে এটা মুখে বলতে পারব না। আর বললেও ঠিকঠাক সেই অনুভূতির পুরোটা প্রকাশ করতে পারব না। খুব নার্ভাস ছিলাম। কিন্তু বাজানো শেষ করার পর যেভাবে সবাই প্রশংসা করলেন, আমি মুগ্ধ। প্রতিযোগিতার বিচারক জনপ্রিয় গায়ক কুমার শানু ভীষণ মুগ্ধ হয়েছিলেন’—বললেন সিঁথি।

‘ক্লোজআপ ওয়ান—তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ থেকে বের হওয়ার পর প্রচুর স্টেজ শো করেছেন। গেয়েছেন চলচ্চিত্র ও বিজ্ঞাপনচিত্রেও। উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে ‘অজান্তে ভালবাসা’, ‘পাগলা দিওয়ানা’ ও ‘মাটির পরী’। কণ্ঠ দিয়েছেন প্রায় ১০টি মিক্সড অ্যালবামে।

ফেসবুকে নিজের পেজে ‘যেখানে সীমান্ত তোমার’ গেয়েও বেশ প্রশংসা পান। মাস তিনেকের মধ্যে গানটি দেখা হয়েছে বিশ লাখের বেশিবার। ইউটিউবে বিভিন্ন জনপ্রিয় গান নতুন করে গেয়ে আপলোড করেন, এতে কাপ বাজিয়ে নিজেই সুর তোলেন। সম্প্রতি ডিজে রাহাতের সংগীতায়োজনে প্রকাশ করেছেন গান ‘সোনা বন্ধুরে’। একক অ্যালবামের কাজও শুরু করেছেন। পাঁচটি গানের রেকর্ড শেষ। এ বছরই অ্যালবামটি প্রকাশের ইচ্ছা তাঁর।

গান নিয়ে তাঁর ভিন্ন কিছু পরিকল্পনা আছে। কী সেটা? ‘ইউটিউবার হিসেবেও পরিচিতি পেতে চাই। আমার চ্যানেলে মিউজিকের বিভিন্ন পার্ট থাকবে। কম হলেও প্রতি মাসে একটা কাভার সং প্রকাশ করব। থাকবে নিজের মৌলিক গান, মিউজিক্যাল ইনস্ট্রুমেন্টালও। এসব গানে চারপাশের পরিবেশটাকে প্রাধান্য দেওয়ার ইচ্ছা। আশপাশের রিয়ালিস্টিক শব্দগুলো দিয়ে মিউজিক করব। এটা একটা ভিন্ন আইডিয়া বলে মনে করি। এগুলো বিভিন্ন সিনেমার ব্যাকগ্রাউন্ড হিসেবেও ব্যবহার করব’—বললেন সিঁথি ।


মন্তব্য