kalerkantho


খণ্ডকালীন কাজ

আগামীকাল মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ‘ইন ডুবিয়াস ব্যাটল’-এ পাওয়া যাবে অভিনেত্রী সেলিনা গোমেজকে। গায়িকাদের অভিনেত্রী বনে যাওয়া অবশ্য নতুন কিছু নয়। এমন ‘খণ্ডকালীন’ অভিনেত্রীদের নিয়ে লিখেছেন লতিফুল হক

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



খণ্ডকালীন কাজ

ম্যাডোনা

গানের সঙ্গে চলচ্চিত্র ক্যারিয়ারটাও বেশ সমৃদ্ধ। এ পর্যন্ত ২৬টি ছবিতে দেখা গেছে তাঁকে। সঙ্গে সাতটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র, তিনটি মঞ্চনাটক ও ১০টি টিভি অনুষ্ঠান। এ ছাড়া ১৬টি বিজ্ঞাপনের মডেলও ছিলেন ‘পপ সম্রাজ্ঞী’। ১৯৭৯ সালে অল্প বাজেটের ‘আ সারটেইন স্যাকরিফাইজ’-এ প্রথম দেখা যায়। ১৯৮৫ সালে তাঁর অভিনীত ‘ডেসপারেটলি সিকিং সুসান’ ব্যবসায়িক সাফল্যের সঙ্গে সমালোচক প্রশংসাও পায়। ১৯৮৬ সালে স্বামী শন পেনের সঙ্গে ‘সাংহাই সারপ্রাইজ’-এ জুটি হন গায়িকা। এ ছাড়া ‘বডি অব এভিডেন্স’সহ অনেক ছবি করলেও অভিনয়ের জন্য বরাবরই সমালোচিত হয়েছেন। বেশ কয়েকবার সবচেয়ে বাজে অভিনেত্রীর মনোনয়নও পেয়েছেন।

 

লেডি গাগা

মিউজিক ভিডিওগুলো জনপ্রিয় হওয়ার পরেই মূলত অভিনয়ে আগ্রহী হন লেডি গাগা। সেখানেও নিজের দক্ষতার ছাপ রেখেছেন।

মূলত টিভিতেই দেখা গেছে গাগাকে। ‘দ্য সিম্পসনস’, ‘গসিপ গার্ল’সহ অনেক সিরিজে দেখা গেছে গায়িকাকে। তবে গাগা বাজিমাত করেন ২০১৫ সালে। ‘আমেরিকান হরর স্টোরি : হোটেল’—এ অভিনয় করে গোল্ডেন গ্লোব জেতেন!

 

বিয়ন্সে

২০০১ সালে এমটিভির মিউজিক্যাল ফিল্ম ‘কারম্যান : আ হিপ হোপেরা’-য় প্রথম দেখা যায় বিয়ন্সেকে। এর পরেও ‘অস্টিন পাওয়ারস ইন গোল্ডমেম্বার’, ‘দ্য পিংক’, ‘ড্রিমগার্লস’ ‘অবসেসড’সহ ১০টি ছবি করেন গায়িকা। কোনোটিই সাড়া জাগাতে পারেনি।

 

রিহানা

রিহানাকেও কয়েকটি ছবিতে দেখা গেছে। যার কোনোটিতেই সাড়া জাগাতে পারেননি। বরং বাজে অভিনেত্রী হিসেবে ‘রেজি অ্যাওয়ার্ডস’-ও জেতা হয়েছে। তবে ২০১৮ সালের ‘ওশানস এইট’ নিয়ে আশাবাদী তিনি। মজা করে বলেছেন, এ ছবিতে নতুন রিহানাকে খুঁজে পাওয়া যাবে!

 

জেনিফার লোপেজ

তাঁকে বলা যায় সত্যিকারের ‘অলরাউন্ডার’। গানের মতো অভিনয়েও। অনেক ছবি ও টিভি সিরিজে দেখা গেছে। গায়িকার নিজের কাছে অবশ্য গান ও অভিনয় আলাদা কিছু নয়, ‘আমি মূলত গায়িকা যে ভীষণ নাচতে পছন্দ করি। সঙ্গে অভিনয়টাও ভালোবাসি। আমার কাছে সব একই কাজের অংশ। ’ ১৯৯৭ সালে ‘অ্যানাকোন্ডা’ মোটামুটি জনপ্রিয় হওয়ার পর ‘ইউ টার্ন’, ‘দ্য সেল’, ‘ইগল আইজ’, ‘শ্যাল ইউ ডান্স’, ‘পার্কার’সহ ৩০টির মতো ছবি করেছেন লোপেজ। দেখা গেছে, ডজনখানেক টিভি সিরিজেও।

 

মাইলি সাইরাস

২০০৮ সালে এনিমেশন ছবি ‘বোল্ট’-এ কণ্ঠ দিয়ে চলচ্চিত্রের সঙ্গে সম্পর্ক। এরপর ‘হানা মন্টানা : দ্য মুভি’, ‘দ্য লাস্ট সং’, ‘দ্য নাইট বিফোর’-এও দেখা যায়। তবে গায়িকার সবচেয়ে বড় সৌভাগ্য উডি অ্যালেনের সঙ্গে কাজ করা। মিনি টিভি সিরিজ ‘ক্রাইসিস ইন সিক্স সিনস’-এ উডির সঙ্গে কাজ করেন।

 

ব্রিটনি স্পিয়ার্স

‘রোলিং স্টোন’ ম্যাগাজিন তাঁকে সর্বকালের সেরা টিন আইকনদের একজন হিসেবে আখ্যা দিয়েছে। যেখানে বিবেচনা করা হয়েছে ব্রিটনি স্পিয়ার্সের অভিনয় প্রতিভাও। ‘লং শট’, ‘ক্রসওয়ার্ডস’সহ কয়েকটি ছবি করেছেন গায়িকা। যেগুলোর বেশির ভাগই টিনএজ-কমেডি।

 

ডেমি লোভাটো

ডিজনি চ্যানেলের সিরিজ ‘দ্য বল রিংস’ দিয়ে ডেমি লোভাটোর অভিনয়ে যাত্রা শুরু। বড় পর্দার চেয়ে ছোট পর্দাতেই বেশি দেখা গেছে। ‘গ্রে’জ অ্যানাটমি’, ‘গ্লি’, ‘ফ্রম ডাস্ক টিল ডান : দ্য সিরিজ’ তাঁর উল্লেখযোগ্য টিভি সিরিজ। ভবিষ্যতে আরো নিয়মিত অভিনয়ের পরিকল্পনাও আছে, ‘অভিনয়টাও আমি সমান উপভোগ করি। ব্যক্তিগত নানা ঝামেলায় নিয়মিত হতে পারিনি। সামনে কাজটা আরো বেশি করার ইচ্ছা আছে। ’

 

সেলিনা গোমেজ

২০০৩ সালে ‘স্পাই কিডস’-এ অতিরিক্ত শিল্পী হিসেবে শুরু। এরপর এ পর্যন্ত সেলিনা গোমেজকে দেখা গেছে, ডজনখানেরও বেশি ছবিতে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘স্প্রিং ব্রেকারস’, ‘ইউনিটি’, ‘নেইবারস ২’ ইত্যাদি। সেলিনার নতুন ছবি ‘ইন ডুবিয়াস ব্যাটল’ আগামীকাল মুক্তির অপেক্ষায়। জেমস ফ্রাংকো পরিচালিত ছবিটির গুরুত্বপূর্ণ লিসা চরিত্র করেছেন সেলিনা।


মন্তব্য