kalerkantho


কাজলের চোখে বড় স্বপ্ন

প্রেমিকের হাত ধরে ঘর ছেড়ে পালিয়েছেন। রেলস্টেশনে চকো বিয়ারে মজে প্রেমিক ভুলে যায় প্রেমিকার কথা। বিজ্ঞাপনচিত্রের মেয়েটি কাজল সুবর্ণ। লিখেছেন আতিফ আতাউর

২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



কাজলের চোখে বড় স্বপ্ন

মডেল হওয়ার স্বপ্ন ছিল ছোটবেলা থেকেই। টেলিভিশন ছিল তাঁর কাছে একটা জাদুর বাক্সের মতো।

কত কী দেখা যায়! বুঝতে পারার পর থেকেই চেয়েছেন, একদিন এই জাদুর বাক্সে তাঁকেও দেখবে মানুষ। ছোটবেলায়ই অবশ্য সেই চাওয়া পূরণ হয়েছে। চাচাতো বোনের স্বামী নাটক বানান। তাঁর নাটকে শামস সুমন ও তাজিনের মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। সেই নাটকের নামধাম কিছুই মনে নেই এখন। বড় হয়ে নিজের ছবি তুলে বিভিন্ন মিডিয়া হাউসে জমা দেন। ডাক আসে অ্যাডকম থেকে। চকো বিয়ার বিজ্ঞাপনের জন্য বেছে নেওয়া হয় তাঁকে। জানুয়ারিতে গাজীপুরে হয় শুটিং। নির্মাতা ইলাজার ইসলাম। এখানে কাজলের সহমডেল সিয়াম আহমেদ। ‘মাত্র ক্যারিয়ার শুরু হলো। সব আর্টিস্টের সঙ্গে এখনো ভালোভাবে পরিচয় হয়নি। সিয়াম আমাকে অনেক সাহায্য করেছেন’—জানালেন কাজল।

চকো বিয়ারের আগে আরেকটি বিজ্ঞাপনচিত্র প্রচারিত হয় তাঁর—ইউরো জিরা পানি। এখানে তাঁর সঙ্গে মডেল হয়েছেন নিলয় আলমগীর। ডিসেম্বরে শুটিং হয় এটির। মজার ব্যাপার হচ্ছে, ফেসবুকে লাইভ ভিডিও দেখে কাজলকে বাছাই করেন নির্মাতা সিদ্ধার্থ ব্যানার্জি। এরপর ফেসবুকেই যোগাযোগ করেন তাঁর সঙ্গে। প্রি-প্রডাকশন মিটিংয়ে কাজলকে দেখে কিছুটা অবাক হন নির্মাতা ও মডেল নিলয়। কারণ ফেসবুকে দেখে যতটা স্লিম মনে হয়েছিল, বাস্তবে ঠিক ততটা নন। নিলয় তাঁকে পরামর্শ দেন, এক সপ্তাহ পরে শুটিং। এই কদিন একটু ডায়েট মেনে চললেই স্লিম হতে পারবে। বাসায় ফিরেই ডায়েট-জিম শুরু করেন কাজল। এক সপ্তাহ পর যখন শুটিংয়ে গেলেন, তখন নিলয়ই নাকি তাঁকে চিনতে পারেননি! অবাক হয়ে বলেন, ‘এত অল্প সময়ে এত ওজন কমালে কিভাবে?’

বিজ্ঞাপনচিত্র দুটি প্রচারের পর কাজলের পরিচিতিও বেড়েছে। রাস্তাঘাটে বের হলে অনেকেই তাঁকে চিনতে পারছেন। কেউ কেউ জিজ্ঞেসও করছেন, ‘আপনি ইউরো জিরা পানির মডেল না?’

অভিনয়ও করছেন। দীপ্ত টিভির ধারাবাহিক নাটক ‘অপরাজিতা’য় প্রথম সুযোগ পান। ভালোই প্রশংসা পাচ্ছেন অভিনয় করে। কাজলের এখনকার ভাবনা অভিনয় ঘিরেই—‘মাত্র অনার্স ফাইনাল পরীক্ষা শেষ হলো। রেজাল্টও বেরোয়নি এখনো। এত দিন পড়াশোনার জন্য অভিনয়ে ব্যস্ত হতে পারিনি। এখন অভিনয়ই আমার প্রথম প্রায়রিটি। ’ কাজলের এই স্বপ্ন আরো জোরালো হয়েছে স্টার সিনেপ্লেক্সে সিনেমা দেখতে গিয়ে। ইন্টারভ্যালের সময় বড় পর্দায় ইউরো জিরা পানির বিজ্ঞাপন! কাজল বলেন, ‘অভিনয়শিল্পীরা কেন বড় পর্দার স্বপ্ন দেখেন সেদিন নিজেকে বড় পর্দায় দেখেই বুঝতে পেরেছিলাম। এরপর স্বপ্নটা আরো বড় করেছি, বড় পর্দায় অভিনয়ের স্বপ্ন। ’

কাজলের বাবা ব্যবসায়ী। বেশির ভাগ সময় দেশের বাইরেই থাকেন। গৃহিণী মা আর ছোট বোনকে নিয়ে জিগাতলায় থাকেন। সিটি কলেজে অর্থনীতিতে পড়ছেন। জন্ম ও বেড়ে ওঠা ঢাকায়। অভিনয়ের প্রতি বাড়তি মনোযোগ, তাই ‘চারুনীড়ম’-এ কোর্স করছেন।

ছবি : নাফিস আমিন


মন্তব্য