kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।

পূজার ছয়

শেকসপিয়ার, গোয়েন্দা থেকে কমেডি—এবারের পূজায় টলিউডে মুক্তি পাচ্ছে ছয়টি চলচ্চিত্র। ছবিগুলো নিয়ে লিখেছেন লতিফুল হক

৬ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



পূজার ছয়

টলিউডের নতুন নায়ক—যশ দাশগুপ্ত

জুলফিকার

প্রথম ছবি ‘অটোগ্রাফ’-এর পর থেকেই পূজায় নিয়মিত ‘হিট’ উপহার দিয়ে আসছেন সৃজিত মুখার্জি। গত বছর বহু তারকাময় ‘রাজকাহিনী’ও এর ব্যতিক্রম ছিল না।

এবার আরো বড় আয়োজন; একসঙ্গে শেকসপিয়ারের ‘জুলিয়াস সিজার’ ও ‘অ্যান্টনি অ্যান্ড ক্লিওপেট্রা’ অবলম্বনে ‘জুলফিকার’ নিয়ে হাজির তিনি। জিৎ বাদে ছবিতে আছেন এই সময়ের টালিগঞ্জের প্রায় সব তারকাই! জুলফিকার [জুলিয়াস সিজার], বশির খান [মার্কাস ব্রুটাস], মার্কাজ আলি [মার্কাস], টনি ব্রাগেঞ্জা [অ্যান্টনি], রানি তালাপাট্রা [ক্লিওপেট্রা] চরিত্রে যথাক্রমে আছেন প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জি, কৌশিক সেন, দেব, পরমব্রত চ্যাটার্জি ও নুসরত জাহান। এ ছাড়া ছবিতে আরো দেখা যাবে অঙ্কুশ হাজরা, রাহুল ব্যানার্জি, পাওলি দাম, যীশু সেনগুপ্তসহ আরো অনেককেই। পরিচালকের জন্য ‘জুলিয়াস সিজার’ অবশ্য নতুন কিছু নয়। আগের ‘অটোগ্রাফ’ ছবিতেও এর কিছু অংশ ছিল। তবে এবার আসছে অন্য চেহারায়।  

‘জুলফিকার’-এ সৃজিত জুলিয়াস সিজার ওরফে জুলফিকারকে এনে বসিয়েছেন আন্ডারওয়ার্ল্ডে। কলকাতার মুসলিম অধ্যুষিত মেটিয়াবুরুজ, খিদিরপুর গল্পের প্রেক্ষাপট। প্রথমে ছবিটি ক্রিকেট নিয়ে করতে চেয়েছিলেন। ‘কিন্তু ক্রিকেটে ভায়োলেন্স দেখানো যেত না।   কী করি ভাবতে ভাবতে মনে হলো মেটিয়াবুরুজ, খিদিরপুরের কথা। কলকাতার এ অংশ আমাদের পরিচিত নয়। সব মিলিয়ে এটিকেই পটভূমি করি’, বলেন সৃজিত। দারুণ স্টার কাস্টের সঙ্গে ছবির আরেক চমক এখানে ‘মার্ক’ ও ‘অ্যান্টনি’ আলাদা দুজন। ‘মার্কাস আলি দেব করছে, আর অ্যান্টনি ব্রাগেঞ্জা পরমব্রত। এটি কেন করেছি সেটি ছবি না দেখতে বুঝতে পারবেন না’, বলেন সৃজিত। ছবিতে দেবের কোনো সংলাপ নেই। সমালোচকরা বলছে, নায়কের ডায়ালগ ডেলিভারিতে সমস্যা আছে, তাই পরিচালক এটি ইচ্ছে করেই করেছেন। যদিও সৃজিত সেটি অস্বীকার করেছেন। ছবির কয়েকটি দৃশ্যে মুসলমানদের ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে—এই অভিযোগে মুক্তির আগে প্রতিবাদ জানিয়েছে খিদিরপুর আর মেটিয়াবুরুজের বাসিন্দারা। ‘বাংলা’র মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিষয়টির মীমাংসা করেন। পরিচালক ছবি থেকে কিছু দৃশ্য বাদ দিতে রাজি হন।

গান বরাবরই সৃজিতের ছবির শক্তিশালী দিক। অনুপমের কথা, সুরে এবারও সেটির ব্যতিক্রম হয়নি। এগুলোর মধ্যে অনেক দিন পর প্লেব্যাকে ফেরা নচিকেতার ‘এক পুরনো মসজিদে’ সবচেয়ে জনপ্রিয় হয়েছে।

 

