kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আলোচিত ছয় বিচ্ছেদ

হলিউডের তারকাদের মধ্যে বিচ্ছেদ নতুন কিছু নয়। ব্রাড পিট আর অ্যাঞ্জেলিনা জোলির বিচ্ছেদের পর বিষয়টি আবারও আলোচনায়। আলোচিত ছয় বিচ্ছেদ নিয়ে লিখেছেন আনিকা জীনাত

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



আলোচিত ছয় বিচ্ছেদ

এলিজাবেথ টেলর ও রিচার্ড বার্টন

হলিউডের বিখ্যাত এই দম্পতি দুবার একে অপরকে বিয়ে করেন, বিচ্ছেদও তাঁদের দুবারই হয়। হলিউডের সবচেয়ে নাটকীয় বিচ্ছেদের ইতিহাস সম্ভবত তাঁদেরই।

প্রথম দফায় তাঁদের বিয়ে টিকেছিল ১০ বছর। ১৯৬৪ থেকে ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত। বিচ্ছেদের যন্ত্রণায় কাতর হয়ে এক বছরের মাথায় আবারও তাঁরা বিয়ে করেন। সেবার তাঁদের বিয়ে টিকেছিল মাত্র ১৬ মাস। মাত্রাতিরিক্ত মদ্যপানসহ নানা কারণে প্রতিদিন ঝগড়া লেগেই থাকত তাঁদের। এটাকেই বিচ্ছেদের অন্যতম কারণ বলেছেন দুজন।

 

ম্যাডোনা-শন পেন

আশির দশকে গায়িকা ম্যাডোনা আর অভিনেতা শন পেন দুজনেই অনেক বড় তারকা ছিলেন। তাই তাঁদের বিচ্ছেদ নিয়ে সে সময় বলতে গেলে হুলুস্থুল পড়ে গিয়েছিল। ১৯৮৫ সালের আগস্টে বিয়ের মাত্র দুই বছর পরেই শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ এনে শনের বিরুদ্ধে বিচ্ছেদের আবেদন করেন ম্যাডোনা। পরে অবশ্য এ আবেদন প্রত্যাহার করেন তিনি। যদিও তার পরও বিয়ে টেকেনি, ১৯৮৯ সালে বিচ্ছেদ হয়। ১৯৮৬ সালে ‘সাংহাই সারপ্রাইজ’ ছবিতে একসঙ্গে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছিলেন ম্যাডোনা-শন। একই বছর নিজের তৃতীয় অ্যালবাম ‘ট্রু ব্লু’ শনকে উৎসর্গ করেন ম্যাডোনা।

 

টম ক্রুজ ও কেটি হোমস

মিমি রাজার্স, নিকোল কিডম্যান আর কেটি হোমস—তিন নায়িকাকে বিয়ে করেছিলেন টম ক্রুজ। তিনটিই কমবেশি আলোচিত। তাঁর তিন বিয়ে টিকেছিল যথাক্রমে তিন, এগার আর পাঁচ বছর। শেষটি ছিল কেটির সঙ্গে, যা শেষ হয় ২০১২ সালে।

সাইন্টোলজি চার্চের সঙ্গে ক্রুজের অতিরিক্ত ঘনিষ্ঠতা ঠিক মেনে নিতে পারেননি কেটি। যদিও প্রথম দিকে ক্রুজের সঙ্গে কেটি নিজেও সাইন্টোলজি ধর্মের দীক্ষা নেন। কিন্তু ক্রুজ যখন তাঁদের একমাত্র সন্তান সুরিকেও সাইন্টোলজির একটি গোপন উৎসবে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নেন তখনই ক্ষুব্ধ হয়ে বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নেন কেটি।

তিনি ক্রুজের এই বিষয়টি নিয়ে এতটাই বিরক্ত ছিলেন যে ক্রুজকে না জানিয়েই তিনি বিচ্ছেদের আবেদন করেন।

 

