kalerkantho


নোনতা বিস্কুট

মাত্র সাড়ে তিন মাস বয়সেই নিজেদের প্রথম একক অ্যালবাম ‘তোরই শহরে’ নিয়ে এসেছে নোনতা বিস্কুট। আগামীকাল অ্যালবামটির মোড়ক উন্মোচন। ব্যান্ডটির পথচলা ও স্বপ্নের কথা শুনিয়েছেন মীর রাকিব হাসান। ছবি তুলেছেন ইশতিয়াক আহমেদ অনিক

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



নোনতা বিস্কুট

‘নোনতা বিস্কুট’-এর সদস্যরা—(বাঁ থেকে) শেখ ইশতিয়াক, মহান ফাহিম, মনিরুজ্জামান মনির ও নাবিদ সালেহিন নিলয়

মহান আর মনির ছোটবেলার বন্ধু। একসঙ্গে খেলাধুলা আর সংগীতে যুক্ত ছিলেন। মহানের সঙ্গে নিলয় আর ইশতিয়াকের পরিচয় গান করতে এসে।

সংগীত সমমনা চার তরুণ অনেক দিন ধরেই ভেবে আসছিলেন একটি ব্যান্ডের কথা। অবশেষে গত ১৪ অক্টোবর এক লাইভ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু করে ‘নোনতা বিস্কুট’। অনেকেই হয়তো নাম শুনে ভ্রু কোঁচকাতে পারেন—এ আবার কেমন নাম! কিভাবে এলো এই নাম, জানিয়েছেন ব্যান্ডের ড্রামস ও কাহনবাদক মনিরুজ্জামান মনির, “ব্যান্ড গড়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর থেকেই নাম নিয়ে ভাবতে থাকি সবাই। কিছুতেই পছন্দসই নাম পাচ্ছিলাম না। একদিন স্টুডিওতে বসে সবাই আড্ডা দিচ্ছি। হাতে নোনতা বিস্কুট আর চা। হঠাৎ আমি বলে উঠি, “আরে! ‘নোনতা বিস্কুট’ নামটি দিলে কেমন হয়। মহানের বেশ পছন্দ হলো। অন্যরাও সায় দিল। ব্যস, তখনই নামটি চূড়ান্ত হয়ে যায়। ”

নামের সঙ্গে কি গানের সামঞ্জস্য আছে? উত্তর শুনুন দলনেতা ও গিটারবাদক মহান ফাহিমের কাছে, “আমরা খুব সহজ একটি বাংলা নাম দিতে চেয়েছিলাম, যেটা একটু ভিন্ন রকমের এবং মনে থাকে। অবশেষে নামটি পেয়ে যাই। ‘নোনতা বিস্কুট’ কিন্তু একটি সময়ের কথা বলে। গানেও আমরা সময়টাকে ধরতে চাই। আমাদের লক্ষ্য অ্যাকুস্টিকনির্ভর গান। ”

ব্যান্ডটির প্রথম গান ‘পৃথিবী সুন্দর’ ভিডিও আকারে প্রকাশ পায় অনলাইনে। আগামীকাল আসছে প্রথম একক ‘তোরই শহরে’। আটটি গান দিয়ে সাজানো হয়েছে অ্যালবামটি। শিরোনাম—‘তোরই শহরে’, ‘পরাধীন’, ‘অপূর্ণতা’, ‘তুমি মুখোশ’, ‘পৃথিবী সুন্দর’, ‘শিল্প আমার’, ‘অলস প্রহর’ এবং লালনের গান ‘সহজ মানুষ’। মৌলিক গানগুলোর ছয়টির কথা ও সুর মহান ফাহিমের। বাকিটি লিখেছেন ও সুর করেছেন ব্যান্ডের ভোকাল শেখ ইশতিয়াক। গানগুলোর রেকর্ডিং হয়েছে ব্যান্ডটির নিজস্ব স্টুডিও ‘উড স্টেশন’-এ। ইশতিয়াক বলেন, ‘এত তাড়াতাড়ি সবাই ব্যান্ডের অ্যালবাম করতে পারে না। আমরা কঠোর পরিশ্রম করেছি বলেই সম্ভব হয়েছে। প্রতিটি গানই যেন একসঙ্গে সবার মন থেকে এসেছে। কোনো গানের কথা, সুর বা সংগীত নিয়ে একটুও মতানৈক্য হয়নি। ’

