kalerkantho


মিমের বিজ্ঞাপন ম্যাজিক

লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার ২০১৪ চ্যাম্পিয়ন। বেশ কিছু সাড়া-জাগানো বিজ্ঞাপনে মডেল হয়েছেন। প্রচারের অপেক্ষায় আছে দুটি। নাদিয়া আফরিন মিমকে নিয়ে লিখেছেন মীর রাকিব হাসান। ছবি তুলেছেন কৌশিক ইকবাল

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মিমের বিজ্ঞাপন ম্যাজিক

সুন্দরী প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। ‘সেরা সুন্দর হাসি’র খেতাবটাও তাঁর দখলে। এর পরই আসতে শুরু করল অভিনয় ও মডেলিংয়ের প্রস্তাব। অভিনয়ের পাশাপাশি মডেলিংয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন। প্রথম মডেল হন ‘প্রাণ মিস্টার নুডলস’-এ। বন্ধুরা দল বেঁধে বাড়িতে আড্ডা দিতে এসেছে। যে যার মতো আড্ডায় মশগুল। নাদিয়া চলে যান রান্নাঘরে। কারণ? রান্নাঘরে বন্ধুর মায়ের মন জয় করতে ব্যস্ত তিনি। বলেন, ‘আন্টি, আপনি ফেসবুকে আমার ফ্রেন্ড রিকোয়েস্টটি অ্যাকসেপ্ট করলেন না কিন্তু। ’ রান্না শেষে সবাইকে নুডলস পরিবেশন করা হলো।

এক বাটি নুডলস হাতে নিয়ে বলেন, ‘আন্টি, সবাই তো আসে আপনার এই নুডলসের টানে। ’ আন্টি জানতে চান, ‘আর তুমি?’ মুচকি হাসেন নাদিয়া। জমে ওঠে হবু বউ-শাশুড়ির গল্প। বিপত্তিটা হয় শেষ দৃশ্যে। মুচকি হেসে লজ্জা পাওয়ার দৃশ্যটাই ঠিকমতো হচ্ছিল না। বার কয়েক দেওয়ার পর পরিচালক খুশি হন।

‘সেরা সুন্দর হাসি’ যার, তাঁর হাসিতেই সমস্যা? ‘প্রথম বিজ্ঞাপন, কিছুটা নার্ভাস ছিলাম। এখনো টিভিতে বিজ্ঞাপনটা দেখলে ঘটনাটা মনে পড়ে’—বললেন মিম। এরপর বেশ কিছু পণ্যের মডেল হয়েছেন—বোম্বে সুইটসের ‘জুসি ফ্রুট ড্রিংকস’, রবির ‘স্ক্র্যাচ কার্ড’, ‘ক্যান্টন স্যুপ’, ‘তিব্বত পমেট’, ‘লাক্স’, ‘আরএফএল চেয়ার’, ‘ইগলু আইসক্রিম’ উল্লেখযোগ্য।

‘রবির স্ক্র্যাচ কার্ড’ বিজ্ঞাপনটি করতে গিয়ে বেশ আশাহত হয়েছিলেন। ক্যাম্পেইনটা ছিল—স্ক্র্যাচ কার্ড জমিয়ে প্রিয় খেলোয়াড়ের সঙ্গে দেখা করা যাবে। মাশরাফির বড় ফ্যান মিম। কথা ছিল, শেষ দিনের শুটিংয়ে মাশরাফি থাকবেন, তাঁর সহ-মডেল হবেন। কিন্তু শেষ দিন স্পটে গিয়ে জানতে পারেন, মাশরাফি থাকছেন না। অন্য একজন থাকবেন, যাঁকে ক্যামেরায় দেখে মনে হবে, মাশরাফি বসে আছেন। এ নিয়ে খুব মন খারাপ হয় মিমের।

ইগলু আইসক্রিমের বিজ্ঞাপনের শুটিংয়ে সবচেয়ে বেশি কষ্ট করতে হয়েছে তাঁকে। প্রচণ্ড শীতের সময় শুট। খোলা জায়গা। তার মধ্যে পাতলা কাপড় গায়ে জড়ানো। এই ঠাণ্ডায় খেতে হয়েছে একের পর এক আইসক্রিম। শুটিং শেষে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। তবে ইগলুর ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে নির্মাণ করা এই বিজ্ঞাপনে মডেল হতে পেরে ভীষণ খুশি।

শিগগিরই প্রচার শুরু হবে মিমের দুটি বিজ্ঞাপনচিত্র—কিষোয়ান লাচ্ছা সেমাই ও প্রাণ সরিষার তেল। বললেন, ‘চার মাস পর মডেলিং করেছি। নাটকের ব্যস্ততায় প্রথমে করতে চাইনি। কনসেপ্ট ও নির্মাতার আন্তরিকতা দেখে না করতে পারিনি। ’

ছোটবেলা থেকেই টিভিতে বিজ্ঞাপনচিত্র দেখতে পছন্দ করেন। ‘বাবা বলে খেতে পারো প্রাণ মিল্ক ক্যান্ডি’—এ বিজ্ঞাপনটি ছোটবেলায় খুব ভালো লাগত। আরেকটু বড় হওয়ার পর নোবেল ও তিশার ‘কেয়া সুপার লেমন সোপ’-এর বিজ্ঞাপনটা ভালো লাগে তাঁর।


মন্তব্য