বেন অ্যাফ্লেক ও জেনিফার গার্নার

সাম্প্রতিক সবচেয়ে আলোচিত ছিল বেন অ্যাফ্লেক ও জেনিফার গার্নারের বিচ্ছেদ। এত আলোচনার কারণ— অর্থ। প্রায় এক হাজার ২০০ কোটি টাকা মূল্যের এই বিচ্ছেদ হয় গত বছর। তাঁদের বিয়ে হয় ২০০৫ সালের জুনে। বিয়েবার্ষিকীর ১০ বছর পূর্তির এক মাস আগে, হঠাৎ করেই বিচ্ছেদের ঘোষণা দেন বেন ও গার্নার। জেনিফার গার্নারের সঙ্গে বিয়ের আগে গায়িকা অভিনেত্রী জেনিফার লোপেজের সঙ্গে প্রেম ছিল অ্যাফ্লেকের। আত্মজীবনীতে লোপেজ তাঁদের সম্পর্কের খোলামেলা বয়ান দেওয়ার পরেই অ্যাফ্লেক-গার্নারের সম্পর্কে ফাটল ধরে যা রূপ নেয় বিচ্ছেদে।

 

জনি ডেপ ও আম্বার হার্ড

এ বছরই বিয়ের মাত্র ১৫ মাসের মাথায় বিচ্ছেদ ঘটে জনি ডেপ ও আম্বার হার্ডের। গত বছরই ঘটা করে বিয়ে করেছিলেন তাঁরা। জনির এটা ছিল দ্বিতীয় বিয়ে, হার্ডের প্রথম। দুজনে বেশ সুখেই ছিলেন। অস্ট্রেলিয়ায় ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান’-সিরিজের নতুন ছবির শুটিংয়ের সময় স্বামীর সঙ্গে ছিলেন হার্ড। সেখানে তাঁর কুকুরের অবৈধ অনুপ্রবেশ নিয়ে ঝামেলা, পরে মামলা হয়। পুরো সময়ে স্ত্রীকে সমর্থন দিয়ে গেছেন জনি। অথচ হঠাৎই কী যে হলো! বিচ্ছেদের আবেদন করলেন হার্ড। অভিনেতার বিরুদ্ধে শারীরিকভাবে নির্যাতনের অভিযোগে বিচ্ছেদের আবেদন করেন তিনি। কয়েক দিন আগেই সে আবেদনের নিষ্পত্তি হয়।

 

ব্রাড পিট-অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

এ বছরের সবচেয়ে আলোচিত ঘটনাগুলোর একটা—ব্রাড পিট ও অ্যাঞ্জেলিনা জোলির বিচ্ছেদ। সবাইকে অবাক করে দিয়ে ২০ সেপ্টেম্বর ব্রাডের বিরুদ্ধে বিচ্ছেদের আবেদন করেন জোলি। আবেদনে বলা হয়, সাম্প্রতিক সময়ে অতিরিক্ত মদ্যমান করছিলেন ব্রাড, যা তাঁদের সন্তানের প্রতি বিরূপ প্রভাব ফেলছে। এ ছাড়া হুটহাট রেগে গিয়ে সন্তানদের প্রতি শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনও করছিলেন। উত্তরে এসব অভিযোগের ব্যাপারে কিছু না বললেও ব্রাড পুরো ঘটনায় ‘দুঃখিত’ বলে জানিয়েছেন। এফবিআই তাঁর বিরুদ্ধে অবশ্য তদন্ত শুরু করেছে। ২০০৪ সালে ‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস স্মিথ’ ছবির শুটিংয়ের সময় জোলি-ব্রাডের প্রেম হয়। জেনিফার অ্যানিস্টনের সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটিয়ে পরের বছরই জোলির সঙ্গে থাকতে শুরু করেন ব্রাড। যদিও তাঁরা বিয়ে করেন আরো ৯ বছর পর ২০১৪ সালে। চলচ্চিত্রের জনপ্রিয়তা ছাড়াও নানা সামাজিক ও দাতব্য কার্যক্রমের জন্য দুনিয়াজুড়ে জনপ্রিয় ছিলেন জোলি ও ব্রাড। দুজনের নামের প্রথম অংশ নিয়ে তাঁদের নাম দেওয়া হয় ‘ব্রাঞ্জেলিনা’।

 


মন্তব্য