kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বাংলাদেশের শিল্পীদের কণ্ঠে বব

বব ডিলান-এর গান গেয়েছেন বাংলাদেশের শিল্পীরাও। তাঁদের নিয়ে এই ফিচার। লিখেছেন রবিউল ইসলাম জীবন

২০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



বাংলাদেশের শিল্পীদের কণ্ঠে বব

ওয়ারফেজ

১৯৯২ সালে রাওয়া ক্লাবে প্রথম বব ডিলানের ‘নকিং অন হ্যাভেনস’ করে ওয়ারফেজ। গত থার্টিফার্স্ট নাইটে চট্টগ্রামের হোটেল পেনিনসুলায় গানটি আবার করেন  তাঁরা।

গত ১৪ অক্টোবর যমুনা টিভির ‘ছুটির রাতে’ অনুষ্ঠানে ডিলানের ‘ব্লোয়িং ইন দ্য উইন্ড’ পরিবেশন করে। ব্যান্ডের দলনেতা টিপু বলেন, ‘যখন আড্ডা দিই, প্র্যাকটিস করি তখনো বব ডিলান উঠে আসেন। তিনি যত বড় গায়ক তার চেয়েও বড় কবি। তাঁর গান করার মধ্যে আনন্দ আছে!’

 

পার্থিব

শুরু (২০০৩) থেকেই বব ডিলানের গান করে আসছে ব্যান্ড পার্থিব। বিভিন্ন শোতে ডিলানের ‘নকিং অন হ্যাভেনস’, ‘ব্লোয়িং ইন দ্য উইন্ড’, ‘মি. তাম্বারিন ম্যান’, ‘অল অ্যালং দ্য ওয়াচ টাওয়ার’, ‘দ্য টাইমস আর এ চেঞ্জিং’ গানগুলো করে থাকেন তাঁরা। ব্যান্ডের ভোকাল ও গিটারিস্ট রুমন বলেন, ‘বব ডিলানের গান শুনতে, গাইতে, বাজাতে অদ্ভুত একটা ভালোলাগা কাজ করে। তাঁর গানের কথা অতুলনীয়। প্রতিটি গানই খুব সহজ, কিন্তু সাহিত্যে ভরা। ’ 

 

সুমন (পেন্টাগন)

১৯৭৬ সালে সুমন যখন প্রথম গিটার হাতে ধরেন তখন থেকেই বব ডিলানের গান করেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য—‘মি. তাম্বারিন ম্যান’, ‘লাভ মাইনাস জিরো/নো লিমিট’, ‘জোকারম্যান’, ‘লাইক এ রোলিং স্টোন’, ‘ইডিয়ট উইন্ড’ প্রভৃতি। স্টেজের পাশাপাশি টিভি অনুষ্ঠানেও গানগুলো করেন।

সুমন বলেন, ‘বব ডিলানের ছন্দ মেলানোর বিষয়টি আমাকে বেশ মুগ্ধ করে। তিনি যুদ্ধ নিয়ে যেমন গান লিখেছেন, তেমনি লিখেছেন ভালোবাসা নিয়ে, হতাশা নিয়ে। তাঁর গানের অর্থ অনেক গভীর কিন্তু সহজ। মজা করে গাওয়া যায়। শ্রোতারাও এনজয় করেন। ’

 

আলিফ আলাউদ্দিন

ইউটিউবে দেখেই বব ডিলানের গান কণ্ঠে তোলেন আলিফ আলাউদ্দিন। ২০০১-০২ সালের দিকে ওসমানী মিলনায়তনে ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’ অনুষ্ঠানে বব ডিলানের ‘মি. তাম্বারিন ম্যান’ গানটি প্রথম পরিবেশন করেন আলিফ। পরে ডিলানের আরো দুটি গান কভার করেন—‘ব্লোয়িং ইন দ্য উইন্ড’ এবং ‘নকিং অন হ্যাভেনস ডোর’। আলিফ বলেন, ‘তাঁর গানে অন্য রকম এক শক্তি আছে। গায়কের চেয়ে গীতিকবি বব ডিলানকেই আমি এগিয়ে রাখি। তাঁর লেখনী অসাধারণ। ’

 

জয় শাহিরয়ার

সংগীতে জয় শাহিরয়ারের অনুপ্রেরণা যাঁরা তাঁদের মধ্যে অন্যতম বব ডিলান। স্টেজে ডিলানের দুটি গান করে থাকেন এ গায়ক। ‘নকিং অন হ্যাভেনস ডোর’ এবং ‘ব্লোয়িং ইন দ্য উইন্ড’। ডিলানের ‘নকিং অন হ্যাভেনস ডোর’ গানটির সুর নিয়ে ‘বন্ধু তুই ভালো থাকিস’ শিরোনামে একটি গান করেন নিজের ব্যান্ড ‘নির্ঝর’-এর জন্য। জয় বলেন, ‘আমেরিকার মতো দেশে থেকে গানে গানে প্রকৃতি, দ্রোহ, সমাজ এবং মানুষের কথা বলে যাচ্ছেন। এটা অসাধারণ। ’

 

আরমিন মুসা

এখন পর্যন্ত বব ডিলানের একটি গানই—‘নকিং অন হ্যাভেনস ডোর’ গেয়েছেন আরমিন মুসা। বছর চার-পাঁচেক আগে গানটি তিনি করেন রেডিও স্বাধীনের একটি অনুষ্ঠানে। আরমিনের বন্ধু জালাল আলমগীরের প্রিয় গান ছিল এটি। তাঁকেই গানটি উৎসর্গ করেছিলেন আরমিন।


মন্তব্য