গ্যাংস্টার

টানা ছবি ফ্লপ করার পর গত পূজায় ‘শুধু তোমারই জন্য’ দিয়ে ফর্মে ফিরেছিলেন বিরসা দাশগুপ্ত। যদিও সেটি ছিল রিমেক। সফল হওয়ার পর এবার মৌলিক এবং পুরোপুরি বাণিজ্যিক ধারার ‘গ্যাংস্টার’ নিয়ে আসছেন তিনি। যেখানে তাঁর বড় বাজি যশ দাশগুপ্ত, ছোট পর্দার জনপ্রিয় সিরিজ ‘বোঝে না সে বোঝে না’-র সেই ‘অরণ্য’। নায়ক চরিত্রে তাঁর প্রথম উপস্থিতি এর মধ্যেই হিট। কারণ ছবির ট্রেলার ও গান পূজায় মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ছবিগুলোর মধ্যে ইউটিউবে সবচেয়ে বেশি ভিউয়ার পেয়েছে। ছবিতে যশের জুটি মিমি। শুটিং বেশির ভাগই হয়েছে তুরস্কে। মাস কয়েক আগে ইস্তাম্বুল বিমানবন্দরে বোমা হামলার সময় অনেকটা ঝুঁকি নিয়ে শুটিং শেষ করেন বিরসা। পরিচালকের সব ছবির মতো এ ছবির গানগুলোও মানুষ পছন্দ করেছে। যদিও দুটি গানের বিরুদ্ধে সুর চুরির অভিযোগ উঠেছে।

 

অভিমান

দেব অভিনীত শেষ কয়েকটি ছবি সেভাবে চলেনি। একমাত্র জিতের ছবিগুলোই যা ব্যবসা করছে। এবার তিনি ‘অভিমান’-এ আসছেন রাজ চক্রবর্তীর সঙ্গে জুটি বেঁধে। পরিচালকের বেশির ভাগ ছবির মতো এটিও রিমেক। জিতের দুই নায়িকা শুভশ্রী গাঙ্গুলী ও সায়ন্তিকা ব্যানার্জি। রাজ চক্রবর্তী ও সংগীত পরিচালক জিৎ গাঙ্গুলী জুটি হিট হলেও এবারের ছবির গানগুলো তেমন সাড়া জাগাতে পারেনি।

 

ব্যোমকেশ ও চিড়িয়াখানা

‘ব্যোমকেশ’ ছাড়া শেষ কয়েক বছরে অঞ্জন দত্তের সব ছবিই ফ্লপ। তাই পূজায় নিয়ম করে এই গোয়েন্দাকে নিয়ে হাজির হন তিনি। এবার বেছেছেন শরদিন্দুর ‘চিড়িয়াখানা’। সত্যজিৎ রায় যেটা বানিয়েছিলেন উত্তম কুমারকে ব্যোমকেশ করে। অঞ্জনের মতে, পূজায় মানুষ ব্যোমকেশ দেখা অভ্যাস বানিয়ে ফেলেছে। তাই কোনো তুলনাতে না গিয়েই এটি দেখবে সবাই। গতবারের মতো এবারও ছবিতে ব্যোমকেশ হয়েছেন যীশু সেনগুপ্ত। অজিত যথারীতি শাশ্বত চ্যাটার্জি। ট্রেলার মুক্তির পর পার্শ্ব চরিত্রে বারবার একই অভিনেতাদের দেখে পরিচালকের সমালোচনা করছে অনেকে।  

 

প্রেম কী বুঝিনি

যৌথ প্রযেজনার ছবি এটি। ২০১১ সালের তেলেগু হিট রোমান্টিক ‘১০০% লাভ’-এর রিমেক এটি। অভিনয়ে ওম ও শুভশ্রী গাঙ্গুলী। মনে করা হচ্ছে, শহর অঞ্চলগুলোতে ‘জুলফিকার’ ও ‘ব্যোমকেশ’-এর কাছে ছবিটি সুবিধা করতে না পারলেও মফস্বলে ভালো ব্যবসা করবে।

 

চকোলেট

পূজার ছবি হিসেবে শেষ মুহূর্তে যোগ হয়েছে ‘চকোলেট’। পরিচালক সুজন মুখোপাধ্যায়ের প্রথম ছবি এটি। এই কমেডি ছবিতে আছেন পরমব্রত চ্যাটার্জি, রুদ্রনীল ঘোষ, পায়েল সরকার প্রমুখ। উৎসবের মৌসুমে বড় ব্যানারের ছবির ভীড়ে মানুষ কেন ‘চকোলেট’ দেখবে? কেনই বা তিনি পূজায় ছবি মুক্তি দেওয়ার ঝুঁকি নিলেন? পরিচালক অবশ্য আত্মবিশ্বাসী, “পরম আর রুদ্রর কমেডি জুটি মানুষ বরাবরই পছন্দ করে। দর্শকদের কাছে ‘জুলফিকার’ বিরিয়ানি হলে ‘গ্যাংস্টার’ রেজালা। ‘অভিমান’ হয়তো চাপ। আমার ছবি কিন্তু শেষ পাতের ডেজার্ট। ওটি না খেলে সবই মাটি। ’


মন্তব্য