kalerkantho


ফিরে আসছে দানবরা

প্রথম কিস্তির ব্যাপক জনপ্রিয়তার পর আবারও বক্স অফিস কাঁপাতে আসছে দানবরা! চীনা ছবি ‘জার্নি টু দ্য ওয়েস্ট : ডেমনস স্ট্রাইক ব্যাক’-এর যুক্তরাষ্ট্রে মুক্তি নিয়ে তাই তৈরি হয়েছে প্রবল আগ্রহ। ছবিটি নিয়ে লিখেছেন হাসনাইন মাহমুদ

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ফিরে আসছে দানবরা

কয়েক বছর ধরেই হলিউডের ছবির সঙ্গে সমানতালে টেক্কা দিয়ে যাচ্ছে চীনা চলচ্চিত্র। ‘দ্য মারমেইড’, ‘মনস্টার হান্ট’, ‘লস্ট ইন হংকং’-এর মতো ছবিগুলো শুধু চীনে নয়, সারা দুনিয়ার বক্স অফিসেই বাজিমাত করেছে। এবার চীনের বসন্ত উৎসবে মুক্তি পেয়েছে ‘জার্নি টু দ্য ওয়েস্ট : ডেমনস স্ট্রাইক ব্যাক’। চীনে মুক্তির পর যা আগামীকাল মুক্তি পাবে যুক্তরাষ্ট্রে।  

চীনে প্রাচীন উপন্যাসগুলোর মধ্যে খুবই জনপ্রিয় ‘জার্নি টু দ্য ওয়েস্ট’। উ চেঙ্গেন এর ষোড়শ শতাব্দীর উপন্যাসটির জনপ্রিয়তা কমেনি ৫০০ বছর পরেও। রুপালি পর্দায়, নাটকে মঞ্চে কিংবা শিল্পীর তুলিতে উপন্যাসটি অনেকবার ফুটে উঠলেও বড় বাজেটে প্রথমবারের মতো রুপালি পর্দায় আসে ২০১৩ সালে। ‘জার্নি টু দ্য ওয়েস্ট : কনকুয়েরিং দ্য ডেমনস’ মুক্তির পর প্রশংসায় ভাসতে থাকে। দর্শকের পদচারণায় কিংবা সমালোচকদের কলমের কালিতে চলচ্চিত্রটির জয়গান ছিল সর্বত্র। বিশ্বজুড়ে চলচ্চিত্রটি ২১৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করে সে বছর। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী এক নায়কের গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছিল এ চলচ্চিত্রটি, যিনি একটি গ্রামকে প্রতিনিয়ত রক্ষা করতেন দানবদের হাত থেকে। এরই সাফল্যের ধারাবাহিকতায় এবার এসেছে সিরিজের দ্বিতীয় কিস্তি। দানবদের সর্দার বানরের রাজার প্রতিশোধ নেওয়ার গল্প এবং নায়কের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা নিয়ে এ পর্বের গল্প।

প্রথম কিস্তির পরিচালক হিসেবে স্টিফেন চৌ থাকলেও এবারের কিস্তিটি পরিচালনা করেছেন সুই হার্ক। যদিও চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্যকার এবং প্রযোজক হিসেবে চৌই থাকছেন। সুই হার্ক বলেছেন, ‘২০১৩ সালেও চীনেও চলচ্চিত্র নির্মাণে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার অনেক কম ছিল। স্টিফেন চৌকে অনেক ধন্যবাদ। চীনে ভিজ্যুয়াল এফেক্ট ব্যবহারের অগ্রদূত হিসেবে তাঁর নাম আমাদের মনে থাকবে। এ চলচ্চিত্রে আমি আমার ৩০ বছরের চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রতিটি অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়েছি। দর্শক একটি ভিন্ন ধরনের অভিজ্ঞতা নিয়েই বাড়ি ফিরবে। ’ যদিও প্রথম কিস্তির কোনো অভিনেতাকেই দেখা যাবে না এবারের পর্বে। এ পর্বে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন ক্রিস উ, বেই-এর বাও, মেংকে বাটির, কেনি লিন প্রমুখ।

প্রথম পর্বটি সমালোচক প্রশংসায় ভাসলেও এবারের পর্বটি অতিরিক্ত ভিজ্যুয়াল এফেক্ট ব্যবহারের জন্য সমালোচিত হয়েছে এর মধ্যেই। তবে সমালোচনা যতই হোক ছবিটি দর্শক পেয়েছে আগের মতোই। এর মধ্যেই আগাম টিকিট বিক্রির রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে চলচ্চিত্রটি। ধারণা করা হচ্ছে, আয়ের দিক থেকে আগেরটিকেও ছাড়িয়ে যাবে।


মন্তব্য