বেইসবাদক নাবিদ সালেহিন বলেন, ‘নিজস্ব অনুভূতিগুলোই আমরা প্রথম অ্যালবামে তুলে ধরতে চেয়েছি। শ্রোতারা কিভাবে গ্রহণ করে, এখন সেটা দেখার অপেক্ষায় আছি। অভিজ্ঞতার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের গানেও পরিবর্তন আসবে আশা করি। ’

স্টেজ পারফরম্যান্সও করা শুরু করেছে ‘নোনতা বিস্কুট’। কিছুদিন আগে টিএসসিতে ‘সঞ্জীব উৎসব’-এ গেয়েছে। অ্যালবাম প্রকাশনা অনুষ্ঠানেও গান শোনাবে।

‘নোনতা বিস্কুট’-এর সদস্যরা সবাই আগে থেকেই আলাদাভাবে গানের সঙ্গে যুক্ত। নাবিদ সালেহিন গত একুশে ফেব্রুয়ারিতে ১২ ভাষায় ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো’ গানটির সংগীতায়োজন করে আলোচনায় আসেন। এরপর মা দিবসে মাকে নিয়ে সাত ভাষায় গান তৈরি করেন। কিছু মিক্সড অ্যালবামেরও সংগীতায়োজন করেছেন এই তরুণ।

মহান ফাহিম দেশের প্রথম ফিঙ্গার-স্টাইল গিটারিস্ট, সুরকার ও সংগীত শিক্ষক। কয়েক বছর ধরে ফিঙ্গার-স্টাইল গিটার বাজিয়ে ইন্টারনেটে প্রকাশ করছেন। ‘চলো’ শিরোনামের একটি ইনস্ট্রুমেন্টাল অ্যালবাম আছে তাঁর।   দীর্ঘদিন ধরে ড্রামস ও কাহন বাজাচ্ছেন মনিরুজ্জামান মনির। ভোকাল শেখ ইশতিয়াক চট্টগ্রামের ছেলে। সেখানে দীর্ঘদিন বিভিন্ন ব্যান্ডের হয়ে গেয়েছেন। চট্টগ্রামেই ‘অর্থহীন’ ব্যান্ডের ভোকাল ও গিটারিস্ট সুমনের সঙ্গে তাঁর পরিচয়। সুমনের সঙ্গে প্রথমে ‘খাঁচার ভিতর অচিন পাখি’ গানটি কাভার করেন। এরপর সুমন তাঁর ‘ক্যানসারের নিশিকাব্য’ অ্যালবামে ‘অদ্ভুত সেই ছেলেটি ৪’ গাওয়ার সুযোগ করে দেন ইশতিয়াককে। এভাবেই পরিচিতি বাড়তে থাকে। সর্বশেষ ফুয়াদের সংগীতে কণ্ঠ দিয়েছেন ‘আয়নাবাজি’ ছবির টাইটেল ‘লাগ ভেলকি লাগ’-এ। গানটি এখন আলোচিত। আরো বেশ কিছু গান কাভার করে ইউটিউবে প্রকাশ করেছেন। কুড়িয়েছেন প্রশংসাও।

‘নোনতা বিস্কুট’-এর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী? নিলয় বলেন, ‘সব শ্রেণির শ্রোতার জন্য গান করতে চাই। আমাদের গান যেন সবার মুখে মুখে থাকে। প্রথম অ্যালবাম প্রকাশের পরপরই দ্বিতীয় অ্যালবামের কাজে হাত দেব। আমরা চাই বেশি বেশি মৌলিক গান প্রকাশ করতে, যাতে কোনো না কোনো গান শ্রোতার পছন্দের তালিকায় থাকে। ’


মন্তব্য